আজকের বার্তা | logo

৩রা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৮ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং

পিরোজপুরে নারীর পায়ের রগ কাটার দায়ে সাবেক স্বামীসহ ৪ জনের জেল

প্রকাশিত : অক্টোবর ০৯, ২০১৮, ২২:৩৫

পিরোজপুরে নারীর পায়ের রগ কাটার দায়ে সাবেক স্বামীসহ ৪ জনের জেল

অনলাইন সংরক্ষণ  //  পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার কেউন্দিয়া গ্রামের ময়না আক্তার (২৩) নামে তালাকপ্রাপ্ত এক নারীকে তুলে নিয়ে দুই পায়ের রগ কেটে পঙ্গু করে দেওয়ার দায়ে সাবেক স্বামীসহ চার জনকে ২৪ বছর করে কারাদণ্ড দিয়েছেন আদালত।

মঙ্গলবার (০৯ অ‌ক্টোবর) বিকেল ৩টায় পিরোজপুরের নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের বিচারক মো. মিজানুর রহমান এ রায় ঘোষণা করেন।

দণ্ডপ্রাপ্ত ব্যক্তিরা হলেন-ময়না আক্তারের সাবেক স্বামী ঝালকাঠি সদর উপজেলার বারুহার গ্রামের মৃত আকুব্বর আলী মৃধার ছেলে শহিদুল মৃধা (৩০), শহিদুল মৃধার বড় ভাই নজরুল মৃধা (৪৭), পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার পূর্ব মাগুরা গ্রামের আব্দুল বারেক সিকদারের ছেলে শহিদ সিকদার (৩২) ও একই উপজেলার কেউন্দিয়া গ্রামের মৃত সোহরাব হোসেনের ছেলে আবুল কালাম আজাদ (৩০)।

ময়না আক্তারকে অপহরণের দায়ে প্রত্যেক আসামিকে ১৪ বছর কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

এছাড়া পঙ্গু করে দেওয়ার দায়ে প্রত্যেক আসামিকে ১০ বছর কারাদণ্ড ও ৫০ হাজার টাকা করে জরিমানা, অনাদায়ে আরও এক বছরের কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে।

আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০১৫ সালে পিরোজপুরের কাউখালী উপজেলার কেউন্দিয়া গ্রামের ইমাম মৃধার মেয়ে ময়না আক্তারের সঙ্গে শহিদুল মৃধার বিয়ে হয়। পরে তাদের মধ্যে বনিবনা না হলে ময়না আক্তার শহিদুল মৃধাকে তালাক দেন। এতে শহিদুল মৃধা প্রতিশোধ নেওয়ার পরিকল্পনা করেন। ২০১৬ সালের ২ মার্চ রাতে ময়না আক্তার বাবার বাড়িতে টয়লেট থেকে বের হওয়ার সময় আসামিরা ময়না আক্তারকে মুখ চেপে জোর করে তুলে একটি মাঠে নিয়ে যান। এরপর তারা ধর্ষণ করার চেষ্টা করে ব্যর্থ হয়ে ধারালো অস্ত্র দিয়ে তার দুই পায়ের রগ কেটে দেন।

ঘটনার পরদিন ময়না আক্তারের বাবা ইমাম মৃধা বাদী হয়ে শহিদুল ও নজরুলের নাম উল্লেখ করে অজ্ঞাত আরও দুইজনকে আসামি করে স্থানীয় থানায় মামলা দায়ের করেন। মামলার তদন্ত শেষে ওই বছরের ৩০ আগস্ট তদন্ত কর্মকর্তা কাউখালী থানার উপ পরিদর্শক (এসআই) ওসমান গণি চারজনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দেন।

মামলার ১১ জন সাক্ষীর সাক্ষ্যগ্রহণ শেষে বিচারক এ রায় দেন। রায় ঘোষণার সময় আসামিরা আদালতে উপস্থিত ছিলেন।

রাষ্ট্রপক্ষে মামলাটি পরিচালনা করেন নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনালের সরকারি কৌসুলি (বিশেষ পিপি) আব্দুর রাজ্জাক খান। আসামিপক্ষে ছিলেন আইনজীবী জাকির হোসেন।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।