দরপত্র প্রক্রিয়ায় অনিয়মের অভিযোগ :বরগুনায় ঠিকাদারদের সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত: ৪:১৯ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২২, ২০২০

তরিকুল ইসলাম রতন, বরগুনা জেলা প্রতিনিধি ॥

বরগুনায় দরপত্র ও প্রাক্কলন তৈরীতে অনিয়মের অভিযোগ সংবাদ সম্মেলন করেছে জেলা ঠিকাদার সমিতি।

আজ শনিবার (২২ আগস্ট) সকাল ১১ টায় বরগুনা সাংবাদিক ইউনিয়নের সম্মেলন কক্ষে এ সংবাদ সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়।

উপস্থিত ঠিকাদাররা জানান, বরগুনা এলজিইডি কর্তৃক ওইজচ প্রকল্পের আওতায় দরপত্র আহবান

করা হয়। ৮টি প্যাকেজ ও আইডি নম্বর উল্লেখ করে দরপত্র নােটিশ আহবান করা হয়। ওইজচ প্রকল্পের আওতায় বিগত সময়ে যত দরপত্র আহবান করা হয়েছে তাহা খঞগ বা ঙঝঞঊঞগ পদ্ধতিতে।

একটি কাজের জন্য একটি প্যাকেজ করা হয়। কিন্ত এইবার উক্ত প্রকল্পে সর্ব প্রথম ৩৩টি কাজকে ৮টি প্যাকেজ করে দরপত্র আহবান করা হয়। যা বর্তমানে ব-এচ খরাব এ দৃশ্যমান।

ঠিকাদাররা আরােকিছু সু-নির্দিষ্ট অভিযােগ তুলে ধরা বলেন, ২০২০- ২১ অর্থ বছরে এলজিইডি, বরগুনা কতৃক আহবানকৃত দরপত্র ওইজচ প্রকল্পের ব্রীজের প্রতিমিটিারে যতটাকার প্রাক্কলন ধরা হয়েছে তাহার চেয়ে দরপত্র বিজ্ঞপ্তি নং-০২/২০২০-২০২১ এর প্রাক্কলনের প্রায় দ্বিতন ব্যায় বৃদ্ধি লেখিয়ে এই প্রকল্পের কাজের প্রাক্কলন তৈরী করা হয়েছে। এবং প্রতিটি ব্রীজের অধিকাংশ মালামাল ব্যবহারযােগ্য। যাহা প্রাক্কলনে স্যালভেজ হিসাবে অন্তর্ভূক্ত করা হয় নাই।

তারা আরও বলেন, অধিকাংশ ব্রীজের এ্যাপ্রােচে ৫ থেকে ৭ লক্ষ টাকার মাটির স্যাক্স দেখানাে হইয়া যাহা আদৌও প্রয়ােজন নাই। অধিকাংশ ব্রীজের বেল পােষ্ট প্রয়োজনের তুলনায় প্রাক্তলনে অতিরিক্ত ধরা হইয়াছে যাহারা কারানে প্রাক্কলিত ব্যায় অনেক বৃদ্ধি পাইয়াছে।

ঠিকাদাররা আরও বলেন, বিগত বিএনপি, জামাত জোট সরকারের আমলে কিছু অসাধু ঠিকাদার ও কিছু দুর্নীতিপরায়ন কর্মকর্তার যােগসাজশে এই প্রক্রিয়ায় কাজ ভাগিয়ে নিয়ে সরকারের ব্যাপক অর্থ লটুপাট করেন। পুনরায় সেই সকল ঠিকাদারই কাজের নামে লুটপাট করার পায়তারা ঢালাইতেছে যেমনঃ দরপত্র দাখিল প্রক্রিয়ায় ঙঞগ সিস্টেমে ১০% নির্ধারিত থাকার কারনে অফিস কর্তৃক রেইট সংগ্রহ পূর্বক একচেটিয়া কাজের মালিক হন্নে যান এবং কার্যাদেশ প্রাপ্ত হন।

যাতে অন্য কোন ঠিকাদার দরপত্রে অংশগ্রহন করতে পারে না। এভাবে এই প্রকল্পের কাজের ক্ষেত্রেও একই ধরনের পদ্ধতি অবলম্বন করা হয়েছে। এমনকি দরপত্রে যে সকল শর্তাবলী দেয়া হয়েছে তাতে গুটিকয়েক ঠিকাদার ছাড়া অন্যকারাে অংশগ্রহনের সুযােগ নেই।

উপরােক্ত বিষয় ও সৃষ্ট অনিয়ম প্রসঙ্গে বরগুনা এলজিইডির নির্বাহী প্রকৌশলী মহােদয়ের সহিত আলােচনা করলে তিনি বলেন, প্রকল্প পরিচালক মহোদয়ের নির্দেশনা মােতাবেক দরপত্র আহবান করা হইছে। কোন দরপত্র কোন পদ্মতিতে আহবান করা হবে সে বিষয়ে প্রাক্কলন অনুমােদন কপিতে নির্দেশনা দেয়া হয়।

Sharing is caring!