আগৈলঝাড়ায় বৃদ্ধা শাশুড়িকে নির্যাতনকারী সেই পুত্রবধূ কারাগারে

প্রকাশিত: ৩:২৩ অপরাহ্ণ, জুন ১৭, ২০২০

আগৈলঝাড়া সংবাদদাতা ॥ আগৈলঝাড়া উপজেলার বারপাইকা গ্রামে ৯৫ বছরের বৃদ্ধা শাশুড়িকে শারীরিক নির্যাতনের অভিযোগে তার পুত্রবধূ শিখা রানীকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। মঙ্গলবার রাতে আটক করা পুত্রবধূ শিখা রানীকে একমাত্র আসামী করে নির্যাতিতার মেয়ের ঘরের নাতি চন্দন সরকার বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় তাকে গ্রেফতার দেখিয়ে গতকাল বুধবার দুপুরে আদালতের মাধ্যমে বরিশাল কেন্দ্রীয় কারাগারে প্রেরণ করা হয়েছে।

আগৈলঝাড়া থানার ওসি আফজাল হোসেন বলেন, খবর পেয়ে তিনি ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে অভিযুক্ত শিখা রানীকে আটক করেন। এ সময় আহত বৃদ্ধাকে প্রয়োজনীয় ওষুধ, ফল এবং খাদ্য সামগ্রী সহায়তা করেন তিনি। এ ঘটনায় নির্যাতিতার নাতি চন্দন সরকার বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেছেন। ওই মামলায় পুত্রবধূ শিখাকে আদালতের মাধ্যমে গতকাল বুধবার কারাগারে প্রেরণ করা হয়। প্রসঙ্গত, ৯৫ বছরের বৃদ্ধা জ্ঞানদা বেপারীর শরীরে করোনা ভাইরাসের জীবাণু থাকার কথা বলে গত দুই মাস যাবত তাকে বসত ঘরে না রেখে ঘরের বাইরে বাড়ির একটি মন্দিরের খোলা বারান্দায় থাকতে বাধ্য করেন পুত্রবধূ শিখা সরকার।

গত সোমবার দুপুরে খাবার চেয়ে না পেয়ে তার নামে উত্তোলনকৃত বয়স্ক ভাতার টাকা চান ছেলের বউর কাছে বৃদ্ধা শাশুড়ি। এতে তার ছেলে শ্রবণ প্রতিবন্ধী অসুস্থ জগদীশ বেপারী ও তার স্ত্রী শিখা রানী প্তি হন। একপর্যায়ে তারা তাকে পিটিয়ে রক্তাক্ত করেন। নির্যাতনের সময় বৃদ্ধার চিৎকারে প্রতিবেশীরা এগিয়ে গেলে জগদীশের স্ত্রী শিখা রানী তাদের অকথ্য ভাষায় গালাগাল করে এবং বিষয়টি কাউকে জানালে তাদের নামে মামলা করার হুমকি দেন।

এ সংক্রান্ত সংবাদ প্রকাশিত হলে মঙ্গলবার রাতে ওসি মোঃ আফজাল হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে আহত বৃদ্ধার মানবিক, খাদ্য ও চিকিৎসা সহায়তা প্রদান করে অভিযুক্ত গৃহবধূকে আটক করে থানায় নিয়ে আসেন।

Sharing is caring!