আজকের বার্তা | logo

৩রা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৮ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং

নগরীজুড়ে বইছে শারদীয় দুর্গোৎসবের আমেজ

প্রকাশিত : অক্টোবর ০৩, ২০১৮, ০১:৫৫

নগরীজুড়ে বইছে শারদীয় দুর্গোৎসবের আমেজ

এম. বাপ্পি ॥ সনাতন ধর্মাবলম্বীদের সবচেয়ে বড় ধর্মীয় উৎসব শারদীয় দুর্গাপূজার বাকি মাত্র ৪ দিন। উৎসবকে কেন্দ্র করে নগরীতে উৎসবমুখর পরিবেশ বিরাজ করছে। ম-প নির্মাণ ও কেনাকাটার হিড়িক পড়েছে সর্বত্র। গোটা নগরীজুড়ে বইতে শুরু করেছে পূজা উদযাপনের হাওয়া। শান্তিপূর্ণ উৎসব আয়োজনে পূজা উদযাপন কমিটিগুলোর মিটিং, মতবিনিময় সভা চলছে। নগরীর বিভিন্ন স্থানে নির্মিত ম-পগুলোর কাজ প্রায় শেষ পর্যায়ে। এসব ম-পের বেশিরভাগ তৈরি হচ্ছে সর্বজনীন উদ্যোগে। তবে ব্যক্তিগত উদ্যোগও নেহাত কম নয়। বরিশাল মহানগরে এবার ৩৮টি সর্বজনীন পূজা ম-প রয়েছে। ব্যক্তিগত পর্যায়ে রয়েছে ৫টি। গত বছরের চেয়ে এ বছর ৩টি ম-পের সংখ্যা বেড়েছে। নগরীর বেশ কয়েকটি এলাকা ঘুরে দেখা গেছে, ম-পগুলোর নির্মাণ কাজ দ্রুত এগিয়ে চলছে। অনেক ম-পের কাজ প্রায় অর্ধেক সম্পন্ন হয়েছে। অন্যান্যগুলোর মধ্যে কোনোটির ৭০ ভাগ, কোনোটির প্রায় ৮০ ভাগ কাজ শেষ হয়েছে। মন্দিরের সাজসজ্জা এবং প্রতিমা তৈরিতে ব্যস্ত সময় পার করছেন আয়োজক কমিটির সদস্যরা। শ্রী শ্রী শংকর মঠ, জগন্নাথ দেবের মন্দির, নতুন বাজার, ফলপট্টি কাঠপট্টি, বাজার রোড ঘুরে জাঁকজমকভাবে উৎসব পালনের ব্যাপক প্রস্তুতি লক্ষ্য করা গেছে। এদিকে, দুর্গোৎসবকে কেন্দ্র করে কেনা-কাটার ধুম পড়েছে সনাতন ধর্মীয় পরিবারগুলোর মাঝে। অভিজাত পোশাক বিপণীবিতানগুলোর পাশাপাশি প্রশাধনী ও পূজা সংক্রান্ত পণ্য ক্রয়ে ক্রেতা সমাগম বেড়েছে। বিপণীবিতান পোশাক বাজারের বিক্রেতারা জানান, পূজা উপলক্ষে বেচা-বিক্রি মোটামুটি শুরু হয়ে গেছে। সামনের দিনগুলোতে যা আরও বাড়বে বলে আশা প্রকাশ করেন তারা। পূজা পালনে আনুষঙ্গিক পণ্য বিক্রিও আশানুরূপহারে বেড়েছে বলে জানিয়েছেন বাজার রোডের ব্যবসায়ীরা। কালীবাড়ি রোডের বাসিন্দা সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব কাজল ঘোষ বলেন, পরিবারের সদস্যদের জন্য নতুন পোশাক কেনা হয়ে গেছে। বাকী কেবল পূজা পালনের আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র। চকবাজারে শপিং এ আসা গৃহিণী তনু সিংহ জানান, পোশাকাদি কেনা শেষ। এখন অলংকার এবং প্রসাধনী কিনতে এসেছেন। উৎসব উপলক্ষে সবচেয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রতিমা শিল্পীরা। কাদা-মাটি-পানি দিয়ে তৈরি করছেন দুর্গাসহ অন্যান্য দেব-দেবীর প্রতিমা। জেলার বিভিন্ন স্থান থেকে আগত কারিগররা গতবারের চেয়ে এবার নতুন ও আকর্ষণীয় আঙ্গিকে যে যার মত প্রতিমার সৌন্দর্যদানে আপ্রাণ চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন। শংকর মঠ পূজা উদযাপন কমিটির সভাপতি শিশির কুমার দে বলেন, মন্দির কমিটি প্রতিবারের ন্যয় এবারও শারদীয় দুর্গোৎসব যথাযথ মর্যাদা ও আড়ম্বরপূর্ণভাবে পালনের সর্বাত্মক প্রস্তুতি নিয়েছেন। শ্রী শ্রী পাষানময়ী কালীমাতা মন্দিরের সার্বিক সহযোগিতায় দায়িত্বরতদের মধ্যে অন্যতম টিপু চন্দ্র দাস জানান, সর্বজনীন উদ্যোগে সুষ্ঠুভাবে উৎসব পালনে আশাবাদী তারা। এ ব্যাপারে প্রশাসনেরও সহযোগিতা কামনা করেছেন তারা। পুরোহিত গোপাল গাঙ্গুলি জানান, আগামী ৮ অক্টোবর মহালয়ার মধ্য দিয়ে শারদীয় দুর্গোৎসবের সূচনা হবে। দেবী দুর্গা এবার মর্ত্যলোকে আসবেন ঘোড়ায় চেপে। বিদায়ও নেবেন দোলায় চড়ে। ১৫ অক্টোবর ষষ্ঠীর মধ্য দিয়ে দেবীর নবপত্র কল্পারম্ভ ষষ্ঠী পূজা। ১৬ অক্টোবর সপ্তমী পূজা, ১৭ অক্টোবর মহা অষ্টমী, ১৮ অক্টোবর নবমী ও ১৯ অক্টোবর দশমীবিহিত পূজা ও দশহরার মধ্য দিয়ে পাঁচ দিনব্যাপী পূজার অনুষ্ঠান সমাপ্ত হবে।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।