আজকের বার্তা | logo

৫ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২০শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং

উপকূলের নদ-নদীতে ধরা পড়ছেনা কাঙ্খিত ইলিশ

প্রকাশিত : সেপ্টেম্বর ১৩, ২০১৮, ০১:১৪

উপকূলের নদ-নদীতে ধরা পড়ছেনা কাঙ্খিত ইলিশ

মোঃ বিল্লাল হোসেন, ভোলা প্রতিনিধি ॥ মৌসুম পেরিয়ে গেলেও উপকূলীয় নদ-নদীতে আগের মতো ধরা পড়ছে না কাঙ্খিত ইলিশ। শ্রাবণের ভরা পূর্ণিমায়  ইলিশ ধরা পড়বে বলে আশা করলেও সেই প্রত্যাশা পূরণ হয়নি জেলেদের। পিরোজপুরের বলেশ্বর ও সন্ধ্যা, ভোলার মেঘনা ও তেঁতুলিয়া, পটুয়াখালীর পায়রা, আন্দারমানিক ও আগুনমুখো এবং চাঁদপুরের মেঘনা ও ডাকাতিয়া নদীর মোহনাসহ ষাটনল এলাকার জেলেদের সাথে আলাপ করে জানা গেছে, জ্যৈষ্ঠ ও আষাঢ় মাসজুড়ে সময়টাই ইলিশের ভরা মৌসুম। কিন্তু সেই সময় পেরিয়ে গেছে অনেক আগেই। শ্রাবণের ভরা পূর্ণিমায় ধরা পড়ে ইলিশ। তাদের প্রত্যাশা ছিল ওই সময় অন্তত কিছু ইলিশ ধরা পড়বে। কিন্তু এই মৌসুমও চলে গেছে। নদীতে মিলছে না কাঙ্খিত ইলিশ। তবে সাগরে প্রচুর ইলিশ রয়েছে এবং ভাদ্র মাসের শেষের দিকের জোয়ারে কিছু মাছ নদ-নদীতে আসতে পারে বলে এখনো সেই আশায় বুক বেঁধে রয়েছেন জেলেরা। অপরদিকে নদীতে মাছ না পড়ায় দাদনের দেনার ভয়ে বহু জেলে ঘর-ভিটা ছেড়ে পালিয়ে বেড়ানোর পাঁয়তারা করছেন। জেলে পরিবারগুলোতে এখন দুর্দিন চলছে। দেনার দায়ে তারা মানবেতর জীবনযাপনের আশংকায় আছেন। অনেকেরই নিজস্ব জাল বা মাছ ধরার ট্রলার না থাকায় স্থানীয় মহাজনদের কাছ থেকে দাদন নিয়েছেন। কিন্তু নদীতে মাছ ধরা না পড়ায় এসব অঞ্চলের জেলেরা হতাশ হয়ে পড়েছেন। শুধু জেলেরাই নন, হতাশ হয়ে পড়েছেন বরিশাল বিভাগীয় শহরের বিভিন্ন অঞ্চলের মৎস্য সংশ্লিষ্ট ব্যবসায়ীরা। বড় ব্যবসায়ীরা ল ল টাকা দাদন দিয়েছেন আড়তদারদের, আবার আড়তদাররা ট্রলার বা নৌকা এবং জাল কিনে দিয়েছেন জেলেদেরকে। শুধু তাই নয়, মৎস্য সিজনে পরিশোধ করা হবে বলে মাসের পর মাস বাকি দিয়েছেন দোকানিরা। তারাও এখন হতাশায় দিন কাটাচ্ছেন। পল্লী চিকিৎসক মোঃ ইসমাইল হোসেনসহ একাধিক দোকানি জানান, তারা জেলেদেরকে মাসের পর মাস ওষুধ, কাঁচা বাজার, মুদি মালসহ নিত্য প্রয়োজনীয় মালামাল বাকি দিয়েছেন, কিন্তু জালে মাছ না পড়ায় জেলেরা সেই টাকা পরিশোধ করতে পারছেননা। গবেষকরা মনে করছেন, নদীর গতিপথ পরিবর্তন, জলবায়ুর নেতিবাচক প্রভাব, মাঝখানে নতুন চর জেগে ওঠার কারণে পানির স্রোত বাধা পাচ্ছে। এর ফলে প্রয়োজনের তুলনায় স্রোত কমে গেছে, ইলিশ সবসময় দলবেঁধে চলে। এই মাছ গতিপথ সবসময় সোজা রাখে। সোজা চলতে গিয়ে যদি বাধা পায়, তাহলে সাগরে ফেরত যায় ইলিশ। নদীতে চর জাগা ও স্রোত কমে যাওয়ায় সাগর থেকে ঝাঁক বেঁধে ইলিশ নদীর মোহনায় আসতে বাধা পাচ্ছে।  এছাড়া এ বছর তেমন বৃষ্টি না হওয়ায় ভরা মৌসুমেও নদীতে জেলেরা ইলিশের দেখা পাচ্ছেন না বলে মনে করছেন তারা।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।