এবার মিয়ানমার থেকে সিম-মোবাইল আনছে রোহিঙ্গারা

প্রকাশিত: ৫:০৭ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯

অবৈধভাবে বাংলাদেশের সিম ও মোবাইল ব্যবহার করে অবৈধ কর্মকাণ্ডের জেরে কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে নেটওয়ার্ক নিয়ন্ত্রণ করছে বিটিআরসি। এসব নিষেধাজ্ঞা অমান্য করে মিয়ানমার থেকে সিম ও মোবাইল এনে ব্যবহার করার অভিযোগ উঠেছে রোহিঙ্গাদের বিরুদ্ধে।মঙ্গলবার এসব কর্মকাণ্ডে জড়িত থাকায় টেকনাফ স্থলবন্দর থেকে মিয়ানমারের ২১০টি সিম ও মোবাইলসহ ৩ রোহিঙ্গাকে আটক করেছে পুলিশ।টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ জানান, মঙ্গলবার সন্ধ্যা ৬টার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে স্থলবন্দরের গেট থেকে তাদেরকে আটক করা হয়। তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হচ্ছে।আটকরা হলেন- মিয়ানমার মংডুর নুর আলমের ছেলে নুর হাসান (২৪), উখিয়ার থাইংখালী জামতলী রোহিঙ্গা শিবিরের বাসিন্দা মো. শরীফের ছেলে রবি আলম (১৯) ও টেকনাফের মোচনী শিবিরের হোছনের ছেলে সলিম (২৫)।

প্রত্যক্ষদর্শী ও স্থলবন্দরের ব্যবসায়ীদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, মঙ্গলবার বিকালে স্থলবন্দরের গেট অতিক্রমের সময় দায়িত্বরত গার্ডরা মোবাইল ও সিম কার্ডসহ মিয়ানমার থেকে আসা ট্রলারের শ্রমিক সলিমকে আটক করে।তার কাছ থেকে কিউএমপিটি নামের একটি মিয়ানমার কোম্পানির মোবাইল ও সিম উদ্ধার করা হয়। এ সময় সিম গ্রহণ করতে আসা গেটের বাহিরে অপেক্ষমাণ জামতলী শিবিরের বাস্তুচ্যুত রোহিঙ্গা রবি আলমকে আটক করা হয়। পরে উক্ত ট্রলার মাঝি নুর হাসানকে আটক করা হয়।

এ সময় স্থল বন্দরে দায়িত্বরত আনসার সদস্যরা পুলিশে খবর দিলে থানা পুলিশের একটি দল তাদেরকে আটক করে থানায় নিয়ে যান।এদিকে স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, কক্সবাজারের উখিয়া ও টেকনাফে আশ্রিত রোহিঙ্গারা অবৈধভাবে দেশীয় মোবাইল ও সিম ব্যবহার করে নানা উস্কানিমূলক কর্মকাণ্ড ও মাদক পাচারের মতো কর্মকাণ্ডে জড়িয়ে পড়ায় বিটিআরসি সম্প্রতি নেটওয়ার্ক নিয়ন্ত্রণসহ নানা উদ্যোগ গ্রহণ করে।

ফলে রোহিঙ্গারা মিয়ানমার থেকে সিম এনে সেগুলো ব্যবহার করছে বলে জানা গেছে। এসব সিম উচ্চ নেটওয়ার্ক সম্পন্ন হওয়ায় সহজে উভয় দেশের সীমান্তের অনেক ভেতর থেকে ব্যবহার করা যাচ্ছে বলে জানা গেছে।

Sharing is caring!