আজকের বার্তা | logo

৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৯শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং

গর্ভের সন্তান বিক্রি করা রাবেয়াকে ঋণমুক্ত করলেন ইউএনও

প্রকাশিত : নভেম্বর ০৭, ২০১৮, ২২:৫৮

গর্ভের সন্তান বিক্রি করা রাবেয়াকে ঋণমুক্ত করলেন ইউএনও

অনলাইন সংরক্ষণ  //  দৈনন্দিন জীবনে চাহিদা পূরণে মানুষকে কত কিছুই না করতে হয়। কিন্তু অভাব পূরণ করতে যদি গর্ভের অনাগত সন্তানকে বিক্রি করা হয়, তাহলে একটু আশ্চর্য হওয়ারই কথা। বাস্তবে এ রকমই ঘটনা ঘটেছে জামালপুরের বকশীগঞ্জের উপজেলায়।কিন্তু উপজেলা নির্বাহী অফিসার (ইউএনও) দেওয়ান মোহাম্মদ তাজুল ইসলামের সহযোগিতায় এনজিও’র ঋণমুক্ত হয়ে গর্ভের সন্তানকে আর বিক্রি করতে হয়নি চার সন্তানের জননী রাবেয়াকে (৩০)।গতকাল মঙ্গলবার গ্রামীণ ব্যাংক ও আশার টাকা পরিশোধ করে ঋণমুক্ত একটি সনদ রাবেয়ার কাছে হস্তান্তর করেছেন ইউএনও।স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বকশীগঞ্জ উপজেলার পশ্চিমপাড়ার দরিদ্র রাবেয়ার (৩০) স্বামী জাহাঙ্গীর আলম দিনমজুর।

অভাবের তাড়নায় স্থানীয় গ্রামীণ ব্যাংক ও এনজিও আশার কাছ থেকে রাবেয়া নিজ নামে সাপ্তাহিক কিস্তিতে ৮০ হাজার টাকা ঋণ নেন। কিস্তির টাকা পরিশোধ করতে না পেরে চাপের মুখে অন্তঃসত্ত্বা স্ত্রী রাবেয়া বেগম ও স্বামী জাহাঙ্গীর বাড়ি থেকে পালিয়ে যান। উপায় না পেয়ে রাবেয়া সন্তানদের নিয়ে বাবার বাড়িতে চলে আসেন।কিন্তু রাবেয়ার অন্ধ প্রতিবন্ধী বৃদ্ধ বাবার পক্ষে কন্যা ও তার চার সন্তানের ভরণ-পোষণ অসম্ভব হয়ে পড়ে। তাই সন্তানসহ অর্ধাহারে-অনাহারে দিন কাটতে থাকে রাবেয়ার।  তাই উপায় না পেয়ে সে নিজের গর্ভের অনাগত সন্তানকে ৪০ হাজার টাকায় বিক্রি করে দেন। ৫ হাজার টাকা অগ্রিমও নেন। অবশিষ্ট ৩৫ হাজার টাকা সন্তান প্রসব ও হস্তান্তরের সময় দেওয়া কথা ছিল।

কিন্তু বকশীগঞ্জ প্রেসক্লাবের সভাপতি এম শাহীন আল আমীনের মাধ্যমে খবর পেয়ে রাবেয়ার বাড়িতে ছুটে যান ইউএনও। বিস্তারিত জেনে এবং পারিবারিক অবস্থা দেখে তিনি রাবেয়ার হাতে নগদ ১৫ হাজার টাকা তুলে দেন। তাছাড়া রাবেয়ার সকল ঋণ পরিশোধ, সুচিকিৎসা এবং তার সন্তানদের সার্বিক সহযোগিতার আশ্বাস দেন ইউএনও।এরপর প্রেসক্লাবের সভাপতি এম শাহীন আল আমীন ও সাধারণ সম্পাদক আবদুল লতিফ লায়নের নেতৃত্বে সাংবাদিকরা রাবেয়ার পাশে দাঁড়ান। ফলে নিজের সন্তান আর বেঁচে দিতে হয়নি দারিদ্র রাবেয়াকে।এ বিষয়ে রাবেয়া বেগম বলেন, ‘আজ  আমি অনেক খুশি। ইউএনও স্যার, সাংবাদিক ভাইয়েরাসহ যারা আমার পাশে দাঁড়িয়েছেন তাদের প্রতি আমি সারাজীবন কৃতজ্ঞ থাকব।’এ বিষয়ে ইউএনও দেওয়ান মোহাম্মদ তাজুল ইসলাম বলেন, ‘খবর পেয়েই রাবেয়ার পাশে দাঁড়িয়েছি। প্রতিনিয়ত খোঁজ খবর রেখেছি। কথা দিয়েছিলাম তাকে ঋণমুক্ত করব। কথা রাখতে পেরে ভালো লাগছে।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।