আগৈলঝাড়ায় কিশোর গ্যাং এর ৬ সদস্য দ্রুত বিচার আইন মামলায় গ্রেফতার

প্রকাশিত: ৫:৩১ অপরাহ্ণ, অক্টোবর ২৫, ২০২০

তপন বসু, আগৈলঝাড়া প্রতিনিধি ::

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় দেশীয় ধারালো অস্ত্র গলায় চালিয়ে মোবাইল ছিনতাই করা কিশোর গ্যাং এর ৬ সদস্যকে দুটি মোটর সাইকেলসহ গ্রেফতার করেছে পুলিশ। আহত যুবককে উদ্ধার করে হাসপাতালে ভর্তি। দ্রুত বিচার আইনে কিশোর গ্যাংয়ের ৬ সদস্যের বিরুদ্ধে থানায় মামলা দায়ের।

থানার অফিসার ইন চার্জ মো. গোলাম ছরোয়ার এজাহারের বরাত দিয়ে জানান, উপজেলার বাকাল ইউনিয়নের কোদালধোয়া গ্রামের মন্মথ বৈষ্ণবের ছেলে নয়ন বৈষ্ণব (২০) শনিবার রাতে কোদালধোয়া বাজারে দুর্গা পূজা দেখে বাড়ি ফেরার পথে রাত সাড়ে আটটার দিকে ওই বাজারের পশ্চিম পাশে মঙ্গল ওঝার পান বরজের পাশ দিয়ে যাবার সময়ে একদল কিশোর তার পথ রোধ করে দেশীয় ধারালো অস্ত্র দিয়ে গলায় আঘাত করে মোবাইল ফোন ছিনিয়ে মোটরসাইকেলে পালিয়ে যায়।

এ ঘটনায় হাসপাতালে ভর্তি আহত নয়নের বাবা মন্মথ বৈষ্ণব বাদী হয়ে ছয় জনের নাম উল্লেখসহ অজ্ঞাতনামা আরও ২/৩ জনকে আসামী করে দ্রুত বিচার আইনে মামলা দায়ের করেছেন, নং-১১(২৫.১০.২০)। পুলিশ শনিবার রাতেই অভিযান চালিয়ে বড়মগড়া এলাকা থেকে অভিযুক্ত কিশোর গ্যাং এর ছয় জনকে গ্রেফতার করে রবিবার সকালে আদালতে প্রেরণ করেছে।

খবর পেয়ে তাৎক্ষণিক ঘটনাস্থলে ছুটে যান উপজেলা পূজা উদযাপন পরিষদের সাধারণ সম্পাদক ও সংশ্লিষ্ট বাকাল ইউপি চেয়ারম্যান বিপুল দাস। তিনি আহত নয়নকে তাৎক্ষণিক উপজেলা হাসপাতালে নিয়ে ভর্তি করান।

মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা ওসি (তদন্ত) মাজহারুল ইসলাম জানান, মোবাইল ছিনতাইয়ের ঘটনা স্থানীয় লোকজন থানাকে অবহিত করলে ওসি গোলাম ছরোয়ারের নির্দেশে পুলিশ অভিযুক্তদের ধরার জন্য বিভিন্ন পূজা মন্ডপের রাস্তায় তল্লাশী চৌকি বসায়। ওই তল্লাশী চৌকির আওতায় উপজেলার বড়মগড়া এলাকা থেকে এজাহারভুক্ত আসামী রাজিহার ইউনিয়নের আহুতি বাটরা গ্রামের সুকুমার বালার ছেলে সৈকত বালা (১৭), একই গ্রামের জীবন হালদারের ছেলে পল্লব হালদার (১৯), চৈতন্য বৈদ্যর ছেলে চিন্ময় বৈদ্য (১৯), স্বপন বৈদ্যর ছেলে সোহাগ বৈদ্য (১৭), দুলাল বৈদ্যর ছেলে রাতুল বৈদ্য (১৭) ও পার্শ¦বর্তী কোটালীপাড়া উপজেলার রামশীল গ্রামের সুধাংশ হালদারের ছেলে দীপ্ত হালদারকে (১৭) আটক করে পুলিশ।

এসময় কিশোর গ্যাং এর ব্যবহৃত দু’টি মোটর সাইকেলও জব্দ করা হয় ।

আটককৃত কিশোর গ্যাং এর ৬ সদস্যকে ওই রাতেই হাসপাতালে ভর্তি আহত নয়নের সামনে হাজির করলে ওই গ্যাং এর সদস্যদের মধ্যে আটক সৈকত বালাকে ছিনতাইকারী হিসেবে শনাক্ত করেন তিনি।

সূত্র মতে, আটককৃতদের বিরুদ্ধে এলাকায় আইন পরিপন্থী বিভিন্ন কাজের সাথে জড়িত থাকার অভিযোগ রয়েছে।

আহত নয়নের বাবা মন্মথ বৈষ্ণবের দায়েরকৃত মামলায় কিশোর গ্যাং এর উল্লেখিত ৬ সদস্যকে গ্রেফতার দেখিয়ে রবিবার সকালে পল্লব ও চিন্ময়কে বরিশাল আদালত ও অন্যান্যদের বরিশাল শিশু আদালতে প্রেরণ করা হয়েছে।

Sharing is caring!