তজুমদ্দিনে প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তার স্বেচ্ছাচারিতায় ডেইরী ফার্ম ধ্বংসের মুখে

প্রকাশিত: ৮:৫৯ অপরাহ্ণ, জানুয়ারি ৩০, ২০২১

তজুমদ্দিন প্রতিনিধি ॥ ভোলার তজুমদ্দিনে প্রাণিসম্পদ ও ভেটেরিনারি হাসপাতাল (পশু হাসপাতাল) কর্মকর্তা ডাঃ পলাশ চন্দ্র সরকারের অনিয়ম ও স্বেচ্ছাচারিতায় ধ্বংসের মুখে পড়েছে উপজেলার ডেইরী ফার্ম ও গরু খামারীরা। বিনা চিকিৎসায় মারা যাচ্ছে গরু-ছাগল-মহিষ। নিয়মিত অফিস করছেন না ওই কর্মকর্তা। এসব বিষয়ে বিচার ও তদন্ত দাবী করে প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়, দুর্নীতি দমন কমিশন, আমার এমপি ডট কম, জেলা প্রশাসক, প্রেসক্লাব সহ বিভিন্ন দপ্তরে ৩১ সদস্যের স্বাক্ষরিত লিখিত অভিযোগ দিয়েছেন ডেইরী ফার্ম এ্যাসোসিয়েশন ও গরু খামারীরা।

 

অভিযোগ সূত্রে জানা গেছে, ডাঃ পলাশ চন্দ্র সরকার নিয়মিত অফিস করেন না। জেলার বাহিরে বিভাগীয় শহর বরিশালে সপরিবারে অবস্থান করছেন। টাকা ব্যতীত তিনি চিকিৎসা করেন না। সঠিক সময়ে চিকিৎসা না পেয়ে গত এক বছরে খামারীদের প্রায় ২০ টি গরু মারা গেছে। ৩০ টাকার গরুর প্রজনন ভ্যাকসিন ৫০০ টাকা নেন। বাড়ী বা খামারে গিয়ে ভ্যাকসিন দিলে আদায় করেন ১৫শ থেকে ২ হাজার টাকা। রেজিষ্ট্রেশন ভুক্ত খামারীদের সরকারী সুযোগ সুবিধা না দিয়ে নিয়ম বহির্ভূত কাজ করেন। উপজেলা ডেইরী ফার্ম এ্যাসোসিয়েশন সভাপতি মোঃ ইদ্রিস মিয়া জানান, ব্যাংক -এনজিও থেকে ঋণ নিয়ে গরুর খামার করা প্রতিষ্ঠান গুলো উপজেলা প্রাণিসম্পদ (পশু হাসপাতাল) কর্মকর্তা ডাঃ পলাশ সরকারের স্বেচ্ছাচারিতায় ধ্বংসের মুখে পড়েছে। জেলা কর্মকর্তার কাছে অভিযোগ দিয়েও কোন প্রতিকার পাইনি।

 

এ বিষয়ে উপজেলা প্রাণিসম্পদ ও ভেটেরিনারি হাসপাতাল কর্মকর্তা ডাঃ পলাশ চন্দ্র সরকার বলেন, আমার উপস্থিতি অনুপস্থিতি থাকার বিষয় কর্তৃপক্ষ দেখবেন, আপনারা নয়। ভোলা জেলা প্রাণিসম্পদ কর্মকর্তা ডাঃ ইন্দ্রজিৎ মন্ডল বলেন, খামারীদের অভিযোগ পেয়েছি, তদন্ত করে দেখা হবে।