চরফ্যাশন হাসপাতালে শিশু ধর্ষণের চেষ্টা, আটক-২

প্রকাশিত: ৭:০৬ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৩, ২০২০

চরফ্যাশন প্রতিনিধি ॥

চরফ্যাশন উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের নিয়মিত বিভাগে রোগীর স্বজনের ৯ বছরের শিশুকে ধর্ষণের চেষ্টায় চরফ্যাশন সদর থানা পুলিশ দুইজনকে আটক করেছে।

পুলিশ ও হাসপাতাল সূত্রে জানা গেছে, শনিবার বিকাল সাড়ে ৫টায় হাসপাতাল সংলগ্ন মেডিনোভা ফার্মেসির কর্মচারী ও রোগী ধরার দালাল আসলামপুর ইউনিয়ন ১নং ওয়ার্ডের জামালের ছেলে রিপন (২৮) ও আল-মদিনা ফার্মেসির কর্মচারী ও রোগী ধরার দালাল চর-আফজাল ১নং ওয়াডেৃর আব্দুল করিমের ছেলে তামিম হাসপাতালের ৪র্থ তলা থেকে ওই শিশুটিকে জোর পূর্বক মুখ চেপে ৫ম তলার নির্জন স্থানে নিয়ে ধর্ষণের চেষ্টা চালান।
এসময় শিশুটির ডাক চিৎকারে স্থানীয়রা এসে শিশুটিকে উদ্ধার এবং লম্পট দুইজনকে আটক করে। পরে স্থানীয় দুই ফার্মেসির মালিক মঞ্জু ও আব্দুর রবের নেতৃত্বে ৪০ হাজার টাকায় রফাদফা করে ২০ হাজার টাকা নিয়ে তামিমকে ছেড়ে দেয়া হয়।

আর একজনকে আটক রাখে। স্থানীয় সংবাদকর্মীরা সংবাদ পেয়ে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সের টিএসও ডাক্তার শোভন কুমার বসাককে অবগত করেন।
এসময় তিনি থানা পুলিশকে বিষয়টি জানালে পুলিশ লম্পট রিপনকে রাত সাড়ে ৮টায় আটক করে থানায় নিয়ে আসে। এবং ২০ হাজার টাকায় রফাদফায় ছেড়ে দেওয়া তামিম (২১) কে ধরার জন্য অভিযান চালিয়ে রাত ১১টায় এসআই নাজমুলের নেতৃত্বে ফোর্স নিয়ে তাকে আটক করা হয়।
এছাড়াও অর্থ লেনদেনের সঙ্গে সম্পৃক্ত থাকার সন্দেহে রাব্বী (২২) ও তামিমের বড় ভাই নেওয়াজ (২৫)কে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য থানায় আনা হয়েছে।
এ ঘটনায় ওই শিশুটির খালু ফজলুর রহমান বলেন, ওই শিশুটি বাসা থেকে খাবার নিয়ে চিকিৎসাধীন খালাত বোন শারমিন (২২) কে দেখতে আসেন।
শনিবার বিকাল সাড়ে ৫টায় এঘটনা ঘটে। আমরা বিষয়টির সঠিক বিচার দাবী করছি।

চরফ্যাশন সদর থানার অফিসার ইনচার্জ মনির হোসেন মিয়া জানান, টিএসও এর অভিযোগের ভিত্তিতে রিপনকে রাত সাড়ে ৮টায় ও তামিমকে ১১টায় আটক করা হয়। রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার সময় শিশুটি বাদী হয়ে ধর্ষণের চেষ্টার অভিযোগে মামলা দায়ের করেন (মামলা নং ১৬)।

Sharing is caring!