আজকের বার্তা | logo

২৯শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৩ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং

সিনেমা ছিনতাই নিয়ে বিস্মিত চলচ্চিত্র মহল!

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ০৩, ২০১৮, ১৮:১৬

সিনেমা ছিনতাই নিয়ে বিস্মিত চলচ্চিত্র মহল!

অনলাইন সংরক্ষণ  //  ‘এটা মগের মুল্লুক! প্রযোজক যত ক্ষমতাবান হোক, শুটিংয়ের মাঝপথে একজন পরিচালকের কাছ থেকে তিনি সিনেমা ছিনিয়ে নিতে পারেন না। মাঝপথে, শেষ দিকে কিংবা কিছু কাজ করার পরও পরিচালককে বাদ দেওয়ার সিদ্ধান্ত আমার মতে গুরুতর অপরাধ।’ বললেন বাংলাদেশের বরেণ্য চিত্রনায়ক ফারুক। ‘নোলক’ ছবির পরিচালক বদলে যাওয়ার প্রসঙ্গ নিয়ে প্রথম আলোর কাছে এভাবেই ক্ষোভের কথা জানান বাংলাদেশ চলচ্চিত্র পরিবারের আহ্বায়ক।

গত বছর ১ ডিসেম্বর ভারতের হায়দরাবাদে ‘নোলক’ ছবির শুটিং শুরু হয়। শুটিং শুরু হওয়ার পাঁচ দিন পর ছবির নায়ক শাকিব খানের ‘ফার্স্ট লুক’ প্রকাশ করেন পরিচালক রাশেদ রাহা। রামোজি ফিল্ম সিটিতে টানা ২৮ দিনের শুটিংয়ে অংশ নেন শাকিব খান, ববি, ওমর সানী, মৌসুমী, তারিক আনাম খান, নিমা রহমান ও রেবেকা এবং কলকাতার রজতাভ দত্ত, সুপ্রিয় দত্ত ও অমিতাভ ভট্টাচার্য।

এর আগে রাজধানীর একটি পাঁচতারকা হোটেলে বি-হ্যাপি এন্টারটেইনমেন্টের এই ছবির পরিচালক হিসেবে রাশেদ রাহার নাম ঘোষণা করা হয়। কিন্তু ছবির দ্বিতীয় লটের শুটিংয়ের সময় পরিচালনা নিয়ে জটিলতা তৈরি হয়।

গত জুলাই মাসে ছবির পরবর্তী অংশের শুটিং করতে মৌসুমী, ওমর সানী, ববি, তারিক আনাম খান খানকে নিয়ে কলকাতায় যান প্রযোজক সাকিব ইরতেজা। তখন জানা যায়, ছবিটি তিনিই পরিচালনা করবেন। ঘটনাটি জানিয়ে চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতিতে লিখিত অভিযোগ করেন রাশেদ রাহা। কলকাতায় শুটিং শেষ করে সাকিব ইরতেজা দেশে ফেরার পর চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি থেকে তাঁকে ডাকা হয়। এ সময় চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতির নেতৃবৃন্দের সঙ্গে কয়েক দফা কথা বলেন সাকিব ইরতেজা। পাশাপাশি বিষয়টি মীমাংসা না হওয়া পর্যন্ত ছবির শুটিং স্থগিত রাখার নির্দেশ দেয় চলচ্চিত্র পরিচালক সমিতি। এরপর ছবির নায়ক শাকিব শুটিংয়ে অংশ নেওয়া থেকে বিরত থাকেন। কিন্তু পরে এই নির্দেশ উপেক্ষা করে আবার শুটিং শুরু করেন সাকিব ইরতেজা। গতকাল রোববার পর্যন্ত রাজধানীর তেজগাঁওয়ে কোক স্টুডিওতে ছবির শুটিং হয়েছে।

একজন পরিচালকের কাছ এভাবে সিনেমা ছিনতাইয়ের ঘটনায় হতবাক ও বিস্মিত বরেণ্য অভিনয়শিল্পী, প্রযোজক এবং পরিচালক। ‘নোলক’ সিনেমার মহরতের দিন উপস্থিত ছিলেন গুণী পরিচালক কাজী হায়াৎ। তিনি প্রথম আলোকে বলেন, ‘একটি সিনেমা একজন পরিচালকের কল্পনার প্রতিফলন। একটি চলচ্চিত্রের কাজ শুরুর আগে তা প্রথম মনের পর্দায় দেখেন পরিচালক। মনের পর্দায় দেখা, সেই চিত্রগুলোকে তিনি পর্দায় তুলে করেন। একজন পরিচালক যদি মাঝপথে কিংবা শেষ দিকে বাদ হয়ে যায়, সে চলচ্চিত্রের অবস্থা কী হয়, তা সহজেই অনুমান করা যায়! এতে করে একজন নির্মাতাকে হত্যা করা হয়। চলচ্চিত্র যদি একটি সৃষ্টি হয়, আর সেই সৃষ্টি অন্য কেউ নিতে চায়, আমি বলব তা একটি হত্যাকাণ্ড। চলচ্চিত্র অঙ্গনে এমন হত্যাকাণ্ড হওয়া উচিত না।’

কিন্তু প্রযোজনা প্রতিষ্ঠান জাজ মাল্টিমিডিয়ার কর্ণধার আবদুল আজিজ বলেছেন ভিন্ন কথা। তাঁর মতে, নীতিগতভাবে এটা ঠিক না হলেও একজন প্রযোজক চাইলে ছবির কাজের যে কোনো সময় পরিচালক বদলাতে পারেন। তিনি বলেন, ‘নীতিগতভাবে এটা ঠিক না। কিন্তু যদি এমন কোনো ঘটনা ঘটে যে সঠিক সময়ে শুটিং শেষ করা যাচ্ছে না, নানা অনিয়ম হচ্ছে, আর এর জন্য যদি পরিচালকই দায়ী হন, তাহলে প্রযোজক সেই পরিচালককে বাদ দিতেই পারেন। আর “নোলক” ছবির ক্ষেত্রে যা হয়েছে, তা ছবির ভালোর জন্যই হয়েছে। শুনেছি, এই পরিচালক নাকি শিল্পীদের সঙ্গে সেলফি তোলা ছাড়া কোনো কাজই করেননি।’

চিত্রনায়ক ফারুক বলেন, ‘একজন পরিচালক যদি শুটিংয়ে অন্যায় করেন, সময় মতো শুটিং শেষ করতে ব্যর্থ হন, তারপরও তাকে বাদ দিতে পারেন না প্রযোজক। চলচ্চিত্র প্রযোজক-পরিবেশক সমিতি এখন কার্যকর নেই, তাই হয়তো এমন সাহস দেখিয়েছেন ছবির প্রযোজক। কিন্তু এটা তো মামাবাড়ির আবদার না! পরিচালক যদি কোনোভাবে প্রযোজকের ক্ষতির কারণ হয়, অবশ্যই সংশ্লিষ্ট সমিতিতে প্রযোজক অভিযোগ করতে পারেন। কিন্তু কাউকে কিছু না জানিয়ে প্রযোজক নিজেই পরিচালক হতে পারেন না। এটা আলোচনার বিষয়।’

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।