আজকের বার্তা | logo

১লা পৌষ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৫ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং

নগর ভবনে মেয়রের সাথে সিইও’র বাগবিতণ্ডা

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ২৮, ২০১৮, ০১:৩২

নগর ভবনে মেয়রের সাথে সিইও’র বাগবিতণ্ডা

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) মেয়র আহসান হাবিব কামাল বিদায়ের আগে অস্থায়ী কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধি, অনুগত কর্মকর্তা-কর্মচারীদের পদোন্নতি, জমি ইজারা প্রদানসহ ১৭টি সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে উদ্যোগ নেয়ায় ফের নগর ভবন অশান্ত হয়ে উঠেছে। এসব সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নে মেয়র কামাল আগামী ২ অক্টোবর বর্তমান পরিষদের সাধারণ সভা ডেকেছেন। ওই সভার এজেন্ডার সঙ্গে ভিন্নমত পোষণ করায় সভা আহ্বানের চিঠিতে স্বার করেননি প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার (সিইও) দায়িত্বে থাকা বিসিসি সচিব ইসমাইল হোসেন। এ নিয়ে গতকাল বৃহস্পতিবার নগর ভবনে মেয়র ও সিইও এর মধ্যে উত্তপ্ত বাক্যবিনিময় হয়েছে। এমনকি সিইও-কে নগর ভবনে প্রবেশ করতে নিষেধ করে তাকে স্ট্যান্ড রিলিজেরও হুমকি দেন মেয়র কামাল। বিসিসি’র একাধিক কর্মকর্তা-কর্মচারী জানিয়েছেন, নবনির্বাচিত মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ-কে বিপাকে ফেলতে মেয়র কামাল সাধারণ সভার এজেন্ডায় নানা অযৌক্তিক বিষয় রেখেছেন। তারা বৃহস্পতিবার সিইও-কে স্ট্যান্ড রিলিজ ও সভা ডাকার কর্মসূচি পালনে বাধা দিয়েছেন মেয়রকে। আগামী ২ অক্টোবর আহ্বান করা সাধারণ সভার সিইও’র স্বারবিহীন চিঠিতে দেখা গেছে, সভায় আলোচনার জন্য মোট ১৭টি এজেন্ডা রাখা হয়েছে। তারমধ্যে উল্লেখযোগ্য হলো- বিসিসি’র দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিকদের উৎসব ভাতা প্রদান প্রসঙ্গে আলোচনা, ৫৪ জন নিরাপত্তা প্রহরীর মজুরি বৃদ্ধি, দৈনিক মজুরিভিত্তিক চালকদের বেতন বৃদ্ধি, বৈদ্যুতিক শাখায় নিয়োজিত দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিকদের ঝুঁকি ভাতা প্রদান, দৈনিক মজুরিভিত্তিক শ্রমিকদের মজুরি সমম্বয় করা, ওয়ার্ড কার্যালয়ে নিয়োজিত অফিস সহকারী-কাম-ডাটা এন্ট্রি অপারেটরদের পদের নাম সংশোধন ও তাদের পদমর্যাদা নির্ধারণ, ওয়ার্ড কার্যালয়ে কর্মরত অফিস সহায়কদের চাকরির ভবিষ্যত নিশ্চিতকরণ, সাবেক সিইও’র অবৈধভাবে রেস্ট হাউজে বসবাস, কাউনিয়ায় বিসিসি’র জমি একটি বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থাকে লিজ প্রদান প্রসঙ্গ এবং বিভিন্ন সড়কের নামকরণ। এ প্রসঙ্গে মেয়র আহসান হাবিব কামাল বলেন, ‘‘আমার পরিষদের শেষ সভা হবে আগামী ২ অক্টোবর। ওই সভায় অস্থায়ী কর্মচারীদের বেতন বৃদ্ধি ও সাবেক সিইও’র অবৈধভাবে রেস্ট হাউজ ব্যবহারসহ কয়েকটি গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্তের বিষয়ে আলোচনা হবে। সভা আহ্বানের চিঠিতে স্বার করতে অস্বীকার করায় সিইও’র সঙ্গে গতকাল নগর ভবনে আমার সঙ্গে বাগবিত-া হয়েছে।” মেয়র বলেন, ‘‘সিইও গত ১৪ আগস্ট খুলনা যুব উন্নয়ন অধিদপ্তরে বদলি হয়েছেন। এতদিন এ খবর গোপন রেখেছেন। যেহেতু তিনি এখন আর নগর ভবনের কেউ নন এজন্য তাকে অফিসে যেতে নিষেধ করেছি।’’ বিদায়ের আগ মুহূর্তে বেতন বৃদ্ধির কারণ জানতে চাইলে মেয়র কামাল বলেন, গত মার্চে কর্মচারীদের আন্দোলনের সময় তিনি বেতন বৃদ্ধির প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। এতে ব্যয় বাড়বে সামান্য। নগর ভবনের কর কর্মকর্তা কাজী মোয়াজ্জেম হোসেন বলেন, মেয়র বিদায়ের আগে ঢালাওভাবে তার স্বজনদের কর কমাচ্ছেন। গতকাল বেলা সাড়ে ১১টার দিকে সিইও-কে কক্ষে ডেকে জোর করে অযৌক্তিক এজেন্ডার সভায় স্বাক্ষর করানোর চেষ্টা করেন মেয়র কামাল। এমনকি বিকেল সোয়া ৩টায় সিইও’র সাথে অসৌজন্যমূলক আচরণ করে তাকে অফিসে আসতেও বারণ করেছেন। তারা কর্মকর্তা-কর্মচারীরা এ ধরনের কর্মকা-ে বাধা দিয়েছেন মেয়রকে। তিনি বলেন, নবনির্বাচিত মেয়র সাদিক’র উপর ব্যয়ের বোঝা চাপাতে বর্তমান মেয়র কামাল এমন সভা করার চেষ্টা করছেন। একই ধরনের কথা জানিয়েছেন নগর ভবনের নির্বাহী প্রকৌশলী আনিচুজ্জামান। এসব প্রসঙ্গে বিসিসি’র দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা (সিইও) ইসমাইল হোসেন বলেন, মেয়র সাধারণ সভা ডাকার জন্য নোটিশ প্রস্তুত করেছেন। কিন্তু তাতে তিনি (সিইও) স্বাক্ষর করেননি। তাকে অফিসে আসতে বারণ করা ও তর্কবিতর্ক প্রসঙ্গে বলেন, এসব বিষয়ে তিনি কোনো মন্তব্য করতে চাচ্ছেন না। বিসিসি’র দায়িত্বশীল একটি সূত্র জানিয়েছে, সাধারণ সভায় কয়েকজন কর্মকর্তা-কর্মচারীকে পদোন্নতি দেয়ার চেষ্টা করছেন মেয়র। ইতিমধ্যে আরাফাত মনির উপ সহকারী প্রকৌশলী পদ থেকে সহকারী প্রকৌশলী পদে পদোন্নতির জন্য আবেদন করেছেন। এ ব্যাপারে বিসিসি’র প্যানেল মেয়র মোশারফ আলী খান বাদশা বলেন, মেয়র কামাল নিয়মিত বেতন দিতে না পারায় এখনও কর্মকর্তা-কর্মচারীদের বেতন বকেয়া রয়েছে। তিনি এ সমস্যার সমাধান না করে নতুন করে বেতন বৃদ্ধি করতে পারেন না। এতে নগর ভবনের ব্যয় অনেক বেড়ে যাবে। বেতন বৃদ্ধি করতে হলে তা নবনির্বাচিত মেয়র সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ’র সঙ্গে আলোচনা করে সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত হওয়া উচিত।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।