চার জেলা থেকে চোরাই মোটরসাইকেলসহ চক্রের চার সদস্য গ্রেপ্তার

প্রকাশিত: ১:০৭ অপরাহ্ণ, জুলাই ১২, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বরিশাল নগরীতে অভিযান চালিয়ে আন্তঃজেলা চোর চক্রের চার সদস্যকে গ্রেফতার করেছে মহানগরীর কাউনিয়া পুলিশ। এসময় তাদের কাছ থেকে উদ্ধার করা হয়েছে চারটি চোরাই মোটরসাইকেল। ১০ জুলাই থেকে ১১ জুলাই রাত পর্যন্ত বরিশাল, খুলনা, যশোর এবং গোপালঞ্জে পৃথকভাবে অভিযান চালিয়ে চোরসহ চোরাই মোটরসাইকেল উদ্ধার করা হয়।

রোববার (১২ জুলাই) বেলা ১২টার দিকে নগরীর নথুল্লাবাদ কেন্দ্রীয় বাস টার্মিনাল এলাকাধীন লুৎফর রহমান সড়কে মেট্রোপলিটন পুলিশের উত্তর জোন কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে উপ-পুলিশ কমিশনার খাইরুল আলম এই তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

সংবাদ সম্মেলনে তিনি জানান, সম্প্রতি বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উত্তর বিভাগের আওতাধীন এলাকায় কয়েকটি মোটরসাইকেল চুরির ঘটনা ঘটে। এসব ঘটনায় কাউনিয়া থানায় অভিযোগ দায়ের করা হয়। যার সূত্র ধরে পুলিশ সদস্যরা মোটরসাইকেল উদ্ধার এবং চোর চক্রকে গ্রেপ্তারে তৎপরতা শুরু করেন।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ১০ জুলাই গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে নগরীর পলাশপুর ইসলাম নগরের বাসিন্দা মো. জসিম উদ্দিন (২৭) কে গ্রেফতার করেন তারা। জিজ্ঞাসাবাদে চুরির ঘটনার সাথে জড়িত থাকার কথা স্বীকার করেন জসিম। জসিম পুলিশকে জানান, গত ২১ জুন কাউনিয়া থানাধীন পেছনের স্কুল সংলগ্ন বাসা থেকে সুজুকি কোম্পানির একটি মোটরসাইকেল চুরি হয়। খুলনা থেকে আসা আন্তঃজেলা চোর চক্রের সদস্য অহিদ মোল্লা ও রাজু ওরফে কালা রাজু ওই মোটরসাইকেলটি চুরি করেছেন এবং সেটি বর্তমানে খুলনার তেরখাদা এলাকার একটি গ্যারেজে আছে।

এমন তথ্যের ভিত্তিতে গত ১১ জুলাই দুপুর ১টার দিকে খুলনা জেলার তেরখাদা থানা এলাকায় অভিযান পরিচালনা করে কাউনিয়া থানা পুলিশ। এসময় সেখান থেকে সুজন বৈদ্য (২৭) নামে চক্রের অপর এক সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়। এসময় তার মালিকানাধীন গ্যারেজ থেকে চুরি হওয়া সুজুকি কোম্পানির মোটরসাইকেলটি উদ্ধার করেন তাঁরা।

উপ-পুলিশ কমিশনার জানান, আটককৃত দু’জনের কাছ থেকে কাউনিয়া থানায় গত জানুয়ারি মাসে দায়ের হওয়া অপর একটি চুরি মামলার গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পায় পুলিশ। ওই তথ্যের উপর ভিত্তি করে গোপালগঞ্জ জেলার হরিদাসপুর এলাকা থেকে মাসুদ রানা এবং শ্রাবণ সরদার ওরফে সুমন নামে আরও দু’জনকে গ্রেপ্তার করা হয়। পরে তাদের দেওয়া তথ্য অনুযায়ী যশোরের অভয়নগর থানার আকুঞ্জিপাড়া এলাকায় অভিযান চালিয়ে জানুয়ারি মাসে চুরি হওয়া বাজাজ কোম্পানির পালসার-১৫০ সিসি মোটরসাইকেল উদ্ধার করে কাউনিয়া থানা পুলিশ।

এর বাইরেও অভিযানকালে আরও দুটি মোটরসাইকেল জব্দ করা হয়েছে জানিয়ে উপ-পুলিশ কমিশনার মো. খাইরুল আলম জানান, এ দুটি মোটরসাইকেলের মালিক কারা সেটা এখনো নিশ্চিত হওয়া যায়নি। মালিকানা নিশ্চিত হতে তদন্ত চলমান রয়েছে। তাছাড়া গ্রেপ্তারকৃতদের দুটি মোটরসাইকেল চুরির ঘটনায় দায়ের হওয়া মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে।

সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যদের মধ্যে বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশের উত্তর জোনের অতিরিক্ত উপ-পুলিশ কমিশনার মো. জাকারিয়া রহমান, সহকারী পুলিশ কমিশনার মো. আব্দুল হালিম, কাউনিয়া থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) আজিমুল করিম, পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মো. ছগির হোসেন, পরিদর্শক (অপারেশন) হিরন্ময় সরকার প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।