আজকের বার্তা | logo

৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৮ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং

সরোয়ারসহ ৫ মেয়র প্রার্থীর ভোট বর্জন

প্রকাশিত : জুলাই ৩১, ২০১৮, ০৩:৪৩

সরোয়ারসহ ৫ মেয়র প্রার্থীর ভোট বর্জন

স্টাফ রিপোর্টার ॥ বরিশালে গতকাল সোমবার বিচ্ছিন্ন কিছু ঘটনার মধ্য দিয়ে সিটি নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। বেলা সাড়ে ১২টার দিকে নানা অভিযোগ এনে বিএনপি প্রার্থী, জাপার বহিষ্কৃত প্রার্থী, ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশ, কমিউনিস্ট পার্টি ও বাসদের মেয়র প্রার্থী ভোট বর্জন করেন। মেয়র প্রার্থীরা নির্বাচন অফিসে গিয়ে ভোট স্থগিতের আবেদন করেন। রিটার্নিং কর্মকর্তা মো: মুজিবর রহমান জানিয়েছেন, অভিযোগগুলো তিনি আমলে নিয়েছেন। বেলা পৌনে ১টায় শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবে এক সংবাদ সম্মেলনে নির্বাচন প্রত্যাখ্যান করে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন বিএনপির মেয়র প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ার। সংবাদ সম্মেলনে তিনি বলেন, সকাল থেকে তার এজেন্টদের ঢুকতে দেয়া হয়নি। প্রশাসনের ন্যাক্কারজনক ভূমিকায় নৌকায় সিল মারতে পেরেছে আ’লীগের বহিরাগতরা। ৭০ থেকে ৮০টি কেন্দ্রে ভোট শুরু না হতেই ব্যালটে নৌকার সিল মেরে বাক্স ভর্তি করা হয়েছে। তিনি বলেন, ‘‘আমরা আগেই বলেছিলাম এখানে প্রধানমন্ত্রীর আত্মীয় প্রার্থী, তাই সুষ্ঠু নির্বাচন অসম্ভব। এমন ভোটে সারা বরিশালের মানুষ হতাশ।” সরোয়ার’র দাবি, ‘‘ভোট তো শুরু করতেই দেয়নি, শেষ হবে কিভাবে।” একইভাবে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন অন্যান্য প্রার্থীরাও। ইসলামী আন্দোলনের প্রার্থী মাওলানা ওবাইদুর রহমান মাহবুব অশি^নী কুমার হলের সামনে সংবাদ সম্মেলন করে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন। তিনি দাবি করেন, ভোট শুরু হওয়ার পর পরই হাতপাখা প্রতীকের পোলিং এজেন্টদের কেন্দ্র থেকে বের করে দেয়া হয়েছে। নগরীর ১২৩ কেন্দ্রের সবগুলোতে ভোটারদের ব্যালট নিয়ে মেয়র প্রার্থীর ব্যালট নৌকা প্রতীকের কর্মীরা সিল মেরে দিয়েছেন। বাসদ এর মেয়র প্রার্থী ডা. মনীষা চক্রবর্ত্তী দুপুরে দলীয় কার্যালয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করে ভোট বর্জনের ঘোষণা দিয়ে বলেন, তার দলে ১০২ জন এজেন্টকে কোন কেন্দ্রেই প্রবেশ করতে দেয়া হয়নি। বরং ভোট শুরুর পরপরই ১২৩টি কেন্দ্রে আওয়ামী লীগের সমর্থকরা ব্যালট পেপার নিয়ে নৌকায় সীল দেয়। প্রত্যেকটি কেন্দ্রই প্রশাসন ছিল নির্বিকার। ডা. মনীষা বলেন, সরকারি বালিকা বিদ্যালয়ে আওয়ামী লীগের ভোট ডাকাতি ঠেকাতে গেলে তাকে লাঞ্ছিত করা হয়। কমিউনিস্ট পার্টির মেয়র প্রার্থী অ্যাড. আবুল কালাম আজাদ ভোট কারচুপির অভিযোগ করে ভোট বর্জনের ঘোষণা দেন বেলা দেড়টায়। তিনি শহীদ আবদুর রব সেরনিয়াবাত বরিশাল প্রেসক্লাবে সাংবাদিক সম্মেলন করে অভিযোগ করেন, নগরীর ১২৩টি কেন্দ্রে সরকারি দলের নগ্ন ভোট ডাকাতি নির্বাচনকে অগ্রহণযোগ্য করে তুলেছে। এদিকে বেলা সোয়া ১টায় নগরীর প্রাণ কেন্দ্র সদর রোডে বিএনপি ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের মেয়র প্রার্থীর সমর্থকরা ভোটাধিকারের দাবিতে বিক্ষোভ মিছিল করেন। এসময় তারা ‘ভোট চোর, ভোট চোর’ বলে সেøাগান দেন। এক পর্যায়ে আ’লীগ নেতাকর্মী ও ইসলামী আন্দোলন বাংলাদেশের কর্মীদের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়। বেলা দেড়টার দিকে বিএনপির মেয়র প্রার্থী মজিবর রহমান সরোয়ার নেতাকর্মীদের সাথে নিয়ে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে পৌঁছান। সেখানে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো: মুজিবর রহমানের হাতে ভোট স্থগিতের জন্য লিখিত আবেদন করেন। পরে মেয়র প্রার্থী তাপস, মাহবুব ও মনীষাও পৃথকভাবে রিটার্নিং কর্মকর্তার কার্যালয়ে গিয়ে ভোট স্থগিত করার দাবি জানান। এসব প্রসঙ্গে রিটার্নিং কর্মকর্তা মো: মুজিবর রহমান বলেন, সকালে ভোটকেন্দ্রগুলোতে কিছুটা বিশৃংখলা ছিল। যেসব কেন্দ্রে বিশৃংখলা হয়েছে সেগুলো বন্ধের নির্দেশ দেয়া হয়েছে। তবে এ ওয়াহেদ মাধ্যমিক বিদ্যালয় কেন্দ্রের ভোট স্থগিত রাখা হয়েছে। তিনি বলেন, কয়েকটি কেন্দ্রে পোলিং এজেন্ট ছিল না। তবে প্রার্থীদের এজেন্ট কেন্দ্রে না পৌঁছালে তাতে তাদের কিছুই করার নেই। তিনি বলেন, নির্বাচন কমিশনকে সার্বিক বিষয় অবহিত করেছেন। মেয়র প্রার্থীদের ভোট স্থগিতের আবেদনও আমলে নিয়েছেন। তবে স্থগিত হবে কি না এর সিদ্ধান্ত দিবে কমিশন। এর আগে সকালে ভোটপ্রদানকালে জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদ ব্যক্ত করেন আওয়ামী লীগের মেয়রপ্রার্থী সেরনিয়াবাত সাদিক আবদুল্লাহ। সরকারি বরিশাল কলেজে ভোট দেয়ার পর সাংবাদিকদের উপস্থিতিতে ভোট দেওয়ার পর বিজয় সূচক ‘ভি’ চিহ্ন দেখিয়ে সাদিক বলেন, ‘‘জয়ের ব্যাপারে শতভাগ আশাবাদী আমি। নৌকার বিজয় হবেই।” সাদিক আবদুল্লাহ বলেন, ‘‘বরিশাল সিটিতে শান্তিপূর্ণ ভোট হয়েছে। ফলাফল যাই হোক আমি মেনে নেবো।”

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।