চরফ্যাশনে পিতা ও সৎ ভাইয়ের হাতে নাজেহাল ফেরদৌসী

প্রকাশিত: ৭:৪৩ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৮, ২০২০

এম নোমান চৌধুরী, চরফ্যাশন প্রতিনিধি ::

চরফ্যাশন পৌরসভার ৫নং ওয়ার্ডের শরীফ পাড়ায় কন্যার সম্পত্তি লালসায় পিতা কামাল হোসেন। সৎভাইয়ের হুমকীর মুখে নিরাত্তায় হীনতায় ফেরদাউসী বেগম।
এই বিষয়ে মঙ্গলবার (২৭ অক্টোবর) ফেরদাউসী চরফ্যাশন সংবাদকর্মীদের কাছে অভিযোগ করেছেন।

অভিযোগ সূত্রে জানা যায়, বিএনপির নেতা কামাল হোসেনের বড় কন্যা ফেরদাউসী বেগম। ফেরদাউসীর বয়স যখন ২বছর তার মা পিতা কামালের অত্যাচারে আত্মহত্যা করেন। মায়ের ওয়ারিশ হিসেবে ৮০শতক জমির মালিক হন ফেরদাউসী। জিন্নাগড় মৌজার ৭৬৫খতিয়ানে ১৯৮দাগের জমির মধ্যে মাত্র ৫২শতক জমি দেয়া হয় মেয়ে ফেরদাউসীকে। সেটেলমেন্ট অফিসের ৩০ ধারায় ফেরদৌসীর নামে রেকর্ড হলেও ৩১ ধারায় পিতা কামাল হোসেনের নামে বাকী জমি রেকর্ড করা হয় । ওই জমি নিয়ে কন্যা-পিতার মধ্যে রয়েছে দ্বন্দ্ব। এই বিষয়ে স্থানীয়রা একাধিকবার সালিস বৈঠক করেছেন।

২০১৯ সালে ফেরদাউসী তার ওয়ারিশে পাওয়া জমির উপর ছাদ দিয় ঘর করার পরই ক্ষিপ্ত হন পিতা ও সৎভাই হাছান। ২০১৪ সালেও কামাল হোসেনের বড় ছেলে রাশেদুল হাছান পিতার-মাতার অত্যাচারে আত্মহত্যা করেন। একই সংসারের দুটি আত্মহত্যার ঘটনা ঘটেছে। বিগত ১৫ অক্টোবর (২০২০) মায়ের জমি থেকে সুপারি পাড়েন ফেরদাউসী। সুপারি পাড়ায় পিতা কামাল হোসেন, সৎ মা আমেনা বেগম শেফু সৎ ভাই এনামুল হাসান তাকে পিটিয়ে বসত ঘরে থাকা ৮০ হাজার টাকা, ১ জোড়া স্বর্ণের রুলি, ১টি চেইনসহ ঘরে লুটপাট করেন।

বিষয়টি তিনি ভোলা জেলা প্রশাসক ও পুলিশ সুপার বরাবর বিচার চেয়ে আবেদন করেন। সর্বশেষ চরফ্যাশন জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে ২২১৪/২০ (চরঃ) মামলা দায়ের করেন। মামলায় আদালত ২ ডিসেম্বর স্ব-শরীরে হাজির হওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন। বর্তমান ফেরদৗসি মামলা করে নিরাপত্তাহীনতায় ভুগছেন। দেয়া হচ্ছে প্রাণনাশের হুমকি।

ফেরদাউস বলেন, আমি প্রশাসনের কাছে সঠিক বিচার দাবী করছি। এই ব্যাপারে কামাল হোসেনের মোবাইল নাম্বারে যোগাযোগের চেষ্টা করা হলেও কল রিসিভ না করায় তার বক্তব্য জানা যায়নি।

Sharing is caring!