ঝালকাঠিতে দুটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের নামে জমি বরাদ্দের দাবিতে মানববন্ধন

প্রকাশিত: ৭:০২ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৪, ২০২০

আককাস সিকদার, ঝালকাঠি প্রতিনিধি ::

ঝালকাঠিতে দুইটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের ভবন নির্মাণের জন্য জমি বরাদ্দের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি ও স্মারকলিপি প্রদান কর্মসুচি পালিত হয়েছে। বৃহস্পতিবার বেলা ১২টায় জেলা প্রশাসক কার্যালয়ের সামনের সড়কে ঘণ্টাব্যাপী মানববন্ধন করা হয়। এতে ফিরোজা আমু হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল ও ফিরোজা আমু টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিএম কলেজের শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা অংশ নেন। মানববন্ধনে বক্তব্য দেন হোমিওপ্যাথিক কলেজের প্রভাষক পরিতোষ হালদার, মো. সালাহউদ্দিন ও টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিএম কলেজের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ শামীম শাহ ফকির।

মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, মন্ত্রণালয় থেকে দুইটি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের জন্য ভবন নির্মাণের জন্য বরাদ্দ আসে। শহরের শিল্পকলা একাডেমির সামনে পুরাতন আরসিও অফিসের জমিতে এ ভবন দুটি নির্মাণ করা হবে। হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজের জন্য ৫০ লাখ টাকা ও টেকনিক্যাল অ্যান্ড বিএম কলেজের জন্য এক কোটি ১৯ লাখ টাকা বরাদ্দ করা হয়। এজন্য দরপত্র প্রক্রিয়াও সম্পন্ন হয়েছে। ভূমি মন্ত্রণালয় থেকে পুরাতন আরসিও অফিসের ৪.৮২ একর জমি কালেক্টরেট স্কুলসহ তিনটি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের নামে সমহারে বণ্টনের জন্য জেলা প্রশাসকের কাছে প্রতিবেদন চাওয়া হয়।

কিন্তু অজ্ঞাত কারণে জেলা প্রশাসন ভবন নির্মাণের জন্য জমি বণ্টনের জন্য কোনো উদ্যোগ গ্রহণ করেনি। আগামী ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে জমি বণ্টনের জন্য ব্যবস্থা গ্রহণ করা না হলে কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দেন প্রতিষ্ঠান দুটির শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। মানববন্ধন শেষে জেলা প্রশাসকের কাছে জমিবণ্টনের জন্য স্মারকলিপি প্রদান করেন শিক্ষক ও শিক্ষার্থীরা। জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী স্মারকলিপি গ্রহণ করেন। ফিরোজা আমু হোমিওপ্যাথিক মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের ভারপ্রাপ্ত অধ্যক্ষ মাখন লাল হালদার বলেন, জেলা প্রশাসন আমাদের জমি দেখিয়ে দিয়েছেন।

সে অনুযায়ী আমরা ভবন নির্মাণের জন্য আবেদন করি। ভবনের জন্য বরাদ্দ আসলেও জমি এখনো বুঝিয়ে দিচ্ছে না জেলা প্রশাসন। জমি না পেলে ভবন কোথায় করবো। ঠিকাদাররাও ভবন নির্মাণ কাজ শুরু করার তাগিদ দিচ্ছেন।

জেলা প্রশাসক মো. জোহর আলী বলেন, জমি বরাদ্দ পাওয়ার জন্য কলেজ কর্তৃপক্ষ আবেদন করেছে। বিধিঅনুযায়ী আবেদন মন্ত্রণালয়ে পাঠানো হবে, সেখান থেকে অনুমতি দিলেই জমি বণ্টন এবং বুঝিয়ে দেওয়া হবে। এদিকে সুগন্ধ্যা নদীর তীরে লিচুতলা খ্যাত পুরাতন আরসিও অফিসের জমি কালেক্টরেট স্কুল, ফিরোজা আমু হোমিওপ্যাথিক মেডিকেল কলেজ ও ফিরোজা আমু টেকনিক্যাল কলেজের নামে বরাদ্দের প্রক্রিয়া শুরু হলেও বাদ পড়েছে ডিসি পার্কের নামে বরাদ্দের প্রক্রিয়া। জমি বরাদ্দের তালিকা থেকে ডিসি পার্কের নাম বাদ পড়ায় হতাশ হয়েছেন বিনোদন প্রেমীরা ।

উল্লেখ্য, ভূমি মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব হাসিনা ইসলাম সর্বশেষ গত ২৩ সেপ্টেম্বর জেলা প্রশাসককে এক চিঠির মাধ্যমে সরেজমিন তদন্ত পূর্বক আবেদনকারীদের শুনানী গ্রহণ করে প্রতিবেদন পাঠানোর নির্দেশ দেন।

Sharing is caring!