আইনের ঊর্ধ্বে কেউ নয়-সম্পাদক পরিষদের সাথে একান্ত সাক্ষাতকারে বিএমপি কমিশনার

প্রকাশিত: ২:২৮ অপরাহ্ণ, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০২০

স্টাফ রিপোর্টার ::

গতকাল বরিশালের দৈনিক পত্রিকা সমূহের সম্পাদকবৃন্দ বরিশাল মেট্রোপলিটন পুলিশ কমিশনার মো: শাহাবুদ্দিন খান’র সাথে এক সৌজন্য সাক্ষাতে মিলিত হন। এসময় বরিশালের আইনশৃঙ্খলা বিষয়াবলী নিয়ে আলোচনা হলে মাদক ব্যবসা, চাঁদাবাজী, বিভিন্ন পর্যায়ের দালালদের দৌরাত্ম্য, চুরি-ডাকাতি, ছিনতাইসহ অপসাংবাদিকতার বিষয়টি গুরুত্বের সাথে আলোচনায় স্থান পায়।

সম্প্রতি বিভিন্ন মামলার আসামিদের গ্রেফতার করারও একটা পরিসংখ্যান তুলে ধরেন বিএমপি কমিশনার। বরিশালের মানুষ প্রশাসনকে আন্তরিকতার সাথে সহযোগিতা দিয়ে যাচ্ছে তাই আইনশৃঙ্খলা নিয়ন্ত্রণে রাখতে পুলিশ প্রশাসনের সুবিধা হচ্ছে। বিশেষ করে বরিশালের মিডিয়া অঙ্গন অপরাধ দমনে পুলিশের পাশাপাশি থেকে যে সাহসিকতা দেখাচ্ছেন তা উল্লেখযোগ্য।

এক প্রশ্নের জবাবে পুলিশ কমিশনার বলেন, সকল অঙ্গনই ছিটে ফোঁটা বিপথগামী কিছু লোক থাকে। যারা নিজেদের হীনস্বার্থ চরিতার্থ করার জন্য তৎপর থাকে যা আমাদের নজরে আছে। আমরা জিরো টলারেন্সে কাজ করি। কোন পর্যায়ের অপরাধী আইনের ঊর্ধ্বে নয়। তবে আইনের খুঁটিনাটি বিষয়গুলো সতর্কতার সাথে আমাদের পর্যালোচনা করেই ব্যবস্থা নিতে হয়। এতে অপরাধীর পার পাওয়ার কোন সুযোগ নেই। সাংবাদিকতা একটি মহান পেশা। এ পেশার প্রতি সকলের সম্মান দেখানো উচিৎ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন, অতিরিক্ত পুলিশ কমিশনার প্রলয় চিসিম, উপ-পুলিশ কমিশনার (সদর) আবু সালেহ মো: রায়হান, উপ-পুলিশ কমিশনার মো: জাহাঙ্গীর মল্লিক, সিনিয়র সহকারী পুলিশ কমিশনার মো: আব্দুল হালিম প্রমুখ।

উপস্থিত ছিলেন, দৈনিক পত্রিকা সমূহের সম্পাদক পরিষদের সভাপতি কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল, সিনিয়র সহ-সভাপতি কাজী মফিজুল ইসলাম কামাল, সহ-সভাপতি আবদুর রাজ্জাক ভুঁইয়া, সহ-সভাপতি এ্যাড. এসএম রফিকুল ইসলাম, সহ-সভাপতি মো: খলিলুর রহমান, সহ-সভাপতি এম রহমান, সাধারণ সম্পাদক এসএম জাকির হোসেন, সহ-সাধারণ সম্পাদক শেখ শামীম, সহ-সাধারণ সম্পাদক তারেকুল আলম অপু, সাংগঠনিক সম্পাদক কাজী মো: জাহাঙ্গীর, দপ্তর সম্পাদক তালুকদার মাসুদ, অর্থ সম্পাদক মারুফ হোসেন, সাহিত্য ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক নাছির আহম্মেদ রনি, প্রচার সম্পাদক জসিম উদ্দিন, তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক মো: মোস্তফা কামাল, নির্বাহী সদস্য কাজী আল মামুন, নির্বাহী সদস্য হাবিবুর রহমান, সদস্য তাওহিদুল ইসলাম জামাল।

Sharing is caring!