গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষার বিরুদ্ধে ববি শিক্ষার্থীরা

প্রকাশিত: ৮:৫৪ অপরাহ্ণ, নভেম্বর ২১, ২০২০

শফিক মুন্সি ::

করোনা পরিস্থিতি বিবেচনায় এবং এইচএসসি পরীক্ষার ফলাফল প্রকাশে বিলম্ব হবার কারণে চলতি বছরে (২০২০) ভর্তি পরীক্ষা হচ্ছে না বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ে (ববি)। তবে আগামী বছর মার্চে সম্ভাব্য এ ভর্তি পরীক্ষা গুচ্ছ পদ্ধতিতে নেয়া হতে পারে বলে ধারণা করা হচ্ছে। কদিন আগে গণমাধ্যমে প্রতিষ্ঠানটির উপাচার্য ড. মোঃ ছাদেকুল আরেফিন এই সম্ভাবনার কথা জানান। তবে বিশ্ববিদ্যালয়ে অধ্যয়নরত শিক্ষার্থীদের মধ্যে এমন সিদ্ধান্তের ব্যাপারে ভিন্নমত দেখা গেছে। প্রশ্নফাঁস, পরীক্ষা কার্যক্রমে দুর্নীতি, ভর্তিচ্ছুদের পছন্দ গুরুত্ব না পাওয়া ইত্যাদি বিষয় সামনে এনে গুচ্ছ পদ্ধতির ভর্তি পরীক্ষার বিরোধিতা করেছেন তারা।

 

প্রশ্নফাঁস এবং পরীক্ষা কার্যক্রমে দুর্নীতির আশংকা করে মার্কেটিং বিভাগের শিক্ষার্থী রাকিবুল ইসলাম বলেন,‘ মেডিকেল কলেজ গুলোর ভর্তি পরীক্ষা একসঙ্গে গুচ্ছ আকারে হয়। কিন্তু তাদের পরীক্ষায় প্রশ্নফাঁস এবং দুর্নীতির বিষয়গুলো বারবার গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয়েছে। সেক্ষেত্রে বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর ভর্তি কার্যক্রম একীভূত করা হলে একই সমস্যা সৃষ্টি হতে পারে’।

 

অন্যদিকে গুচ্ছ পদ্ধতিতে পরীক্ষা নিলে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রশ্ন প্রণয়নে যে স্বকীয়তা আছে তা নষ্ট হবে বলে ধারণা বাংলা বিভাগের আব্দুল্লাহ আল মাহমুদের। একই সঙ্গে ভর্তিচ্ছুদের পছন্দের বিশ্ববিদ্যালয়ে কিংবা বিষয়ে পড়ার ক্ষেত্রে এই পদ্ধতি বাধা হয়ে দাঁড়াতে পারেও বলে মনে করেন লোকপ্রশাসন বিভাগের শিক্ষার্থী ওসমান গণি রেসানী।

 

এদিকে বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রচলিত ভর্তি পরীক্ষার নিয়ম অনুযায়ী একজন ভর্তিচ্ছু কোন কারণে একটি বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দিতে না পারলেও তাঁর জন্য আরো অনেক বিশ্ববিদ্যালয়ে পরীক্ষা দেবার সুযোগ থাকে। কিন্তু গুচ্ছ পদ্ধতিতে যেহেতু একদিনে অনেকগুলো বিশ্ববিদ্যালয়ের ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে সেহেতু কোন কারণে একটি পরীক্ষা দিতে না পারলে অনেকগুলো সুযোগ হারাবে শিক্ষার্থীরা, এমনটাই দাবি হিসাববিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী রাকিব হাওলাদারের।

 

অন্যদিকে মৃত্তিকা ও পরিবেশ বিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী ইমতিয়াজ নূর জানান, গুচ্ছ পদ্ধতিতে ভর্তি পরীক্ষা নিতে হলে অবশ্যই বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর ক্রম (র‌্যাংকিং) থাকতে হবে। কিন্তু বিশ্ববিদ্যালয় গুলো কিসের ভিত্তিতে র‌্যাংকিং করবে তা নিয়ে একটা ধোঁয়াশা রয়েছে। কারণ বিশ্ববিদ্যালয় গুলোর বিভাগ কিংবা অনুষদের বৈশিষ্ট্যের দিক থেকে বিভিন্নতা রয়েছে।

তবে বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. মোঃ ছাদেকুল আরেফিন কদিন আগে গণমাধ্যমে জানান, এতদিন দেখা গেছে প্রতিটি বিশ্ববিদ্যালয়ে আলাদা আলাদা ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। কিন্তু সামনে গুচ্ছ পদ্ধতিতে (সমন্বিত ভাবে) ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে। বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি, কৃষি এবং অন্যান্য সাধারণ বিশ্ববিদ্যালয়গুলোকে আলাদা করে তিনটি গুচ্ছ করা হবে। প্রতিটি গুচ্ছের জন্য আলাদাভাবে একই প্রশ্নপত্রে, একই সময়ে, বিভিন্ন জায়গায় পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হবে।

 

এখন পর্যন্ত বিশ্ববিদ্যালয় গুলো নিয়ে ইউজিসি গুচ্ছ প্রক্রিয়াতে ভর্তি পরীক্ষার কথাই ভাবছে। ইউজিসির ভাবনাকে সমর্থন জানিয়েছে বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়। তবে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত আসতে আরো কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে।

Sharing is caring!