তুরস্কে ভূমিকম্পে নিহত ১৮, আহত কয়েক শ

প্রকাশিত: ১২:৪৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ২৫, ২০২০

তুরস্কের পূর্বাঞ্চলে শক্তিশালী ভূমিকম্পের আঘাতে কমপক্ষে ১৮ জন নিহত হয়েছে। আহত কয়েক শ। দেশটির সরকারি সূত্র এ তথ্য জানিয়ে বলেছে, রিখটার স্কেলে এর মাত্রা ছিল ৬ দশমিক ৮। দেশের এলাজিগ প্রদেশের সিভরিক এলাকায় এটি আঘাত হানে। ভূমিকম্পে ভবনগুলো ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে। বাসিন্দারা রাস্তায় ছোটাছুটি শুরু করেছে।

বিবিসি অনলাইনের খবরে জানানো হয়, তুরস্কের প্রতিবেশী দেশ সিরিয়া, লেবানন ও ইরানেও ভূকম্পন অনুভূত হয়। তুরস্কে ভূমিকম্প প্রায়ই হয়ে থাকে। দেশটির পশ্চিমের শহর ইজমিতে ১৯৯৯ সালে শক্তিশালী ভূমিকম্পে প্রায় ১৭ হাজার মানুষ নিহত হয়। শুক্রবার স্থানীয় সময় ৮টা ৫৫ মিনিটে ভূমিকম্প তুরস্কে আঘাত হানে।

তুরস্কের দুর্যোগ ও জরুরি ব্যবস্থাপনা কর্তৃপক্ষ (এএফএডি) বলছে, ভূমিকম্পের পর ৬০টি পরাঘাত হয়েছে। এএফএডি বলছে, উদ্ধারকারী ৪০০ দল ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় যাচ্ছে। আশ্রয়হীনদের জন্য তারা বিছানা ও তাবু সঙ্গে রেখেছেন। এএফএডি পরাঘাতের সতর্কতা জারি করে ক্ষতিগ্রস্ত ভবনগুলোতে বাসিন্দাদের ফিরে যেতে নিষেধ করেছে।

এলাজিগের গভর্নর বলেছেন, ওই প্রদেশে আটজন নিহত হয়েছেন। প্রতিবেশী মালতায়া এলাকার গভর্নর বলছেন, সেখানে ছয়জন নিহত হয়েছেন।

এলাজিগ প্রদেশের এক শহরে থাকেন ৪৭ বছরের মেলাহাত চান। এএফপিকে তিনি বলেন, পরিস্থিতি খুব ভয়ংকর ছিল। আসবাব সব আমাদের ওপর পড়ে যাচ্ছিল। আমরা দৌড়ে বাইরে চলে গিয়েছিলাম।

ভূমিকম্পে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকাটি রাজধানী আঙ্কারা থেকে ৫৫০ কিলোমিটার পূর্বে। এলাকাটি প্রত্যন্ত ও জনবহুল। এ কারণে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ জানতে সময় লাগছে। সেখানে রাতে তাপমাত্রা হিমাঙ্কের নিচে থাকে।

সিভরিক শহরে প্রায় ৪ হাজার মানুষের বাস। দজলা নদীর হাজার লেকের তীরে এই শহরটি জনপ্রিয় পর্যটনস্থল।

Sharing is caring!