ঢাকায় ধর্ষণ বিরোধী বাম ছাত্র সংগঠনের নেতা আগৈলঝাড়ায় ছাত্রী ধর্ষণে গ্রেফতার

প্রকাশিত: ৫:৫৮ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২০, ২০২০

তপন বসু, আগৈলঝাড়া প্রতিনিধি ::

দেশে ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলনে ঢাকার শাহবাগে আন্দোলনকারী তিতুমীর কলেজের শিক্ষার্থী একটি বাম ছাত্র সংগঠনের নেতা সাজ্জাদ গাজীকে আগৈলঝাড়ায় কলেজ ছাত্রী ধর্ষণ মামলায় গ্রেফতার করেছে পুলিশ।

থানা অফিসার ইন চার্জ মো. গোলাম সরোয়ার জানান, সোমবার সন্ধ্যায় একটি বন্দরের ঝাড়ুদারের মেয়ে ওই ছাত্রীকে(১৯) ঘরে একা পেয়ে ধর্ষণ করেন আগৈলঝাড়া উপজেলার আমবৌলা গ্রামের খোরশেদ আলম গাজীর ছেলে সাজ্জাদ গাজী (২৫)। আকস্মিক ছাত্রীর মা ঘরে ঢুকে মেয়েকে ধর্ষণের ঘটনা দেখে লোকজন ডাকলে স্থানীয়রা ধর্ষক সাজ্জাদকে আটক করেন। এঘটনায় ধর্ষিতা ছাত্রীর মা বাদী হয়ে সোমবার রাতেই থানায় সাজ্জাদকে আসামী করে মামরা দায়ের করেন, নং-৯(১৯.১০২০)।
সূত্র মতে, দেশে সম্প্রতি ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলনে ঢাকার শাহাবাগের একটি সভায় একটি বাম ছাত্র সংগঠনের পক্ষ থেকে ধর্ষণ বিরোধী আন্দোলন করে গত বুধবার বাড়ি আসে সাজ্জাদ। গ্রেফতারকৃত সাজ্জাদ ঢাকার তিতুমীর কলেজের অনার্স শেষ বর্ষের ছাত্র এবং বিবাহিত।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা এসআই মাহাবুব আলম খান এজাহারের বরাত দিয়ে জানান, নওমুসলিম পরিবারের ধর্ষিতা কলেজ ছাত্রীর বাবা মারা যাবার পরে আর্থিক অনটনের কারণে তার মা একটি বন্দরে ঝাড়ুদারের কাজ করছেন। সেই কারণে ওই বন্দরে একটি ঘর ভাড়া নিয়ে দুই মেয়েসহ বসবাস করে আসছিলেন তিনি। তার মেয়ে স্থানীয় একটি কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির ছাত্রী।

গত ৫/৬মাস আগে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে উপজেলার বাগধা ইউনিয়নের আমবৌলা গ্রামের খোরশেদ আলম গাজীর ছেলে ঢাকায় পড়াশোনারত সাজ্জাদ গাজী (২৫)এর সাথে তার মেয়ের পরিচয়ের সূত্র ধরে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে। প্রেমের সূত্র ধরে সাজ্জাদ বিভিন্ন সময় বাড়ি আসলে তার মেয়েকে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে বিভিন্ন সময়ে একাধিকবার ধর্ষণ করেন।

সোমবার (১৯ অক্টোবর) বিকেলে বাদী বন্দর ঝাড়ু দিতে গিয়ে সন্ধ্যায় ঘরে ফিরে তার মেয়েকে জোর করে সাজ্জাদ ধর্ষণরত অবস্থায় দেখে ডাক চিৎকার দিলে বাজারের লোকজন এগিয়ে এলে ধর্ষক সাজ্জাদ পালানোর তাকে হাতেনাতে আটক করে। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে আটক ধর্ষক সাজ্জাদকে গ্রেফতার করে থানায় নিয়ে আসে। ওই রাতেই ধর্ষিতার মা বাদী হয়ে ধর্ষক সাজ্জাদকে আসামী করে মামলা দায়ের করেন। মঙ্গলবার সকালে ধর্ষিতাকে জবানবন্দি প্রদানের জন্য আদালতে ও ডাক্তারী পরীক্ষার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে প্রেরণ করা হয়েছে। অন্যদিকে ধর্ষক সজ্জাদকে একই দিন আদালতে প্রেরণ করলে আদালত তার জামিন না মঞ্জুর করে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ প্রদান করেন।

Sharing is caring!