থানায় বিবস্ত্র করে ৩ বোনকে নির্যাতন, একজনের গর্ভপাত!


Deprecated: get_the_author_ID is deprecated since version 2.8.0! Use get_the_author_meta('ID') instead. in /home/ajkerbarta/public_html/wp-includes/functions.php on line 4861
প্রকাশিত: ১১:১৫ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৮, ২০১৯

নিরাপত্তার জন্য পুলিশের স্মরণাপন্ন হয় সাধারণ মানুষ। সেই পুলিশই খোদ থানায় বিবস্ত্র করে ৩ বোনকে নিষ্ঠুর নির্যাতন করেছে। গত ১০ সেপ্টেম্বর এমন লোমহর্ষক ঘটনা ঘটেছে ভারতের আসাম রাজ্যে দারাং জেলার একটি থানায়। ঘটনাটি এতদিন চাঁপা থাকলেও আসামের একটি নিউজ চ্যানেল ভুক্তভোগী তিন নারীর সাক্ষাৎকার প্রচার করলে বিষয়টি প্রকাশ্যে আসে। তাদের বর্ণনায় থানার ভেতরে বিবস্ত্র করে নির্যাতনের যে চিত্র উঠে এসেছে, তা সভ্য সমাজে নজিরবিহীন। এ ঘটনায় দারাং জেলার সিপাঝর থানায় করা অভিযোগপত্রে তিন বোন উল্লেখ করেন, তাদের তিনজনকেই থানার ভেতর আটকে রেখে বিবস্ত্র করে নির্যাতন চালিয়েছে পুলিশ সদস্যরা। তাদের মধ্যে একজন গর্ভবতী ছিলেন, তিনিও রেহাই পাননি। তার গর্ভপাত হয়ে যায়। তবে পুলিশ জানায়, নির্যাতিতা নারীদের মধ্যে একজন গর্ভবতী ছিলেন কিনা সেটি এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। এ বিষয়ে মেডিকেল রিপোর্টের অপেক্ষায় আছেন তারা। এনডিটিভির খবরে বলা হয, এমন নির্যাতনের অভিযোগে এরইমধ্যে জেলার বুরহা পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ মাহেন্দ্র শর্মা ও এক নারী পুলিশ কনস্টেবল বিনিতা বোরোকে বরখাস্ত করা হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে দোষীদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছে স্থানীয় প্রশাসন। প্রসঙ্গত, গত ৯ সেপ্টেম্বর গুয়াহাটির সাতগাঁও এলাকায় নিজ বাসা থেকে তিন বোন ও এক বোনের স্বামীকে তুলে নিয়ে যায় পুলিশ সদস্যরা। এরপর বুরহা পুলিশ ফাঁড়িতে আটকে রেখে গত ১০ সেপ্টেম্বর তাদের বিবস্ত্র করে পেটান ওই দুই পুলিশ কর্মকর্তা। অন্য ধর্মের এক মেয়েকে নিয়ে পালিয়েছেন ওই তিন নারীর এক ভাই এমন অভিযোগে দায়ের হওয়া অপহরণ মামলায় অভিযুক্তের স্বজনদের তুলে এনে এমন নির্যাতন করে পুলিশ।