কলাপাড়ায় নিষেধাজ্ঞা সত্ত্বেও থামছেনা সাগরে ট্রলারে মাছ শিকার

প্রকাশিত: ৩:৪৭ অপরাহ্ণ, জুন ১৮, ২০২০

কলাপাড়া প্রতিনিধি ॥  যেন দেখার কেউ নেই। মৎস্য বিভাগ, উপজেলা প্রশাসন, নৌ-পুলিশ, মহিপুর থানা পুলিশ কিংবা কোস্টগার্ড, সবাই রয়েছে। কিন্তু কে শোনে কার কথা। কে দেখে কার দেখা। ৬৫ দিনের নিষেধাজ্ঞা উপেক্ষা করে গভীর সমুদ্রে মাছ শিকার চলছেই। কোন কিছুতেই থামছেনা।

মহিপুরে বরফকল চালু রয়েছে। বাজার সওদা করে জেলেরা যাচ্ছেন সাগরে ট্রলার নিয়ে। ফিরছেন ইলিশসহ বিভিন্ন ধরনের মাছ শিকার করে। এমনকি বুধবার সাগরে নৌকা ডুবে ভাসতে ভাসতে অচেতন অবস্থায় উদ্ধার হয়েছেন আমির মাঝিসহ তিনজন। কুয়াকাটা সংলগ্ন বঙ্গোপসাগরের এসব দৃশ্য। ২০ মে থেকে শুরু হওয়া ৬৫ দিনের এই নিষেধাজ্ঞাকালীন সরকার কর্তৃক জেলেদের জন্য বিশেষ খাদ্য সহায়তা দেয়ার প্রক্রিয়াও চলছে।

কিন্তু এক শ্রেণির অতি মুনাফালোভী ট্রলার মালিকসহ জেলেদের সাগরে যাওয়া থামছে না। এরা সুযোগ পেলেই সাগরে ছুটছেন। কখনও পালিয়ে। আবার কখনও সকল প্রশাসনের যোগসাজশে। গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেলে দেখা গেছে সাগর থেকে মাছ শিকার শেষে ফিরছেন কেউ। আবার কেউ যাচ্ছেন মাছের শিকারে। তবে এরা সংখ্যায় খুবই কম বলে দাবি নাম প্রকাশ না করা আড়তমালিকদের। যেখানে খাপাড়াভাঙ্গা (শিববাড়িয়া) নদীর শেষাংশ আন্ধারমানিক মোহনায় একটি টহল থাকলে কারও সাগরে যাওয়া আসার সুযোগ নেই। সেখানে কিভাবে দিনের বেলা সাগরে যাওয়া-আসা চলছে এটি বোঝা বড়ই মুশকিলের।

গতকাল বৃহস্পতিবার বিকাল তিনটা ৩৯ মিনিটে এবং তিনটা ৫২ মিনিটে তোলা দুইটি ছবিতে দেখা গেছে সোৎসাহে সাগরপানে ছুটছে দু’টি ট্রলার। কেউবা আবার ফিরছে। ফলে নিষেধাজ্ঞা কার্যকর হচ্ছে না। উপজেলা মৎস্য কর্মকর্তা মনোজ কুমার সাহা জানান, তারা সচেষ্ট রয়েছেন। পুলিশ, কোস্টগার্ড, নৌ-পুলিশ তারা আগেই বলেছে কারও সাগরে যাওয়া চলবেনা। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না।