আজকের বার্তা | logo

৩রা কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৮ই অক্টোবর, ২০১৮ ইং

পথেঘাটে মানসিক রোগী: অতিষ্ঠ বরিশাল নগরবাসী

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১৯, ২০১৮, ০৩:৩২

পথেঘাটে মানসিক রোগী: অতিষ্ঠ বরিশাল নগরবাসী

খন্দকার রাকিব ॥ অসচেতনতার কারণে বরিশালে মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তিদের নিয়ে আতঙ্ক বাড়ছে সাধারণ মানুষের মাঝে। বরিশাল নগরীসহ শহরতলী এলাকায় প্রতিদিনই বাড়ছে মানসিক ভারসাম্যহীন রোগীর সংখ্যা। ভোর থেকে গভীর রাত পর্যন্ত পুরো নগরীতেই ভাগ্যের নির্মম পরিহাসের শিকার এসব মানুষদের দেখা মেলে। সাধারণ পথচারীদের অনেকেই এখন পথ চলাচলে থাকেন আতঙ্কে। বরিশাল শহরের বিভিন্ন ব্যবসাপ্রতিষ্ঠান ও ব্যক্তিবিশেষের ওপরে চড়াও হওয়ার অভিযোগ মিলেছে মানসিক ভারসাম্যহীনদের বিরুদ্ধে। বিশেষ করে তাদের যন্ত্রণায় এখন রীতিমত ওষ্ঠাগত প্রাণ অবস্থা শহরের রেস্তোরাঁ মালিকদের। সময় বিশেষে এসব ব্যবসাপ্রতিষ্ঠানে হানা দিয়ে খাবার সামগ্রী লুটে নেয়া বা ফেলে দেয়ার একাধিক উদাহরণ রয়েছে। কিন্তু মানসিক ভারসাম্যহীন হওয়ায় প্রশাসনও তাদের রহিত করতে অগ্রসর হচ্ছে না। ফলে তাদের দ্বারা শহরের বাসিন্দা বা পথচারীদেরও নির্যাতিত হওয়ার খবরও পাওয়া যাচ্ছে। সর্বশেষ সোমবার গভীর রাতে মানসিক ভারসাম্যহীন বিশোর্ধ্ব তরুণী লঞ্চঘাট লাগোয়া একটি হোটেলে হানা দিয়ে প্রথম দফায় খাবার নিয়ে নেয়। অবশ্য দোকানিও অনেকটা খশি মনে তার হাতে বেশ কয়েকটি পরোটা তুলে দিয়েছিলেন। কিন্তু বিধিবাম। পরক্ষণেই হানা দিয়ে সেই দোকানের ভেতরে ভোজনরত এক ব্যক্তির খাবার প্লেটে জগভর্তি পানি ঢেলে দেয় তরুণী। এমনকি এতে খুশি হয়ে লাফালাফিও শুরু করে। ফলশ্রুতিতে তরুণীর ওপর দোকান মালিক ক্ষেপে গিয়েছিলেন। কিন্তু মানসিক ভারসাম্যহীন বলে বিষয়টি বেশিদূর গড়ায়নি। তাছাড়া প্রত্যক্ষদর্শীরাও বিষয়টি মানবিক দৃষ্টিতে দেখার অনুরোধ রাখেন। তবে এতেই সীমাবদ্ধ না থেকে সেখানেই ওই তরুণী আর একটি অঘটনের জন্ম দেয়। পার্শ্ববর্তী এক যুবককে লক্ষ্য করে পাথর ছুড়েছে সে। কিন্তু ভাগ্যক্রমে সেই পাথর লক্ষ্যভ্রষ্ট হওয়ায় দুর্ঘটনার হাত থেকে বেঁচে যান ওই যুবক। একইভাবে আরও অন্তত ৪০ থেকে ৫০ জন মানসিক ভারসাম্যহীন নারী-পুরুষ নগরীর রুপাতলী, নথুল্লাবাদসহ বিভিন্ন এলাকায় ব্যবসায়ীদের অতিষ্ঠ করে তুলেছে। পাশাপাশি দিন বা রাতে প্রকাশ্যে পথচলতি শিশু-নারীদের সাথে অশ্লীল আচরণের কারণে অনেকেই ত্যক্ত-বিরক্ত। ঘটনাচক্রে শহরে দু/এক জনের বস্ত্রহীন রূপেও দেখা মিলে। এ ক্ষেত্রে বেদনাদায়ক বিষয় হচ্ছে, তাদের সেই দৃশ্য রাজপথে প্রত্যক্ষ করে শিশু সন্তানরা পিতা-মাতার কাছে প্রশ্ন রাখে- হেতু কি। এর উত্তর দেয়ার ক্ষেত্রে অভিভাবকদেরও বিভ্রান্তি বা বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হচ্ছে। যে কারণে কোনো নির্জন সড়কে তাদের দেখা মিললে অনেকেই উল্টোপথ ধরেন। কারণ তাদের দ্বারা বিব্রতকর পরিস্থিতিতে পড়ার সম্ভাবনা বেশি বলে অনুমেয়। এই মানসিক ভারসাম্যহীনদের বোঝাতে গিয়েও অনেকেরই হেনস্থা হওয়ার বিষয়টিও শোনা যাচ্ছে। ফলে তাদের প্রতি অনেকেরই মনে অসন্তোষ রয়েছে। কিন্তু মানবিকতার কারণে তাদের প্রতি নির্দয় হওয়ার উদাহরণ নেই বললেই চলে। বরং সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিয়েছেন অনেকে। এদিকে, বরিশাল সমাজ সেবার পক্ষ থেকে মানসিক ভারসাম্যহীন ব্যক্তিদের পুনর্বাসনে তোড়জোড়ের খবর শোনা গেলেও কার্যত তা দৃশ্যমান নয়। এ বিষয়ে বরিশাল সমাজসেবা অধিদপ্তরের সহকারী পরিচালক এ.কে.এম আখতারুজ্জামান তালুকদার বলেন, কিছু মানসিক প্রতিবন্ধীকে পুনর্বাসনের চেষ্টা করা হয়েছে এবং অনেককে পাবনার মানসিক হাসপাতালে পাঠিয়ে সেখান থেকে চিকিৎসা করানো হয়েছে। এ অবস্থায় বেসরকারি সংস্থার মাধ্যমে তাদেরকে পুনর্বাসনের আওতায় আনার কার্যকরী কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করা যায় কিনা, সে ব্যাপারেও ভেবে দেখা হচ্ছে বলে জানান তিনি। আখতারুজ্জামান আরও বলেন, বিষয়টি নিয়ে সমাজসেবা অধিদপ্তর খুবই আন্তরিকভাবে কাজ করছে, পাশাপাশি জেলা প্রশাসনের সাথে সমন্বয় করে কাজ করার সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে। মনোরোগ বিশেষজ্ঞ ডাঃ তপন কুমার সাহা বলেন, মনোরোগে আক্রান্ত মানুষদের প্রয়োজন যথাযথ পরিচর্যা, যা সম্ভব কেবল জনসচেতনতা বৃদ্ধির মাধ্যমেই।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।