চোর রেখে গেলো চিরকুট!

প্রকাশিত: ৯:৫৫ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ১৬, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ॥

চুরি করেছে দোকানের ফটোকপি মেশিন এবং সিলিং ফ্যানের মতো মূল্যবান জিনিসপত্র। যাবার সময় রেখে গেছে চিরকুট। যেখানে কি কি চুরি করা হয়েছে সবকিছুর উল্লেখ রয়েছে। সাথে বলা হয়েছে আগামী দুমাসের মধ্যে চুরিকৃত জিনিসপত্রের দাম পরিশোধ করা হবে। এমনকি যেসব জিনিস চুরি করা হয়েছে সেগুলোর দাম জানাতে চিরকুটে দিয়ে যাওয়া হয়েছে মোবাইল নম্বর। চোরের এমন উদারতার ঘটনা ঘটেছে বরিশালে। বিষয়টি নিয়ে থানায় অভিযোগ দায়ের করেছেন ভুক্তভোগী দোকান মালিক।

জানা গেছে, বরিশাল নগরীর ৩নং ওয়ার্ড পুরানপাড়া এলাকায় ব্যবসার উদ্দেশ্যে দোকান খোলেন সেখানকার বাসিন্দা মোঃ মেহেদী হাসান। গত ১২ অক্টোবরে দোকানে হাজির হন বাগেরহাট জেলার মোড়লগঞ্জ থানাধীন তরিকুল ইসলাম নামের একজন। নিজের অসহায়ত্বের কথা বলে একটি চাকরির নিবেদন করেন দোকান মালিক মেহেদীর কাছে। ঠিক হয় মাসিক বেতনের সঙ্গে তিনবেলা মেহেদীর বাড়িতে খাওয়া আর দোকানে ঘুমানোর সুযোগ পাবেন তরিকুল।

কিন্তু গত বৃহস্পতিবার (১৫ অক্টোবর) বেলা গড়িয়ে গেলেও সকালের নাস্তা খাবার জন্য তরিকুল মেহেদীর বাড়িতে উপস্থিত হননি। এসময় তার (তরিকুল) খোঁজে দোকানে লোক যাবার পর সাক্ষী হতে হয় অদ্ভূত ঘটনার। দোকানে নেই তরিকুল ইসলাম, সঙ্গে লাপাত্তা দামী ফটোকপি মেশিন ও কয়েকটি সিলিং ফ্যান। তবে রেখে যাওয়া হয়েছে একটি চিরকুট।
সেখানে উল্লেখ করা হয়, আগামী ২০ অক্টোবরের মধ্যে পঞ্চাশ হাজার টাকা সংগ্রহ করতে না পারলে বিপদে পড়বেন তরিকুল। তাই বাধ্য হয়ে চুরি করতে হয়েছে তাকে। তবে আগামী দু’মাসের মধ্যে চুরি যাওয়া জিনিসের মূল্য পরিশোধের অঙ্গীকার করা হয় চিরকুটে। জিনিসগুলোর দাম মোবাইলে ফোন দিয়ে জানাতে বলা হয়েছে। সাথে সাথে দোকান মালিক মেহেদীর প্রতি অনুরোধ করা হয়েছে তিনি যেন রাগ না করেন।
বিষয়টির সত্যতা নিশ্চিত করে মোঃ মেহেদী হাসান জানান, নিজের অসহায়ত্বের কথা বলে কাজে যোগ দিয়েছিলেন তরিকুল। কিন্তু এমন বিপদে ফেলবেন তা আগে কোনোভাবে বুঝে উঠতে পারেন নি তিনি। বিষয়টি নিয়ে স্থানীয় কাউনিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে। মেহেদী বলেন,‘মানুষকে বিশ্বাস করাই এখন আমার জন্য কঠিন হয়ে উঠেছে। নতুন ব্যবসার শুরুতেই এমন ধাক্কা আমাকে কঠিন বিপদে ফেলেছে’।

Sharing is caring!