তালতলীতে পূর্ণাঙ্গ হাসপাতালের দাবীতে বিশাল মানববন্ধন অনুষ্ঠিত

প্রকাশিত: ১১:২৪ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ১৩, ২০২০

তরিকুল ইসলাম রতন, বরগুনা প্রতিনিধি ॥ বরগুনার তালতলীতে পূর্ণাঙ্গ হাসপাতালের দাবীতে বিশাল মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়েছে।
তালতলী উপজেলার ৭ টি ইউনিয়নের প্রতিটি হাট বাজারে একযোগে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয় এবং মানববন্ধনের সাথে গণ স্বাক্ষরেরও কার্যক্রমও ছিলো।

তালতলী উপজেলায় প্রায় ৫০ হাজার লোকের এক বিশাল গণসমারোহে ঝড়/বৃষ্টি উপেক্ষা করে এ মানববন্ধন পালিত হয়।
সোমবার সকাল ১১ টায় প্রায় ঘণ্টাব্যাপী এ মানববন্ধন পালিত হয়েছে।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, তালতলী উপজেলা প্রধানমন্ত্রী ও জননেত্রী শেখ হাসিনার দেয়া উপহার অথচ তার এই উপহারে তালতলী উপজেলাতে নেই কোন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স। চিকিৎসা সেবা পাওয়া সকল মানুষের মৌলিক অধিকার অথচ তালতলীবাসী সেই অধিকার থেকে আজ বঞ্চিত।

তাই প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে আমরা তালতলীবাসী দাবী করছি উপকূলের মানুষের বেঁচে থাকার জন্য ৫০ শয্যা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স চাই।
উল্লেখ্য, বরগুনা জেলার সর্বশেষ উপজেলা তালতলী গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর প্রতিশ্রুতি অনুসারে ২০১০ সালের মে মাসের ৬ তারিখে আমতলী উপজেলা ভেঙে তালতলীকে উপজেলা হিসাবে ঘোষণা করেন।

তালতলী উপজেলা ঘোষণা হয়েছে প্রায় ১০ বছর, কিন্তু এখনো এ জনপদের মানুষ পূর্ণাঙ্গ উপজেলার স্বাদ এখনও পায়নি। পাচ্ছেনা বেঁচে থাকার মৌলিক অধিকার। এ উপজেলার প্রায় তিন লক্ষ মানুষ ভালো মানের চিকিৎসা সেবা থেকে আজ বঞ্চিত।

তালতলী উপজেলাটি সমুদ্রের তীরবর্তী হওয়ায় প্রাকৃতিকভাবেই সমৃদ্ধ। এখানে রয়েছে সুস্বজ্জিত বন, আশার চরের শুঁটকি পল্লী, টেংরা গিরি ইকোপার্ক, শুভ সন্ধ্যা সমুদ্র সৈকত এবং পিকনিক স্পট, রাখাইন পল্লী প্রভৃতি। এ উপজেলার বেশির ভাগ মানুষ জেলে, কৃষক, এ উপজেলায় গড়ে প্রতিদিন শত শত পর্যটক ঘুরতে আসে। সরকার কিছু মেগা প্রজেক্ট ও হাতে নিয়েছে এই এলাকাটি নিয়ে।

গুরুত্বপূর্ণ এ জনপদের মানুষদের জন্য ৫০ শয্যা হাসপাতাল এখন একান্ত প্রয়োজন। আমতলী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের সাব-সেন্টার ২০ শয্যা বিশিষ্ট তালতলী হাসপাতাল। ডেপুটেশনের ডাক্তার দিয়ে চলছে চিকিৎসা সেবা।

এই এলাকার উচ্চ বিত্ত ও নিম্ন আয়ের মানুষের চিকিৎসার একমাত্র ভরসা এই হাসপাতালটি। বর্তমানে তালতলীর স্বাস্থ্য বিভাগ মাত্র চারজন ডাক্তার দিয়ে কোন রকম আউট-ডোর চিকিৎসা সেবা দিচ্ছে। নেই কোন পরীক্ষার সু-ব্যাবস্থা। হাসপাতালে স্টাফ ও যন্ত্রপাতির অভাবে কোন রোগী ভর্তি নেয়া হয় না।

Sharing is caring!