করোনা সুরক্ষায় কাজে আসছে না শেবাচিমের ডিজইনফেকটেট চেম্বার

প্রকাশিত: ৩:৪০ পূর্বাহ্ণ, জুলাই ২৩, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ॥ করোনা ভাইরাস থেকে রোগী, স্বজন, চিকিৎসকসহ সংশ্লিষ্টদের সুরক্ষায় শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ (শেবাচিম) হাসপাতালের প্রবেশ গেটে বসানো হয়েছে ডিজইনফেকটেট চেম্বার বা টানেল। হাসপাতালের জরুরী বিভাগের গেটে স্থাপন করা এই টানেল এখন আর কাজে আসছে না। রোগী এবং তাদের স্বজনরা এটির ব্যবহার ছাড়াই প্রবেশ করছেন হাসপাতালের অভ্যন্তরে। ফলে বরিশাল সিটি মেয়র যে লক্ষ্য নিয়ে হাসপাতালে ডিজইনফেকটেট চেম্বারের ব্যবস্থা করে দিয়েছেন তা কার্যত বিফলে গেছে।

খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, বরিশাল মহানগরীতে করোনা ভাইরাসের প্রদুর্ভাব ভয়াবহ রূপ নিলে শেবাচিম হাসপাতালের চিকিৎসক, নার্স, কর্মকর্তা-কর্মচারী এবং রোগী ও তাদের স্বজনদের সুরক্ষায় হাসপাতালের প্রবেশ গেটে স্থাপন করা হয় ডিজইনফেকটেট চেম্বার। সিটি কর্পোরেশনের পক্ষ থেকে দেওয়া ডিজইনফেকটেট চেম্বারের উদ্বোধন করেন সিটি মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ। রোগী এবং স্বজনদের ওই চেম্বার বা টানেলের মধ্যে দিয়ে জীবাণুমুক্ত হয়ে প্রবেশ করতে হয়েছে হাসপাতালের অভ্যন্তরে। উদ্বোধনের পরে কয়েক দিন এর কার্যক্রম বেশ ভালোভাবেই চলছিল। তবে বর্তমানে এ ডিজইনফেকটেট চেম্বার অকার্যকর অবস্থায় পড়ে আছে।

বুধবার সরেজমিনে হাসপাতালের জরুরী বিভাগের গেটে দেখাগেছে, ‘চিকিৎসা নিতে আসা রোগী এবং তাদের স্বজনরা ডিজইনফেকটেট চেম্বার ব্যবহার করছেন না। তারা সরাসরিই প্রবেশ করছেন হাসপাতালের অভ্যন্তরে। এমনকি চিকিৎসক-নার্স এবং কর্মকর্তা-কর্মচারীদের কাছেও নেই এর গুরুত্ব। এর ফলে করোনা ভাইরাসের প্রাদুর্ভাব ছড়িয়ে পড়ার আশঙ্কা করছেন সংশ্লিষ্টরা।

এদিকে রোগীদের ডিজইনফেকটেট চেম্বার ব্যবহার না করার কারণ খতিয়ে দেখা গেছে, ডিজইনফেকটেট চেম্বার এর ব্যবহার সম্পর্কে জানা নেই অধিকাংশ রোগী ও তাদের স্বজনদের। এটি তদারকির জন্য হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ করেননি কোন ব্যবস্থাও। তাই না বুঝেই তারা ঢুকে পড়ছেন হাসপাতালের অভ্যন্তরে।

বুধবার বেলা ১২টা থেকে ১টা পর্যন্ত হাসপাতালে অবস্থানকালে কথা হয় চিকিৎসা নিতে আসা আব্দুস সালাম নামের রোগী ও তার স্বজনদের সাথে। তারা জানান, ডিজইনফেকটেট চেম্বার কি সেটা সম্পর্কে তারা অবগত নন। তাছাড়া এটা কিভাবে ব্যবহার করে সেটাও জানেন না তারা। এ কারণেই ডিজইনফেকটেট চেম্বারের মধ্যে থেকে না গিয়ে তার বাহির দিক থেকেই হাসপাতালে প্রবেশ করেছেন তাঁরা।

অপরদিকে বেশ কয়েকজন রোগীর সচেতন স্বজন জানান, ‘এখানে ডিজইনফেকটেট চেম্বার বসানো হয়েছে সত্যিই। কিন্তু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ এটি পরিচালনার জন্য কোন অপারেটরের ব্যবস্থা করেনি। আর তাই এটি ব্যবহারের যে সুইচটি রয়েছে তা সবাই ব্যবহার করছে না। কেননা একই সুইচ সবাই ব্যবহার করলে তা থেকেও করোনা ভাইরাস ছড়ানোর সম্ভাবনা রয়েছে। হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের উচিৎ ছিল অন্তত নিজেদের সুরক্ষার জন্য হলেও ডিজইনফেকটেট চেম্বার পরিচালনায় অপারেটরের ব্যবস্থা করার।

সরেজমিনে দেখা গেছে, বর্তমানে হাসপাতালে প্রবেশ এবং বাহিরের জন্য একাধিক গেটের ব্যবস্থা রয়েছে। কিন্তু এর মধ্যে শুধুমাত্র জরুরী বিভাগের গেটেই রয়েছে ডিজইনফেকটেট চেম্বার। যে কারণে হাসপাতালকে করোনা থেকে নিরাপদ রাখা কার্যক্রম প্রশ্নবিদ্ধ থেকে যায়।

এ ব্যাপারে হাসপাতাল পরিচালক ডা. মো. বাকির হোসেন এর বক্তব্য জানতে তার কার্যালয়ে গেলেও স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট প্রতিবেদকের সাক্ষাতে আসেননি। এমনকি পরবর্তীতে তার ব্যবহৃত মুঠোফোন নম্বরে একাধিকবার ফোন করা হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

তবে ডিজইনফেকটেট চেম্বারের তত্ত্বাবধায়নে থাকা আউটডোর ডক্টর অ্যাসোসিয়েশনের সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. মোস্তফা কামাল এর সাথে মুঠোফোনে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, ‘এ ব্যাপারে আমি কিছুই বলতে পারব না। জরুরী বিভাগে যারা কর্মরত তারা বলতে পারবেন।

Sharing is caring!