একই ম্যাচে ‘কাকতালীয় দুই ইনিংস’ সেঞ্চুরিয়ান নাফীস-লিটনের

প্রকাশিত: ১:২৩ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ৩, ২০২০

দৈনন্দিন জীবনে কাকতালীয় ঘটনা ঘটে থাকে অহরহ। যা দেখা যায় ক্রিকেট মাঠেও। অদ্ভুত সব ঘটনায় বিস্ময়ের অন্ত থাকে না ক্রিকেট ভক্তদের। তেমনই এক কাণ্ড যেন এবার ঘটলো বাংলাদেশ ক্রিকেট লিগের অষ্টম আসরের প্রথম রাউন্ডের ম্যাচে।

যেখানে মূল চরিত্রে রয়েছেন দুই দলের দুই ওপেনার লিটন দাস ও শাহরিয়ার নাফীস। ম্যাচের চার ইনিংস মিলে কাকতালীয় দুই ইনিংস খেলেছেন লিটন ও নাফীস। তবে ম্যাচের ফলাফল আসেনি কোনো। দুই দলের ব্যাটসম্যানদের দাপটে ড্র হয়েছে উত্তরাঞ্চল ও দক্ষিণাঞ্চলের মধ্যকার ম্যাচটি।

নাফীস-লিটনের কাকতালীয় ঘটনার শুরুটা ম্যাচের প্রথম ইনিংসের প্রথম বল থেকেই। তাসকিনের আহমেদের করা ডেলিভারিতে উইকেটরক্ষক লিটন দাসের হাতে ক্যাচ দিয়ে সাজঘরে ফিরে যান দক্ষিণাঞ্চলের ওপেনার নাফিস, সঙ্গী হয় গোল্ডেন ডাক। সে ইনিংসে নাফিসের দক্ষিণাঞ্চল করে ২৬২ রান।

পরে নিজেদের প্রথম ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে গোল্ডেন ডাকে আউট হন উত্তরাঞ্চলের ওপেনার লিটন দাস। শফিউল ইসলামের করা ওভারের প্রথম বলেই লেগ বিফোরের ফাঁদে পড়েন এ ডানহাতি উইকেটরক্ষক ব্যাটসম্যান। উত্তরাঞ্চল অলআউট হয় ২০৭ রানে। শফিউল ৬ ও আব্দুর রাজ্জাক নেন ৪টি উইকেট।

তবে নাফীস-লিটনের কাকতাল এখানেই শেষ নয়। দ্বিতীয় ইনিংসে ব্যাট করতে নেমে প্রথম ইনিংসে চাপা ক্ষোভই যেন উত্তরাঞ্চলের বোলারদের ওপর মেটান নাফীস। প্রায় ছয় ঘণ্টা ব্যাট করে ২৫১ বলে খেলেন ১১১ রানের ইনিংস।

পরে শামসুর রহমান শুভ ও মাহমুদউল্লাহ রিয়াদের সেঞ্চুরিতে ৩৯৮ রানের বড় সংগ্রহ দাঁড় করায় দক্ষিণাঞ্চল। লিটনের উত্তরাঞ্চলের সামনে ম্যাচ জিততে লক্ষ্য দাঁড়ায় ৪৫৪ রান।

এ বিশাল লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে আজ (সোমবার) ম্যাচের শেষদিন উত্তরাঞ্চল ৪ উইকেট হারিয়ে ২৭৮ রান করতেই দুই দল ড্র মেনে নেয়। আর এ ইনিংসে সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন ওপেনার লিটন দাস। এ ইনিংসে চার নম্বরে নেমে তিনি অপরাজিত ছিলেন ১৬৮ বলে ১০৩ রান করে।

অর্থাৎ ম্যাচের প্রথম ইনিংসে গোল্ডেন ডাক পেয়েছিলেন নাফীস ও লিটন- দুজনই। পরে দুজনই আবার সেঞ্চুরি হাঁকিয়েছেন ম্যাচের দুই ইনিংসে। ব্যাটসম্যানদের দাপটে ড্র হওয়া ম্যাচটিতে তাই আকর্ষণ হয়ে থাকল নাফীস-লিটনের এ কাকতালীয় জোড়া ইনিংস।

Sharing is caring!