আজকের বার্তা | logo

১লা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৫ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং

সুগন্ধা নদীর ভাঙনে হুমকিতে সেতু: প্রশাসনের জরুরি সভা: নদীগর্ভে বিলীন মাধ্যমিক বিদ্যালয়

প্রকাশিত : আগস্ট ২৯, ২০১৮, ০২:০৫

সুগন্ধা নদীর ভাঙনে হুমকিতে সেতু: প্রশাসনের জরুরি সভা: নদীগর্ভে বিলীন মাধ্যমিক বিদ্যালয়

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বরিশাল জেলার বাবুগঞ্জ উপজেলার রহমতপুর এলাকায় ঢাকা-বরিশাল মহাসড়ক সংলগ্ন বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতু সংলগ্ন সুগন্ধা নদীর ভাঙন প্রতিরোধে জরুরি সভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। গতকাল সন্ধ্যা সাড়ে ৭ টার দিকে বরিশাল জেলা প্রশাসকের বাংলোর অফিস কক্ষে এ সভাটি অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বরিশাল জেলা প্রশাসক মো: হাবিবুর রহমান। সুগন্ধ্যার ভাঙ্গনে বিদ্যালয় ভবন বিলীন হওয়া ও ঢাকা-বরিশাল মহাসড়কের সেতু হুমকির প্রেক্ষিতে প্রশাসন এই জরুরী সভা করে। সভায় সিদ্ধান্ত নেয়া হয়- সড়ক ও জনপথ বিভাগের বাস্তবায়ন ও অর্থায়নে পানি উন্নয়ন বোর্ডের কারিগরি সহায়তায় বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর সেতু সংলগ্ন ভাঙনকবলিত স্থানে পূর্বের ধারাবাহিকতায় জরুরিভিত্তিতে জিও ব্যাগ ফেলা হবে, ভাঙনকবলিত ব্রিজ থেকে অপেক্ষাকৃত দূরবর্তী স্থানে জরুরিভিত্তিতে জিও ব্যাগ ফেলবে পানি উন্নয়ন বোর্ড, পুরো এলাকায় নদী ভাঙন রোধে বাঁধ নির্মাণের লক্ষ্যে ডিপিপি ৭ দিনের মধ্যে মন্ত্রণালয়ে প্রেরণ করতে হবে। এছাড়াও ব্রিজ সংলগ্ন এলাকায় অবস্থিত সৈয়দ মোশাররফ-রশিদ একাডেমির অধিকাংশ অবকাঠামো নদীগর্ভে বিলীন হওয়ায় পার্শ্ববর্তী স্কুলের মালিকানাধীন জমিতে টিনশেড ঘর নির্মাণ করার ব্যবস্থা নেয়া হয়েছে। এ বিষয়ে জেলা প্রশাসন থেকে প্রয়োজনীয় সহযোগিতা প্রদান করা হবে বলে জানান বরিশাল জেলা প্রশাসক মো: হাবিবুর রহমান। সভায় উপস্থিত ছিলেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মোঃ ইকবাল আখতার, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) শহিদুল ইসলাম, জেলা শিক্ষা অফিসার মোঃ আনোয়ার হোসেন, বাবুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুজিত হাওলাদার, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী মোহাম্মাদ আবু সাঈদ, সড়ক ও জনপদের নির্বাহী প্রকৌশলী খন্দকার গোলাম মোস্তফা, সৈয়দ মোশাররফ-রশিদ একাডেমির প্রধান শিক্ষক মোঃ সেলিম রেজা, রহমতপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সরোয়ার মাহমুদ, এস. এস. আর একাডেমির সভাপতির প্রতিনিধি সৈয়দ জাহাঙ্গীর হোসেন বাবুল, বাবুগঞ্জ উপজেলা মাধ্যমিক শিক্ষা অফিসার মোঃ মহিউদ্দিন, বাবুগঞ্জ উপজেলা প্রকৌশলী মোঃ মাহমুদ আল ফারুক।

এদিকে আমাদের বাবুগঞ্জ প্রতিনিথি জহিরুল অরুন বলেন, বাবুগঞ্জের সুগন্ধা নদীর ভয়াবহ ভাঙনে রহমতপুর ইউনিয়নের মহিষাদী এলাকার সৈয়দ মোশারফ রশিদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। ২০০৩ সনে প্রতিষ্ঠিত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটির ওই দ্বিতল ভবনটি নির্মিত হয়েছিল এবং সেই থেকে নিয়মিত শিক্ষার্থীদের পাঠদান চলে আসছিল। গত ২৭ আগস্ট সোমবার সকাল থেকে ভবনটি ভাঙনে আক্রান্ত হয়। দিনভর ঝুঁকির পরিমাণ বেড়ে রাতে তা পুরোপুরি ভেঙে পড়ে। এতে বিদ্যালয়টির ২৭৬ জন শিক্ষার্থীর শিক্ষাজীবন হুমকির কবলে পতিত হয়েছে। ঈদ-উল-আজহার ছুটি শেষে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি আজ ২৯ আগস্ট খোলার কথা ছিল বলে জানিয়েছেন প্রতিষ্ঠানের প্রধান মোঃ সেলিম রেজা। তিনি বলেন, বিদ্যালয় যথা নিয়মে খোলা হবে এবং পাঠদানও চলবে, তবে খোলা আকাশের নিচে বিদ্যালয়ের আঙিনায়। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি ভাঙনের হুমকির কবলে পড়ার পূর্বেই সংশ্লিষ্ট সকল দপ্তরে ভাঙন রোধের জন্য আবেদন নিবেদন করেছিলেন প্রধান শিক্ষক সেলিম রেজা। তিনি আক্ষেপ করে বলেন, ‘‘যত অবেদন নিবেদন করেছি তাতে কোনো ফল হয়নি। ফলশ্রুতিতে আজ (ঘটনার দিন) প্রতিষ্ঠানটির একমাত্র দ্বিতল ভবনটি নদী ভাঙনে বিলীন হয়ে গেল।” শিক্ষা ভবনটি ভেঙে পড়ায় সবচেয়ে বেশি ক্ষতিগ্রস্ত হবে স্থানীয় শিক্ষার্থীরা। কারণ কাছাকাছি আর কোনো মাধ্যমিক শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান নেই। তাই প্রধান শিক্ষক সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষের কাছে শিক্ষার্থীদের শিক্ষা ব্যবস্থা চলমান রাখতে অতি জরুরি বিকল্প ব্যবস্থা  গ্রহণের জোর অনুরোধ জানিয়েছেন। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, ওই এলাকার মহিষাদী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়টিও ভাঙনের দ্বারপ্রান্তে দাঁড়িয়ে আছে। সবচেয়ে বড় বিপর্যয়ের মুখে আছে বীরশ্রেষ্ঠ শহীদ ক্যাপ্টেন মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর (দোয়ারিকা) সেতু। সেতুটি দক্ষিণ বঙ্গের সাথে ঢাকাসহ দেশের সর্বত্র যোগাযোগের মাধ্যম হিসেবে ব্যবহৃত হয়ে আসছে। এ ছাড়াও মহিষাদী গ্রামের একটি কার্পেটিং সড়ক ও মসজিদ ইতিমধ্যে নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেছে। স্থানীয়রা জানান, সৈয়দ মোশারফ-রশিদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি বহুদিন ধরে নদী ভাঙনের ঝুঁকিতে ছিল, কিন্তু স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা ভাঙন প্রতিরোধে কোনো ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ না করায় শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানটি নদীগর্ভে বিলীন হয়ে গেল। তবে ইতিমধ্যে সমাজ কল্যাণমন্ত্রী রাশেদ খান মেননকে বিষয়টি জানানো হলে তিনি বিভিন্ন দপ্তরকে অবহিত করেন। এদিকে, নদী ভাঙনে সৈয়দ মোশারফ-রশিদা মাধ্যমিক বিদ্যালয়টি বিলীন হওয়ার খবর শুনে ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন ডিও, পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী, উপজেলা চেয়ারম্যান সরদার মোঃ খালেদ হোসেন স্বপন, বাবুগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সুজিত হাওলাদার, কেন্দ্রীয় যুব মৈত্রীর সহ-সভাপতি মোঃ আতিকুর রহমান আতিকসহ বিভিন্ন মহল ও স্থানীয় হাজারো জনতা। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জানান, ‘‘ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি এবং ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষকে এ বিষয়ে অবহিত করেছি।” পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী অচিরেই ভাঙনরোধে যথাযথ ব্যবস্থা গ্রহণের আশ্বাস দিয়েছেন।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।