চরফ্যাসনে নকলের দায়ে ১৩৪ শিক্ষার্থীকে বহিস্কার

প্রকাশিত: ৩:৩১ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০২০

ভোলার চরফ্যাসন উপজেলায় এসএসসি ও দাখিল পরিক্ষায় নকলের দায়ে ১৩৪ শিক্ষার্থীকে বহিস্কার করা হয়েছে। চরফ্যাসন উপজেলায় মোট ১২টি কেন্দ্রে এসএসসি ও দাখিল পরিক্ষা অনুষ্ঠিত হচ্ছে। উপজেলার দক্ষিণ আইচা রাব্বানিয়া আলিম মাদ্রাসা, শশীভূষন মাধ্যমিক বিদ্যালয় নুরাবাদ হোসাইনিয়া ফাজিল মাদ্রাসাসহ চরফ্যাশন টি.বি মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রে চলছে নকল। আর এ নকলের দায়ে আজ বৃহস্পতিবার উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা রুহুল আমীন ও কেন্দ্রের দায়িত্ব প্রাপ্ত নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট মো. রেদওয়ান ইসলাম এসএসসি ও দাখিল পরিক্ষায় ১৩৪ পরিক্ষার্থীকে এ বহিস্কার করেন। দক্ষিণ আইচা রাব্বানিয়া আলিম মাদ্রাসায় ৫জন, শশীভূষন এ মালেক দাখিল ৫জন ও নুরাবাদ হোসাইনিয়া ফাজিল মাদ্রাসায় ১২৪জন শিক্ষার্থী পরিক্ষায় নকলের দায়ে বহিস্কার হন।

এদিকে টিবি স্কুল কেন্দ্রের বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ে টিবি স্কুলের এসএসসি শিক্ষার্থীরা নকল করে পরিক্ষা দিচ্ছে এবং অভিভাবক ও শিক্ষকরা ভালো ফলাফলের আশায় পরিক্ষা কেন্দ্রে নিজেরাই নকল সরবরাহ করছেন বলে দাবি করেন সচেতন মহল। এ সূত্রে তথ্য সংগ্রহে জাতীয় ও আঞ্চলিক পত্রিকার সাংবাদিকরা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে গেলে টি.বি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের কেন্দ্রের সচিব ও টি.বি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক তানবির আহমেদসহ চরফ্যাসন থানার এএসআই মোঃ হাসান বাঁধা প্রদান করেন।

এসময় কেন্দ্র সচিব তানভির আহমেদ এসে সাংবাদিকদের এসে কি হয়েছে এখানে জিজ্ঞেস করে। পরে সাংবাদিক পরিক্ষার বিষয়ে শিক্ষকদের সাথে অফিসে কথা বলে চলে যাবেন বললেও তিনি বাঁধা দেন। এছাড়াও চরফ্যাসন থানার এএসআই হাসান সাংবাদিকের পরিচয় জানার পরেও তাদের সাথে বাকবিতন্ডায় জড়িয়ে পড়ে।

এদিকে শশীভূষন মাধ্যমিক বিদ্যালয়, দুলারহাট মাধ্যমিক বিদ্যালয় চরফ্যাসন কারামাতিয়া কামিল মাদ্রাসা কেন্দ্র ঘুরে দেখা যায় কেন্দ্রগুলোতে বিভিন্ন সাধারণ ব্যাক্তি ও অভিভাবকদের পদচারনা।

এ বিষয়ে বালিকা মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক শিক্ষিকা বলেন, চরফ্যাসন টিবি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের অভিভাবকরা পরিক্ষা চলাকালীন সময়ে পরিক্ষার হলে আসেন কিন্তু ইংরেজী ও গণিত পরিক্ষায় অভিভাবকরা বেশি এসেছেন আজকে তারা আসেননি।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক অন্য এক শিক্ষক বলেন, টিবি স্কুলের শিক্ষার্থীদের সহযোগীতা করতে পরিক্ষার হলে বিভিন্ন ব্যাক্তিরা ক্ষমতার দাপটে আসেন।

সাংবাদিকদের প্রবেশে বাঁধা ও টিবি স্কুলের শিক্ষার্থীদের নকলে সহযোগিতা প্রসঙ্গে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা মো. রুহুল আমিন বলেন, জনসাধারণ এসএসসি পরিক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ সম্পূর্ণ অবৈধ তবে সাংবাদিকরা পরিক্ষা কেন্দ্রে প্রবেশ করতে পারবে সেটা সমন্বয়ের মধ্যমে। আজ নকলের দায়ে তিন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে ১৩৪ জনকে বস্কিার করা হয়েছে।

আমরা নকল ও নকলে সহযোগীতা করার তথ্য পেলেই ব্যবস্থা নিবো। এদিকে চরফ্যাশনের ১২টি কেন্দ্রে চলমান এসএসসি ও দাখিল পরিক্ষায় মোট ৫হাজার ২শ ৭২জন শিক্ষার্থী অংশগ্রহন করেছেন। এরমধ্যে প্রায় ১শ শিক্ষার্থী অনুপস্থিত বলে জানা যায়।

Sharing is caring!