আনসু ফাতির রেকর্ড, জয়ের ধারায় ফিরল বার্সেলোনা


Deprecated: get_the_author_ID is deprecated since version 2.8.0! Use get_the_author_meta('ID') instead. in /home/ajkerbarta/public_html/wp-includes/functions.php on line 4861
প্রকাশিত: ৭:১৪ পূর্বাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯

ভ্যালেন্সিয়াকে ৫-২ গোলে হারিয়ে স্প্যানিশ ফুটবল লিগে জয়ের ধারায় ফিরল বার্সেলোনা। সেইসঙ্গে ম্যাচটিতে গোল করে এবং গোলে সহায়তা করে রেকর্ড করলেন বার্সার স্ট্রাইকার আনসু ফাতি। সবচেয়ে কম বয়সে স্প্যানিশ লিগে একই ম্যাচে গোল করা ও গোলে সহায়তা করা ফুটবলার এখন তিনি।শনিবার রাতে ঘরের মাঠ ন্যু ক্যাম্পে অনুষ্ঠিত এ ম্যাচের শুরু থেকেই বার্সেলোনার গোল উৎসব শুরু হয়। দ্বিতীয় মিনিটেই গোল করে দলকে এগিয়ে দেন বার্সেলোনার স্ট্রাইকার আনসু ফাতি।

ফ্রেঙ্ক ডি ইয়ংয়ের ডান দিক থেকে বাড়ানো বল পেনাল্টি স্পটের কাছে পেয়ে যান ফাতি। সেখান থেকে জোরালো শটে ভ্যালেন্সিয়ার গোলরক্ষক জেসপার সিলিসেনকে পরাস্ত করেন তিনি। এর কিছুক্ষণ পর সপ্তম মিনিটে ব্যবধান দ্বিগুন করে কাতলানরা। এবারও সেই ফাতি-ডি ইয়ং জুটিতে প্রতিপক্ষের জালে বল। পেনাল্টি বক্সের বাম সাইড থেকে ফাতির বাড়ানো বল ডান পায়ে টোকা দিয়ে গোল করেন ডি ইয়ং।

অবশ্য বিরতিতে যাওয়ার আগে ২৭ মিনিটে ব্যবধান কমায় ভ্যালেন্সিয়া। রদ্রিগোর পাস থেকে বল পেয়ে সামনে এগিয়ে আসা বার্সা গোলরক্ষকে ফাঁকি দিয়ে দারুণ ফিনিশিংয়ে বল জালে পাঠান কেভিন গেমেইরো।বিরতির পর দ্বিতীয়ার্ধের ৫১ মিনিটে তৃতীয় গোলের দেখা পায় আর্নেস্তো ভালভার্দের শিষ্যরা। আতোয়া গ্রিজম্যানের জোড়ালো শট গোলরক্ষকের হাতে লেগে গোল বারে লেগে ফিরে আসে। ফিরতি বল জালে পাঠান জেরার্ড পিকে।

এই চাপ সামলিয়ে উঠতে না উঠতে ৬১ মিনিটে ভ্যালেন্সিয়ার জালে বার্সার চতুর্থ গোল। বদলি হিসেবে মাঠে নেমেই এক মিনিটের মধ্যেই গোলের দেখা পান লুইজ সুয়ারেজ। আর্থারের পাস থেকে ডি বক্সের বাইরে থেকে দারুণ এক শটে লক্ষ্যভেদ করেন। ফলে ৪-১ গোলে এগিয়ে যায় বার্সেলোনা।ম্যাচের শেষ মুর্হূতেও গোল হজম করতে ভ্যালেন্সিয়াকে। ৮২ মিনিটে গ্রিজম্যানের পাস থেকে ডান পায়ের শটে নিজের দ্বিতীয় গোল করেন সুয়ারেজ। সেইসঙ্গে বিশাল ব্যবধানে গিয়ে দাড়ায়।অবশ্য দ্বিতীয়ার্ধের অতিরিক্ত সময়ে ভ্যালেন্সিয়ার ম্যক্সি গোমেজ একটি গোল করলেও তা পরাজয়ের ব্যবধান কমানো ছাড়া কোনো কাজে আসেনি।

এই জয়ে চার ম্যাচে সাত পয়েন্ট নিয়ে পয়েন্ট টেবিলের চার নম্বরে উঠে এসেছে কাতালানরা।