উজিরপুরে সাক্ষ্য দেওয়ায় অটো চালককে ধর্ষণ চেষ্টা মামলায় জড়ানোর অভিযোগ

প্রকাশিত: ৬:৩৫ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ২৬, ২০২০

মহসিন মিঞা লিটন, উজিরপুর প্রতিনিধি ::

বরিশালের উজিরপুরে জমি সংক্রান্ত বিরোধে হামলার ঘটনায় মামলায় সাক্ষ্য দেওয়ায় বিবাদীরা এক অটো চালককে ধর্ষণের চেষ্টায় মামলায় জড়িয়ে হয়রানী করছেন বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ভুক্তভোগী সূত্রে জানা যায়, উপজেলার বামরাইল ইউনিয়নের হস্তিশুন্ড গ্রামের মৃত কাঞ্চন ফকিরের মেয়ে নিলুফা খানম গংদের সাথে একই বাড়ীর মোশারফ হোসেন গংদের জমি-জমা নিয়ে দীর্ঘদিন যাবৎ বিরোধ চলে আসছে। এ নিয়ে উভয় পক্ষের মধ্যে মারধরের ঘটনা সংঘঠিত হয়।

সে ঘটনায় উভয় পক্ষ পাল্ট-পাল্টি মামলা দায়ের করেছে। জমি বিরোধে হামলার ঘটনায় নিলুফা খানম বাদী হয়ে উজিরপুর মডেল থানায় মোশারফ গংদের বিরুদ্ধে ৩৭/২২৪ নং একটি মামলা দায়ের করেন। মোশারফ ফকিরের স্ত্রী মাসুদা বেগম বাদী হয়ে বরিশাল আদালতে নিলুফা খানমসহ ৫ জনকে আসামী করে মামলা দায়ের করেছিলেন। উক্ত মামলায় একই বাড়ীর সাক্ষী ছিলেন মৃত ইসমাইল ফকিরের ছেলে মাসুম ফকির, স্ত্রী রেনু বেগম, পুত্রবধূ কাজল বেগম, ভাই হালিম ফকির।

ওই মামলায় সাক্ষীতে নাম থাকায় ক্ষিপ্ত হয়ে নিলুফা বেগম মাসুম ফকির গংদের বিভিন্ন ভয়ভীতি ও মামলায় জড়ানোর হুমকি দিয়ে আসছিলেন। এরই ধারাবাহিকতায় মামলাবাজ সুচতুর নারী নিলুফা খানম ১৩ সেপ্টেম্বর উজিরপুর মডেল থানায় ধর্ষণের চেষ্টার অপবাদ দিয়ে হতদরিদ্র আটো চালক মাসুম ফকির(২৯), রফিক হাওলাদার(৩০), মোশারফ ফকির(৪০) এর বিরুদ্ধে ধর্ষণের চেষ্টায় একটি মামলা দায়ের করেন।

এ ব্যাপারে মামলার আসামী মাসুমের বড় ভাই মনির হোসেন ফকির জানান, নিলুফা খানম গংদের সাথে একই বাড়ীর মোশারফ হোসেন গংদের জমি বিরোধে উভয়ের মধ্যে একাধিক মামলা চলমান রয়েছে। আমার ছোট ভাই ওই মামলায় সাক্ষী থাকায় তাকে খেসারত দিতে হচ্ছে। অন্যায় ভাবে মিথ্যা অপপ্রচার অপবাদ দিয়ে নিলুফা খানম নাটক সাজিয়ে আমার ছোট ভাই মাসুমকে ধর্ষণের চেষ্টায় মামলায় জড়িয়ে হয়রানী করছে। মাসুমকে বর্তমানে পালিয়ে থাকতে হচ্ছে। আর্থিক ভাবে আমরা বর্তমানে ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। বর্তমানে নিরুপায় হয়ে পরেছি আমরা। আরো জানা যায় ওই নারীর আতঙ্কে এলাকাবাসী প্রতিবাদ করতে সাহস পাচ্ছেনা।

সালিস বৈঠক করতেও নারাজ এলাকার মোড়লরা। সে যেন মূর্তিমান আতঙ্ক। এভাবে একের পর এক মিথ্যা মামলা করায় প্রতিনিয়ত আতঙ্কে থাকতে হচ্ছে এলাকার সকলকে। মামলাবাজ নামে সুপরিচিত হয়েছে ওই নারী। অভিযুক্ত নারী বিষয়টি এড়িয়ে যান। ওই প্রতারক নারীর খপ্পর থেকে রেহাই পেতে সুষ্ঠু তদন্ত পূর্বক আসল রহস্য উৎঘাটন করে প্রকৃত অপরাধীর দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির দাবী জানিয়ে প্রশাসনের ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের সু-দৃষ্টি কামনা করছে অসহায় পরিবার।

Sharing is caring!