‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ-চতুর্থ বর্ষ’র বরিশাল বিভাগের বাছাইপর্ব সম্পন্ন

প্রকাশিত: ৫:০১ অপরাহ্ণ, ফেব্রুয়ারি ১৪, ২০২০

‘সেরা ৮ ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ’ নির্বাচিত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বাংলা ভাষা নিয়ে দেশের সবচেয়ে বড় মেধাভিত্তিক টিভি রিয়ালিটি শো ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ-চতুর্থ বর্ষ’র বরিশাল বিভাগের বাছাইপর্ব (অডিশন) গতকাল শুক্রবার অনুষ্ঠিত হয়েছে। বরিশালের নিবন্ধিত শিক্ষার্থীরা সকাল ৯টা থেকে বরিশাল সরকারি মডেল স্কুল ও কলেজে উপস্থিত হয়। আয়োজিত এ বাছাই পর্বের প্রতিযোগিতায় অংশ নেয় সহস্রাধিক এর অধিক শিক্ষার্থী। প্রাথমিক এ বাছাই পর্ব শেষে মূল পর্বে ঢাকায় যাবার সুযোগ পেয়েছে বরিশাল বিভাগের সেরা ৮ বাংলাবিদ। বরিশালে আয়োজিত এ প্রতিযোগিতায় বিচারকের দায়িত্ব পালন করেন বরিশাল বিশ্ববিদ্যালয়ের বাংলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক মোহসিনা হোসাইন এবং প্রথিতযশা আবৃত্তি শিল্পী মাহীদুল ইসলাম।

পরে নির্বাচিতদের হাতে সম্মাননা পুরস্কার তুলে দেন পানিসম্পদ প্রতিমন্ত্রী কর্নেল (অব.) জাহিদ ফারুক শামীম এমপি, ইস্পাহানি টি লিমিটেড’র উপ মহাব্যবস্থাপক (বিপণন) এস. এম. দিদারুল হাসান এবং জ্যেষ্ঠ বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (বিক্রয় ও বিপণন) জসিমুল হক, বরিশাল সরকারি মডেল স্কুল এন্ড কলেজ অধ্যক্ষ মেজর সাহিদুর রহমান। নতুন প্রজন্মের কাছে শুদ্ধ বাংলা, বানান ও ব্যবহার ছড়িয়ে দিতে চতুর্থবারের মতো এ আয়োজন করেছে দেশের শীর্ষস্থানীয় ব্র্যান্ড ইস্পাহানি মির্জাপুর।

এ প্রতিযোগিতায় শুদ্ধ বাংলা ভাষার ব্যবহার, বানানচর্চা, শুদ্ধ উচ্চারণ ও ব্যাকরণের সঠিক প্রয়োগের মাধ্যমে ভিন্ন ভিন্ন পর্যায় শেষে চূড়ান্ত বিজয়ী নির্ধারণ করা হয়। ষষ্ঠ থেকে দশম শ্রেণির শিক্ষার্থীদের নিয়ে অনুষ্ঠিত প্রতিযোগিতায় ৪০ নম্বরের সাহিত্য ও ব্যাকরণভিত্তিক বহুনির্বাচনী প্রশ্ন ও ৩০ নম্বরের অনুধাবনমূলক প্রশ্নোত্তোরের মাধ্যমে নির্বাচিত করা হয় বিভাগের সেরা ২০ প্রতিযোগীকে।

পরে উচ্চারণ, বানান ও ব্যাকরণের দক্ষতা যাচাইয়ের মাধ্যমে বিচারকদের চুলচেরা বিশ্লেষণে সেরা ৮ জন নির্বাচিত হয়ে ঢাকায় মূল পর্বে সুযোগ পায়। বরিশাল বিভাগের বাছাইপর্বে ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ-চতুর্থ বর্ষ’ নিয়ে আজকের বার্তার সাথে কথা হয় ইস্পাহানি টি লিমিটেড’র উপ মহাব্যবস্থাপক (বিপণন) এস. এম. দিদারুল হাসান এর সাথে। একান্ত আলাপচারিতায় দিদারুল হাসান জানান, ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ প্রতিযোগিতাটি ২০১৭ সালে শুরু হয়, এখন ২০২০।

বাংলাবিদের ৪ বছরের যাত্রায় আমি বরিশালে তৃতীয় বারের মতো এসেছি। ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ প্রতিযোগিতায় প্রথম বরিশালে আসা এবং এবার বরিশালে আসায় কি পরিবর্তন দেখছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, বরিশালে প্রতিযোগীদের মাঝে আগের চেয়ে অনেক বেশি আগ্রহ দেখতে পাচ্ছি। আমরা চাই এ আগ্রহ দিন দিন আরও বাড়তে থাকুক।

‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ-চতুর্থ বর্ষ’ চলছে, আগের ৩ টি প্রতিযোগিতায় যারা বিজয়ী হয়েছে তাদের সার্বিক খোঁজ খবর কি বাংলাবিদ রিয়েলিটি শো রাখে- এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ শুধু যারা বিজয়ী হবেন তাদের জন্য নয়। এ প্রতিযোগিতা সবার। বাংলায় আগ্রহ বৃদ্ধিই এ প্রতিযোগিতার মূল লক্ষ্য। আশা করছি আমরা তা পেরেছি। দিন দিন আমাদের বাংলাবিদ ভাষা প্রতিযোতার প্রতি সবার আগ্রহ বাড়ছে। চর্চা হচ্ছে বাংলা ভাষা। তাই এবার বরিশালে শুধু শহরের মধ্যেই এ প্রতিযোগিতার প্রতিযোগী সীমাবদ্ধ থাকেনি।

বিভিন্ন উপজেলা থেকেও আমাদের এ প্রতিযোতায় অংশগ্রহণ করতে এবার প্রতিযোগীরা এসেছে। এটাই আমাদের সার্থকতা। এ সময় আজকের বার্তার সাথে আরও কথা হয় ইস্পাহানি লিমিটেড এর সিনিয়র জ্যেষ্ঠ বিভাগীয় ব্যবস্থাপক (বিক্রয় ও বিপণন) মোঃ জসিমুল হকের সাথে। একান্ত আলাপ চারিতায় মোঃ জসিমুল হক জানান, আমরা ১০ বছরের একটা টার্গেট নিয়ে নেমেছি।

আমারা আগামী ১০ বছরে বাংলাবিদ এর মাধ্যমে শিক্ষার্থীদের মাঝে বাংলা ভাষাকে আরও ছড়িয়ে দিতে চাই। আমাদের এ আয়োজনে আমরা চ্যানেল আইয়ের সাপোর্ট পাচ্ছি এবং ‘ইস্পাহানি মির্জাপুর বাংলাবিদ-চতুর্থ বর্ষ’ আয়োজনটা সুন্দর করে সম্পন্ন করতে পারছি। এদিকে আমরা অভিভাবকদের জন্য বসার ব্যবস্থা করেছি, এছাড়া চায়ের কর্নার করা হয়েছে।

২০১৭ সালের আয়োজন ও ২০২০ এর আয়োজনের মাঝে কি কি পার্থক্য দেখছেন এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, আমরা যখন প্রথম এই শো শুরু করি তখন মাত্র ৪শত এর মতো শিক্ষার্থী পেয়েছিলাম। এখন তা প্রায় ১ হাজারের বেশি। সবার মাঝে এই বাংলাভাষা প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠান জনপ্রিয় করতে পেরেছি এটাই আমাদের সার্থকতা।

উল্লেখ্য, দেশসেরা বাংলাবিদ জিতে নেবে ১০ লাখ টাকার মেধাবৃত্তি এবং দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থান অধিকারী পাবে যথাক্রমে তিন লাখ টাকা ও দুই লাখ টাকার মেধাবৃত্তি। এ ছাড়া প্রথম ১০ জন প্রতিযোগী পাবে একটি করে ল্যাপটপসহ ব্যক্তিগত গ্রন্থাগার করার জন্য ৫০ হাজার টাকা সমমূল্যের বাংলা বই ও বইয়ের আলমারি।

Sharing is caring!