উজিরপুরে করোনা আতঙ্কে সারারাত পড়ে থাকা পাগলের লাশ দাফনে এগিয়ে এলো পুলিশ

প্রকাশিত: ৬:৩২ পূর্বাহ্ণ, এপ্রিল ২৭, ২০২০

রাহাদ সুমন,বানারীপাড়া(বরিশাল)প্রতিনিধি॥
বরিশালের উজিরপুরে রাস্তার পাশে সারারাত ধরে মরে পড়ে থাকা অজ্ঞাত এক পাগলের লাশ প্রায় ১৬ ঘন্টা পরে উদ্ধার করে দাফন করা হয়েছে। প্রাণঘাতি করোনাভাইরাসের আতঙ্কে ওই লাশ কেউ উদ্ধার করে দাফনের উদ্যোগ না নেওয়ায় বিষয়টি জেনে ওসি জিয়াউল আহসানের নেতৃত্বে পুলিশ ও স্বেচ্ছাসেবী কর্মীরা লাশ উদ্ধার করে দাফন কাফনের ব্যবস্থা করে মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন।

এ জন্য উজিরপুরবাসী তাদের মানবতার ফেরিওয়ালা বলে আখ্যা দিয়েছেন। ওসি,চিকিৎসক,৫ পুলিশ সদস্য ও করোনাকালে লাশ দাফন কাফনের দায়িত্বে এগিয়ে আসা পৌর কাউন্সিলর বাবুল সিকদার সহ ৪ জন স্বেচ্ছাসেবী’র উপস্থিতিতে রোববার (২৬ এপ্রিল) সকাল ১০টার দিকে জানাজা শেষে তার লাশ দাফন করা হয়। এদিকে এক সংখ্যালঘু ব্যক্তির দান করা জমিতে ওই পাগলের দাফন করা হয়। জানাগেছে, গত ৪-৫ দিন ধরে মানসিক ভারসাম্যহীন ওই ব্যক্তি উজিরপুর উপজেলার জল্লা ইউনিয়নের পীরেরপাড় নামক এলাকায় ঘোরাফেরা করতো ।

আকস্মিক শনিবার (২৫ এপ্রিল) সন্ধ্যায় অসুস্থ হয়ে মারা যায় সে। রাতভর রাস্তার পাশে পড়ে ছিল ওই পাগলের মরদেহ। করোনা আতঙ্কে কেউ এগিয়ে আসেনি লাশটি উদ্ধারের জন্য। পরে খবর পেয়ে রোববার সকালে উজিরপুর থানার অফিসার ইন-চার্জ (ওসি) মো. জিয়াউল আহসানের নেতৃত্বে একটি টিম মৃতদেহটি উদ্ধার করে দাফন করেন। এসময় ওসি জিয়াউল আহসান দাফনের কাপড় সহ যাবতীয় সামগ্রী দেওয়ার পাশাপাশি দাফন-কাফনে অংশ নেওয়াদের ৫ হাজার টাকা প্রদান করেন।

উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা প্রনতি বিশ্বাস জানান,তিনি উজিরপুর থানা পুলিশ এবং স্বেচ্ছাসেবকদের সহায়তায় রোববার সকালে মানসিক ভারসাম্যহীন অজ্ঞাত ওই ব্যাক্তির লাশটি উদ্ধার করে দাফন কাফনের ব্যবস্থা করেছেন। ওসি জিয়াউল আহসান জানান ‘মানুষ মানুষের জন্য’ এ ব্রতি নিয়ে লাশটি দাফন করা হয়েছে। এছাড়া সে করোনা আক্রান্ত ছিলেন কিনা সেটা নিশ্চিত না হলেও তাকে নিয়ম মেনে সতর্কতার সাথে জানাজা এবং দাফন করার পাশাপাশি তার নমুনা সংগ্রহ করে পরীক্ষার জন্য বরিশাল শেবাচিম হাসপাতালের আরটি-পিসিআর ল্যাবে পাঠানো হয়েছে।

এদিকে ভবঘুরে মানসিক ভারসাম্যহীন ওই ব্যক্তি যেখানে মারাগেছেন সেখানে কোন মুসলিম পরিবার নেই।সংখ্যালঘু অধ্যুষিত ওই এলাকায় দাফনের জন্য জায়গা না থাকায় স্থানীয় সুশান্ত হালদার নামের এক মানবদরদী অসাম্প্রদায়িক ব্যক্তি তার বাড়ির পাশে নিজের জমিতে লাশ দাফনের অনুমতি দিলে সেখানেই তাকে দাফন করা হয়। এদিকে ইউএনও,ওসি,এক পৌর কাউন্সিলর ও তার নেতৃত্বে ৪ সদস্যের স্বেচ্ছাসেবী দল ও সম্পত্তি দান করা ওই সংখ্যালঘু ব্যক্তি মানবতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করে সর্ব মহলে প্রশংসা কুড়িয়েছেন।