ছিনতাই মামলায় কারাগারে ইউপি চেয়ারম্যান লিটন মোল্লা

প্রকাশিত: ৮:৪৩ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৭, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ॥

পরিবহন শ্রমিককে মারধর করে আড়াই লাখ টাকা ছিনতাই ও চাঁদাবাজির মামলায় বরিশাল সদর উপজেলার কাশিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান কামাল হোসেন লিটন মোল্লাকে কারাগারে পাঠিয়েছেন আদালত।

দীর্ঘ দিন পালিয়ে থাকার পরে বৃহস্পতিবার দুপুরে অতিরিক্ত চিফ মেট্রোপলিটন ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে বিচারক মারুফ আহমেদ আবেদন না মঞ্জুর করে তাকে জেলে পাঠানোর নির্দেশ দেন।
বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের এয়ারপোর্ট থানার দায়িত্বপ্রাপ্ত সাধারণ নিবন্ধন কর্মকর্তা (জিআরও) উপ-পরিদর্শক বৈচি বিশ্বাস এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

জেলে যাওয়া লিটন মোল্লা কাশিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান ছাড়াও একই ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক।

জিআরও বৈচি বিশ্বাস জানান, ‘বরিশাল-ঢাকাসহ দূরপাল্লার বিভিন্ন রুটে চলাচল করা গোল্ডেন লাইন পরিবহনের নথুল্লাবাদ বাস টার্মিনালের ম্যানেজার শহিদুল ইমলামের নিকট প্রতি মাসে ২৫ হাজার টাকা করে চাঁদা দাবি করে আসছিলেন লিটন মোল্লা।

এর পর থেকে লিটন মোল্লার সন্ত্রাসী বাহিনী গোল্ডেন লাইন কাউন্টারে এসে ওই ম্যানেজারকে নানাভাবে হয়রানি শুরু করে। বাসে যাত্রী তুলতে গেলে বাধা দেয়। পরে ভয়ভীতি দেখিয়ে কয়েক মাস ধরে দাবিকৃত চাঁদার টাকা আদায় করে নেয় লিটন মোল্লার সন্ত্রাসী বাহিনী।

মামলার বরাত দিয়ে তিনি আরও জানান, ‘করোনার কারণে যাত্রী না থাকায় পরিবহনের আয় কমে যায়। এ কারণে মে ও জুন মাসে চাঁদার টাকা দিতে পারেননি পরিবহনের ওই ম্যানেজার। এ কারণে গত ২২ জুলাই রাত ১২টার দিকে ম্যানেজার শহিদুল ইসলামকে বেদম মারধর করেন লিটন মোল্লা ও তার সহযোগীরা।

এসময় গোল্ডেন লাইন পরিবহন কোম্পানির ওই ম্যানেজারের নিকট থেকে দুই লাখ ৪৩ হাজার টাকা ছিনিয়ে নেন লিটন মোল্লা ও তার সহযোগীরা। পরে টার্মিনালে দায়িত্বরত পুলিশ সদস্যরা এসে রক্তাক্ত অবস্থায় শহিদুল ইসলামকে উদ্ধার করে বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালে ভর্তি করে দেন।

এই ঘটনায় গত ২৩ জুলাই মহানগরীর এয়ারপোর্ট থানায় ছিনতাই, চাঁদাবাজি এবং মারধরের অভিযোগ এনে মামলা দায়ের করেন ম্যানেজার শহিদুল ইসলাম। ওই মামলায় লিটন মোল্লা ছাড়াও তার সহযোগী রনি মৃধা, রুবেল, তারেক, নাসির, সোহাগ, মাসুম, সুজন, জলিল, মাসুদ ও ইউনুসকে আসামি করা হয়।

এদিকে মামলা দায়েরের পরে লিটন মোল্লাকে আদালতে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছিলেন আদালত। কিন্তু তিনি আদালতের নির্দেশ উপেক্ষা করে পলাতক ছিলেন। এরপর বৃহস্পতিবার আদালতে আত্মসমর্পণ করে জামিনের আবেদন করলে বিচারক তাকে কারাগারে পাঠান।

Sharing is caring!