আজকের বার্তা | logo

২৯শে কার্তিক, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৩ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং

স্থবির বরিশাল নগরভবন: নাগরিক সেবা বাধাগ্রস্ত

প্রকাশিত : আগস্ট ২৮, ২০১৮, ০১:৩২

স্থবির বরিশাল নগরভবন: নাগরিক সেবা বাধাগ্রস্ত

স্টাফ রিপোর্টার ॥ স্থবির হয়ে পড়েছে বরিশাল সিটি করপোরেশনের (বিসিসি) কার্যক্রম। সিটি নির্বাচনের পর থেকে নগরভবনের সেবা কার্যত থমকে আছে। বর্তমান মেয়র আহসান হাবিব কামাল মাঝে মধ্যে নগরভবনে ঢুঁ মারছেন। করপোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বদলি হওয়ায় ৮ আগস্ট থেকে পদটি শূন্য রয়েছে। সচিব এবং প্রশাসনিক কর্মকর্তা থেকে শুরু করে নানা পদের অনেকেই এখনও ছুটিতে। এ সুযোগে বিভিন্ন দপ্তরের কর্মকর্তারাও গা-ছাড়াভাবে দায়িত্ব পালন করছেন। যেকারণে নগরবাসীর সেবা কার্যক্রম অনেকাংশে অচল হয়ে পড়েছে। এমনকি কোরবানিতেও বেতন না পাওয়ায় ক্ষোভ বিরাজ করছে কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মাঝে। গতকাল সোমবার বেলা ১২টায় নগরভবনে দেখা হয় নগরীর বাসিন্দা এক ব্যাংক কর্মকর্তার সাথে। নাম প্রকাশ না করার শর্তে তিনি বলেন, তার হোল্ডিং ট্যাক্স ও পানির বিল নিয়ে সমস্যা হয়েছে। এ বিষয়ে কথা বলতে করপোরেশনের সিইও এর কার্যালয়ে গিয়ে জেনেছেন তিনি বদলি হয়েছেন। যিনি দায়িত্বে আছেন সেই সচিবও ছুটিতে। মেয়র তার কক্ষে নেই। প্রশাসনিক শাখায় গিয়েও কাউকে পাননি। একই ধরনের অভিযোগ করেন নগরভবনে সেবা নিতে আসা একাধিক ভুক্তভোগী। খোঁজ নিয়ে জানা গেল, মেয়র আহসান হাবিব কামাল তখন (সোমবার) পর্যন্ত আসেননি। প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো: ওয়াহিদুজ্জামান বদলি হওয়ায় ওই পদে গত ৮ আগস্ট থেকে দায়িত্বে আছেন সচিব মো: ইসমাইল হোসেন। কিন্তু তিনিও ঈদের আগ থেকে এখন পর্যন্ত ছুটিতে রয়েছেন। নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ইমতিয়াজ মাহমুদের কক্ষে খোঁজ নিয়ে জানা গেল, তিনি সকাল থেকে বিভাগীয় কমিশনার কার্যালয়ে সভায় আছেন। দায়িত্বপ্রাপ্ত প্রশাসনিক কর্মকর্তা আসমা আক্তার রুমি এবং উচ্চমান সহকারী লকিতুল্লাহও বর্তমানে ছুটিতে আছেন। করপোরেশনের দায়িত্বপ্রাপ্ত কর কর্মকর্তা আবুয়াল মাসুদ মামুনও মাসাধিককাল ছুটিতে আছেন। বিভিন্ন শাখায় ঘুরে দেখা গেল, কর্মকর্তারা না থাকার সুযোগে নিচের পদধারীরাও অনেকেই এখনও যেন ঈদের ছুটি কাটাচ্ছেন। যে কারণে অনেক দপ্তরের টেবিলই ফাঁকা দেখা গেছে। বিসিসি’র দায়িত্বশীল এক কর্মকর্তা জানান, গত ৩০ জুলাই সিটি নির্বাচনের পর থেকেই নগরভবনের কার্যক্রমে ধীরগতি এসেছে। মেয়র তেমন আসেন না। কর্মকর্তা-কর্মচারীরাও নতুন মেয়র এর দায়িত্বগ্রহণ এবং নগর ভবন পরিচালনার ধরন কেমন হবে তা নিয়ে ভাবনায় আছেন। এদিকে, কর আদায় না হওয়ায় জুন মাসের বেতনও হয়নি। যেকারণেও স্টাফরা ক্ষুব্ধ। আর এসব কারণে দুপুরের পর নগরভবনের অধিকাংশ দপ্তরেই কর্মকর্তা-কর্মচারীরা থাকছেন না। নগরীর ১৭ নং ওয়ার্ডের কাউন্সিলর ও নবনির্বাচিত কাউন্সিলর গাজী আক্তারুজ্জামান হিরু বলেন, সিটি নির্বাচনের পর তিনি নগর ভবনে কম যাচ্ছেন। বর্তমান মেয়রও কম যান করপোরেশনে। কিন্তু এরপরও নগরবাসীর সেবায় নগরভবনের কার্যক্রম চলমান থাকা দরকার। দায়িত্বপ্রাপ্তদের অবশ্যই দায়িত্ব পালন করতে হবে। তাদের অধিকাংশেরই এমন অনুপস্থিতি দু:খজনক। তিনি আশা করেন- নতুন পরিষদ আসলে এ ধরনের অচলায়তন থাকবে না। এ ব্যাপারে বরিশাল সিটি করপোরেশনের ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ও সচিব মো: ইসমাইল হোসেন বলেন, তিনি ছুটিতে আছেন। ২৯ আগস্ট অফিস করবেন। তিনি বলেন, সচিব হিসেবে তাকে ৩টি পদের দায়িত্বে থাকতে হচ্ছে। অলিখিতভাবে বর্তমানে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট প্রশাসনিক কার্যক্রম দেখছেন। সোমবার সকালে অফিস করে নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট বিভাগীয় কমিশনারের কার্যালয়ে সভায় গেছেন। এরপর লাঞ্চে আছেন। কর কর্মকর্তা ছুটিতে ছিলেন ১ মাসের। আরও ২ মাসের ছুটি চেয়েছেন ব্যক্তিগত কারণে। প্রশাসনিক কর্মকর্তা ছুটিতে কিনা তা তার জানা নেই। তিনি বলেন, নতুন প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা কবে নাগাদ দেয়া হতে পারে তা বলতে পারছেন না। এ অবস্থায় নাগরিক সেবা বাধাগ্রস্ত হচ্ছে কিনা এ বিষয়ে কোনো মন্তব্য করেননি ভারপ্রাপ্ত প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ইসমাইল হোসেন।

 

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।