আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানের অনাস্থা প্রস্তাবের প্রতিবাদে মানববন্ধন

প্রকাশিত: ৮:১৮ অপরাহ্ণ, আগস্ট ২৭, ২০২০

মোঃ জসিম উদ্দিন সিকদার, আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি ॥

বরগুনার আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম সরোয়ার ফোরকানকে অনৈতিক ও ষড়যন্ত্রমূলক অনাস্থা প্রস্তাবের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার বিকেলে চতুর্থ দিনের মত মানববন্ধন কর্মসূচী পালন করা হয়েছে। গুলিশাখালী ইউনিয়ন বাসীর উদ্যোগে গোজখালী বাজারে এ মানববন্ধনে অন্তত দুই হাজার মানুষ অংশগ্রহণ করেন।

জানাগেছে, আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম সরোয়ার ফোরকানের অনাস্থা প্রস্তাবকে কেন্দ্র করে আমতলীতে চলছে তুলকালাম কান্ড। তার সমর্থক ও সাধারণ মানুষ এ অনাস্থা প্রস্তাবকে প্রত্যাখ্যান করে সামাজিক আন্দোলনের ডাক দিয়েছেন। ওই আন্দোলনের ধারাহিকতায় উপজেলার ইউনিয়নে ইউনিয়নে চলছে মানববন্ধন কর্মসুচী। গত সোমবার থেকে বৃহস্পতিবার পর্যন্ত চার দিন ধরে চলছে মানববন্ধন। ঝড় বৃষ্টি উপেক্ষা করে এ মানববন্ধনে হাজার হাজার লোক অংশ গ্রহণ করছেন।

বৃহস্পতিবার উপজেলার গুলিশাখালী ইউনিয়নের গোজখালী বাজারে এক মানববন্ধন কর্মসূচি অনুষ্ঠিত হয়। ওই মানববন্ধনে অন্তত দুই হাজার মানুষ অংশ গ্রহণ করেন। সাবেক ইউপি সদস্য মুক্তিযোদ্ধা সামসুদ্দিন আহম্মেদ সামসুর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগ সভাপতি সাবেক কাউন্সিলর মোঃ মোয়াজ্জেম হোসেন খান, উপজেলা যুবলীগ সাধারণ সম্পাদক মোঃ জাহিদ দেওয়ান, আওয়ামীলীগ নেতা মোঃ হারুন অর রশিদ মোল্লা, ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সাধারণ সম্পাদক আবদুল আউয়াল খোকন মৃধা, উপজেলা যুবলীগ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম সোহাগ, আসাদুর রহমান আসাদ মৃধা, হাবিবুর রহমান হাওলাদার, মাওলানা মোঃ আলাউদ্দিন, ইউপি সদস্য মোঃ জহিরুল ইসলাম জহির মাতুব্বর প্রমুখ। মানববন্ধনে বক্তারা বলেন, উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যানকে যারা অনাস্থা প্রস্তাব দিয়েছেন তা অযৌক্তিক। এই অযৌক্তিক অনাস্থা প্রস্তাব জনগণ প্রত্যাখ্যান করেন। অনতিবিলম্বে এই অযৌক্তিক অনাস্থা প্রস্তাব তুলে নেওয়ার দাবী জানান তারা।

উল্লেখ্য, গত ১৭ আগস্ট আমতলী উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আলহাজ্ব গোলাম সরোয়ার ফোরকানের বিরুদ্ধে পরিষদ পরিচালনায় ব্যর্থ এবং ব্যক্তি স্বার্থে অনৈতিক সুবিধাসহ ১০ টি অভিযোগ এনে আমতলী পৌর মেয়র মতিয়ার রহমান, উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ মজিবুর রহমান ও ৭ টি ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যানসহ ১২ জন সদস্য বরিশাল বিভাগীয় কমিশনার বরাবর অনাস্থা প্রস্তাব দেন। ওই অনাস্থা প্রস্তাব জনগণ প্রত্যাখ্যান করে সামাজিক আন্দোলনের ডাক দেন।

Sharing is caring!