আজকের বার্তা | logo

২৯শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৩ই ডিসেম্বর, ২০১৮ ইং

ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ, তবুও খুশি নয় বরিশালের ব্যবসায়ীরা

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ২৬, ২০১৮, ২৩:২৭

ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ, তবুও খুশি নয় বরিশালের ব্যবসায়ীরা

অনলাইন সংরক্ষণ  //  মৌসুমের অনেকটা শেষে এসে সাগরের পাশাপাশি নদীতেও ধরা পড়তে শুরু করেছে ঝাঁকে ঝাঁকে ইলিশ। এতে করে বরিশালের একমাত্র বেসরকারি বৃহৎ মৎস অবতরণ কেন্দ্রের পোর্ট রোডে ইলিশের আমদানি বেড়েছে। কিন্তু প্রজনন মৌসুমের নিষেধাজ্ঞার আর মাত্র কয়েক দিন বাকি থাকায় তাতেও খুশি নন বরিশালের ব্যবসায়ী ও জেলেরা।

ব্যবসায়ী ও জেলেদের মতে, অন্যান্য বছরে বৈশাখের পর থেকেই নদী ও সাগরে ইলিশের দেখা মিললেও নানা কারণে এবার তা পাওয়া যাচ্ছে আশ্বিনের শুরুতে। আবার মাত্র নয়দিন পর ছয় থেকে ২৮ অক্টোবর পর্যন্ত ইলিশ শিকারে ২২ দিনের নিষেধাজ্ঞা। এতে করে মৌসুমের জন্য খাটানো পুঁজি এই অল্প কয়েকদিনের ইলিশ শিকারে পুষিয়ে ওঠা কোনোভাবেই সম্ভব হবে না।

বুধবার (২৫ সেপ্টেম্বর) বরিশাল পোর্ট রোড মৎস অবতরণ কেন্দ্র ঘুরে দেখা গেছে, ভোর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত একটানা আশপাশের নদী ও সাগর থেকে ইলিশ বোঝাই ছোট বড় নৌযান এসে নোঙর করছে অবতরণ কেন্দ্র ঘিরে। প্রতিটি নৌযান থেকে শ্রমিকরা দ্রুত নামাচ্ছেন ইলিশ। যা পরে নিলাম/ডাক প্রক্রিয়ায় বিক্রি করা হচ্ছে। সাগর ও নদীর মাছ আলাদা আলাদাভাবে বিক্রি হচ্ছে, যার দরেও রয়েছে পার্থক্য।

ব্যবসায়ী মাসুম বেপারি বলেন, পাঁচ থেকে ছয়দিন ধরে বরিশালে প্রচুর পরিমাণে ইলিশ আসছে। যেখানে সাগরের পাশাপাশি বরিশালের কীর্তনখোলাসহ আশপাশের নদীর মাছও রয়েছে। মাছের আমদানি বাড়ায় এখন দামও কিছুটা কমে এসেছে। ঝিমিয়ে থাকা পোর্ট রোডে বেড়েছে কর্মচাঞ্চল্য। শুধু পোর্ট রোড নয়, পটুয়াখালীর কলাপাড়া, আলিপুর, মহিপুর মৎস বন্দরেও একই অবস্থা বিরাজ করছে বলে জানান তিনি।

পোর্ট রোডের মৎস্য ব্যবসায়ী নাসির উদ্দিন মিয়া বলেন, আগে শ্রাবণ, ভাদ্র ও আশ্বিন মাসে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়তো। কিন্তু কয়েক বছর ধরে সেই প্রেক্ষাপট পাল্টে গেছে।

প্রজনন মৌসুমের নিষেধাজ্ঞা পেছানোর দাবি জেলেদের রয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, জেলেদের এ দাবি থাকলেও হিসেব অনুযায়ী নিষেধাজ্ঞা অক্টোবরেই দিতে হবে। নয়তো ইলিশের প্রজননে বিরূপ প্রভাব পড়বে। আর এ নিষেধাজ্ঞা শেষ হলেও এবার নভেম্বরে প্রচুর ইলিশ ধরা পড়বে বলে আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

তবে নিষেধাজ্ঞার পর যদি ইলিশ না পাওয়া যায় তবে ব্যবসায়ীদের সীমাহীন ক্ষতির মুখোমুখি হতে হবে বলে জানিয়েছেন পোর্ট রোড মৎস্য আড়তদার অ্যাসোসিয়েশনের সাধারণ সম্পাদক নিরব হোসেন টুটুল।

বর্তমানে পাইকারি বাজারে মণ প্রতি এলসি সাইজ ইলিশ বিক্রি হচ্ছে ২৩ থেকে ২৫ হাজারে, এলসির নিচের সাইজের ইলিশ (ভ্যালকা) বিক্রি হচ্ছে ১৬ থেকে ১৭ হাজারে এবং এর নিচের সাইজ গোটলা বিক্রি হচ্ছে ১০ থেকে ১১ হাজার টাকায়।

আর এক কেজি সাইজের ইলিশ মণপ্রতি বিক্রি হচ্ছে ৪০ থেকে ৪১ হাজারে এবং ১২শ’ গ্রামের ইলিশ বিক্রি চলছে ৪৫ টাকায়।

এছাড়া এর ওপরে দেড় কেজি সাইজের ইলিশ ৬০ হাজার টাকা দরে মণপ্রতি বিক্রি চলছে।

তবে স্থানীয় নদীর ইলিশ এই দরের থেকে এক থেকে দুই হাজার টাকা বেশি দামে মণপ্রতি বিক্রি হচ্ছে। যদিও গত সপ্তাহে সব ধরনের ইলিশেরই মণপ্রতি তিন থেকে পাঁচ হাজার টাকা বেশি দাম ছিল।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।