আমতলীতে অতি বর্ষণে জনজীবন বিপর্যস্ত : তলিয়ে গেছে আমনের ক্ষেত

প্রকাশিত: ৯:২৭ অপরাহ্ণ, আগস্ট ১৭, ২০২০

মোঃ জসিম উদ্দিন সিকদার, আমতলী (বরগুনা) প্রতিনিধি \
গত চার দিনের অতি বর্ষণে আমতলীর জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় ভয়াবহ জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। পানিতে আমনের ক্ষেত থই থই করছে। তলিয়ে গেছে আউশের ধান ক্ষেত ও আমনের বীজতলা। চাষাবাদ প্রায় বন্ধ। ধান ক্ষেত তলিয়ে থাকায় কৃষকদের ধান কর্তনে সমস্যা হচ্ছে। দ্রুত পানি নিষ্কাশন করা না হলে আউশ ধান ও আমনের বীজতলা পচে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন কৃষকরা।

জানাগেছে, গত শুক্রবার থেকে সোমবার পর্যন্ত চার দিন ধরে অতি বর্ষণে আমতলীর জনজীবন বিপর্যস্ত হয়ে পড়েছে। পানিতে মাঠ-ঘাট থই থই করছে। তলিয়ে গেছে আউশ ধানের ক্ষেত ও আমনের বীজতলা। জলকপাটগুলো দিয়ে পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় দেখা দিয়েছে উপজেলায় ভয়াবহ জলাবদ্ধতা। এতে আউশের ধান কর্তনে কৃষকদের সমস্যা হচ্ছে। দ্রুত পানি নিষ্কাশন করা না হলে আউশ ধান ও আমনের বীজতলা পচে যাওয়ার আশঙ্কা করছেন কৃষকরা। দ্রুত জলাবদ্ধতা নিরসনের দাবী জানিয়েছেন তারা। এছাড়া অতিবর্ষণে কষ্টে দিনাতিপাত করছেন শ্রমিক, দিন মজুর ও হতদরিদ্র মানুষগুলো।
খোঁজ নিয়ে জানাগেছে, উপজেলার গুলিশাখালী, কুকুয়া, আঠারোগাচিয়া, হলদিয়া, চাওড়া, আমতলী সদর ও আড়পাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের সকল আউশ ধানের ক্ষেত ও আমনের বীজতলা পানিতে তলিয়ে গেছে। জলকপাটগুলো দিয়ে পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় ভয়াবহ জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। এতে আউশ ধান কর্তন ও আমনের ক্ষেতে চাষাবাদ প্রায় বন্ধ রয়েছে।

আঠারোগাছিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম সোনাখালী গ্রামের কৃষক সোহেল রানা বলেন, অতি বর্ষণে জলাবদ্ধতা দেয়া দেওয়ায় আউশের ধান কর্তন ও আমনের বীজতলা পানিতে তলিয়ে গেছে। তিনি আরো বলেন, জলাবদ্ধতার কারণে জমি চাষাবাদ করতে পারছি না।

আড়পাঙ্গাশিয়া ইউনিয়নের ঘোপখালী গ্রামের কৃষক আফজাল শরীফ বলেন, পানিতে ক্ষেত তলিয়ে থাকায় আউশ ধান কাটতে এবং আমনের ক্ষেত বীজ বপন করতে পারছি না।

গুলিশাখালী ইউনিয়নের খেকুয়ানী গ্রামের জামাল সরদার বলেন, খেকুয়ানী জলকপাট দিয়ে পর্যাপ্ত পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় ভয়াবহ জলাবদ্ধতা দেখা দিয়েছে। দ্রুত পানি নিষ্কাশন না হলে কৃষকের আমনের জমি চাষাবাদ এবং আউশের ধান কর্তনে সমস্যা হবে।

হলদিয়া ইউনিয়নের দক্ষিণ তক্তাবুনিয়া গ্রামের কৃষক শিবলী শরীফ বলেন, শুধু পানি আর পানি। চারিদিকে পানিতে থই থই করছে। বীজতলা পানির নিচে তলিয়ে রয়েছে।

আমতলী উপজেলা কৃষি অফিসার সিএম রেজাউল করিম বলেন, পানি নিষ্কাশন না হওয়ায় জলাবদ্ধতা সৃষ্টি হয়েছে। এতে কৃষকের আউশ ধান কর্তন ও আমনের বীজ বপনে সমস্যা হচ্ছে। দ্রুত জলাবদ্ধতা নিরসনে উদ্যোগ নিতে হবে।

Sharing is caring!