কিমের অসুস্থতার খবর অসত্য: ট্রাম্প

প্রকাশিত: 6:14 AM, April 24, 2020

উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উনের গুরুতর অসুস্থতা নিয়ে বিভিন্ন গণমাধ্যম যে খবর দিয়েছে, তা সঠিক নয় বলে মনে করেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্প। তবে দেশটির কর্মকর্তাদের সঙ্গে কোনো যোগাযোগ হয়েছে কিনা; তা নিয়ে কথা বলতে অস্বীকার করেছেন তিনি।

বার্তা সংস্থা রয়টার্সের খবরে এমন তথ্য মিলেছে। হোয়াইট হাউসের নিয়মিত ব্রিফিংয়ে ট্রাম্প বলেন, আমি মনে করি, ওই খবর অসত্য। পুরনো নথির ওপর ভিত্তি করে ওই প্রতিবেদন প্রকাশিত হয়েছে।

এর আগে উত্তর কোরিয়ার নেতা কিম জং-উনের সুস্বাস্থ্য কামনা করেছেন ডোনাল্ড ট্রাম্প। আন্তর্জাতিক বিভিন্ন গণমাধ্যমের খবরে বলা হয়েছে, চলতি মাসের শুরুতে উত্তর কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট কিম জং-উনের হার্টে অস্ত্রোপচার হয়েছে। এরপর নিজ বাড়িতেই তিনি চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

এ প্রসঙ্গে হোয়াইট হাউসে সাংবাদিকদের ট্রাম্প বলেন, এ ক্ষেত্রে আমি কেবল তার সুস্বাস্থ্য কামনা করতে পারি।

কিমের সঙ্গে ‘ভালো সম্পর্কের’ কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, তিনি সুস্থ হয়ে উঠবেন বলে আমি প্রত্যাশা করছি।

এসময় কিমের স্বাস্থ্যের খোঁজখবর নিতে তার সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টার কথাও বলেন তিনি। ট্রাম্প বলেন, খবরে যা বলা হয়েছে, তা যদি সত্যি হয়, তবে এটা খুবই গুরুতর অবস্থা।

কিন্তু কিমের স্বাস্থ্য নিয়ে তার কাছে সরাসরি কোনো তথ্য আছে কিনা; তা নিয়ে মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছেন মার্কিন প্রেসিডেন্ট। বললেন, ওই প্রতিবেদন সত্যি কিনা; তা আমি জানি না।

এদিকে কিমের অস্ত্রোপচারের ঘটনা সত্যি হলে, ডেইলি এনকে ওয়েবসাইটের দাবি অনুসারে, তার দাদা ও দেশটির প্রতিষ্ঠাতা কিম ইল-সুংয়ের জন্মবার্ষিকের অনুষ্ঠানে তার অনুপস্থিত থাকার একটি ব্যাখ্যাও সামনে চলে আসবে।

গত ১২ এপ্রিল দেশটির পূর্ব উপকূলীয় হায়াংসান কাউন্টিতে একটি হাসপাতালে কিমের অস্ত্রোপচার হয়েছে। সিউলভিত্তিক ডেইলি এনকে নামের যে ওয়েবসাইট এমন খবর দিয়েছে, সেটি উত্তর কোরিয়ার পক্ষত্যাগীরা চালাচ্ছে।

খবরে বলা হয়, বর্তমানে মাউন্ট কুমগ্যাং রিসোর্টের একটি বাড়িতে ৩৬ বছর বয়সী এই রাষ্ট্রপ্রধান চিকিৎসা নিচ্ছেন। প্রতিবেদনে অজ্ঞাতনামা সূত্রের বরাত দেয়া হয়েছে।

এছাড়া এতে উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় গণমাধ্যমের কোনো আনুষ্ঠানিক মন্তব্য নেই এতে।

আন্তঃসীমান্ত বিষয়াদি নিয়ে কাজ করা দক্ষিণ কোরিয়ার একত্রীকরণ বিষয়ক মন্ত্রণালয়ও এ নিয়ে কোনো মন্তব্য করতে অস্বীকার করেছে।

আর মার্কিন গণমাধ্যম সিএনএনের খবরে এ বিষয়ে সরাসরি অবগত মার্কিন কর্মকর্তাদের বরাতের উল্লেখ করা হয়েছে। বলা হয়েছে, ওয়াশিংটনও বিষয়টি নজরদারিতে রেখেছে। অস্ত্রোপচারের পর মারাত্মক স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে কিম জং-উন।

কিন্তু সিএনএনের প্রতিবেদনকে উড়িয়ে দিয়েছেন উত্তর কোরিয়ার খবরাখবর রাখা দক্ষিণ কোরিয়ার এক কর্মকর্তা।

ইয়োনহাপ সংবাদ সংস্থার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, সম্প্রতি বেশ কয়েকটি অনুষ্ঠানে কিমকে উপস্থিত হতে দেখা গেছে। এতে তার স্বাস্থ্যহানির বিষয়ে কোনো আভাস পাওয়া যায়নি।

দক্ষিণ কোরিয়ার প্রেসিডেন্ট ভবন ব্লু হাউস জানায়, উত্তর কোরিয়ায় কোনো অস্বাভাবিক ঘটনা তাদের নজরে আসেনি।

ডেইলি এনকের খবর বলছে, ব্যাপক ধূমপান, স্থূলতা ও অতিরিক্ত কাজের দরুন সাম্প্রতিক মাসগুলোতে কিমের স্বাস্থ্যের মারাত্মক অবনতি ঘটেছে।

সেখানকার এক সূত্র জানায়, আমার মনে হচ্ছে, গত আগস্ট থেকে তিনি কার্ডিওভাসকুলার সমস্যায় ভুগছেন। কিন্তু পেকটু পাহাড়ে কয়েকবার ভ্রমণের পর তা আরও গুরুতর হয়েছে।

গত বছরের অক্টোবরে পেকটু পাহাড়ের বন ও তুষারে ঢাকা মাঠে কিমের সাদা ঘোড়ায় চড়া অবস্থায় একটি ছবি প্রকাশ করেছিল উত্তর কোরিয়ার রাষ্ট্রীয় বার্তা সংস্থা কেসিএনএ।

খবর অনুসারে, গত ১১ এপ্রিল ক্ষমতাসীন ওয়ার্কার্স পার্টির পলিটব্যুরোর একটি বৈঠকে সভাপতিত্ব করার পর হাসপাতালে ভর্তি হন কিম।

এরপর গত সপ্তাহের পিয়ংইয়ংয়ের স্বল্প-পাল্লার ক্ষেপণাস্ত্র পরীক্ষার সময়ও তাকে দেখা যায়নি। এমনকি কিম ইল-সুংয়ের আড়ম্বরহীন জন্মবার্ষিকী উদযাপনেও তাকে দেখা যায়নি।

Share Button