আজকের বার্তা | logo

৩০শে শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৪ই আগস্ট, ২০১৮ ইং

কুয়াকাটায় ১৫ দিন আটকে রেখে তরুণীকে ধর্ষণ

প্রকাশিত : জুলাই ১৬, ২০১৮, ০১:৫০

কুয়াকাটায় ১৫ দিন আটকে রেখে তরুণীকে ধর্ষণ

কলাপাড়া ও কুয়াকাটা প্রতিনিধি ॥ সৎ মায়ের যাতনা সইতে না পেরে কাজের জন্য কুয়াকাটায় এসে বরগুনার পাতাকাটা গ্রামের এক তরুণী সর্বস্ব খুইয়েছেন। তাকে টানা ১৫ দিন খাবার হোটেলে কাজের প্রলোভন দেখিয়ে ধর্ষণ করার অভিযোগ উঠেছে। এক নির্যাতন থেকে বাঁচতে ঘর ছেড়ে জীবনের সম্ভ্রমসহ সবকিছু হারিয়ে এখন জীবন বাঁচাতে রবিবার খুব সকালে ওই তরুণী আশ্রয় নেন কুয়াকাটা পৌর এলাকার এক বাড়িতে। সেখান থেকে প্রথমে স্থানীয়রা উদ্ধার করে পৌর মেয়র আব্দুল বারেক মোল্লার বাড়িতে নিয়ে যান তাকে। সেখান থেকে মহিপুর থানা পুলিশে হস্তান্তর করা হয়েছে বলে স্থানীয়দের দাবি। কিন্তু মহিপুর থানার ওসি মিজানুর রহমানা জানান, তার কাছে কোনো তরুণীকে কেউ পৌঁছে দেয়নি। তবে অভিযোগের বিষয়টি লোকমুখে জানতে পেরে তিনি খোঁজ-খবর করছেন। অপরদিকে অভিযুক্ত ব্যবসায়ী শাহজাহান ও সেলুন মালিক শাহআলম দোকানপাট বন্ধ করে গা-ঢাকা দিয়েছেন। খাবার হোটেল মালিক শাহজাহান ও সেলুন মালিক শাহআলম ওই তরুণীকে জিম্মি করে হোটেলের কাজ শেষে রাতের বেলা প্রাণনাশের হুমকি দিয়ে ধর্ষণ করতেন বলে উদ্ধার হওয়া তরুণী জানান। এর মধ্যে ১০দিন ওই তরুণীকে মহিপুরে শাহজাহানের আরেকটি দোকানে নিয়ে আটকে রাখা হয়। পরে আবারো কুয়াকাটায় নিয়ে আসলে সুযোগ পেয়ে তরুণী শাহআলমের হোটেলের পাশের এক দোকানের বাবুর্চি সালাম ও খলিলের বাসার পাশের মহিলাদের কাছে গিয়ে প্রাণ বাঁচাতে আকুতি জানান। উদ্ধারকারী একজন খলিল জানান, ‘‘বাসার অন্যান্য মহিলাদের কাছে বিষয়টি জানতে পেরে তাকে (মেয়েটিকে) মেয়র সাহেবের বাসায় নিয়ে যাই।” পৌরসভার কাউন্সিলর শাহআলম জানান, অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে এর আগেও এমন অভিযোগ তিনি শুনেছেন। মেয়র আব্দুল বারেক মোল্লা জানান, ওই মেয়েটিকে যখন তার বাসায় নেয়া হয়েছে তখন তিনি বাসায় ছিলেন না। তাই ফোন করে মেয়েটিকে থানায় পৌঁছে দেয়ার জন্য বলেছেন। ইউসুফ নামের এক ব্যক্তি আনুমানিক ১১ টার দিকে ওই তরুণীকে খলিল নামের এক ভাড়াটে হোন্ডাচালকের মাধ্যমে থানায় পৌঁছে দেন। মহিপুর থানার ওসি মিজানুর রহমান জানান, মেয়েটি এখন পর্যন্ত তার কাছে পৌঁছেনি। তবে তিনি লোকমুখে এমন একটি ঘটনা শুনেছেন। অভিযুক্তদের ধরে আনার জন্য নির্দেশ দিয়েছেন। আর ভিকটিমকে পেলে মামলা নেয়া হবে। এদিকে একাধিক সূত্র বলেছে, ওই মেয়েকে তার সৎ মায়ের যোগসাজশে একটি প্রভাবশালী মহল সরিয়ে দেয়ার চেষ্টা করছে। অভিযুক্তদের বাঁচানোর জন্য চলছে নানান কৌশল। বর্তমানে এনিয়ে চলছে বিভিন্ন ধরনের নাটক। তবে ভিকটিম এবং উদ্ধারকারীদের জবানবন্দি ভাইরাল হয়ে গেছে বিভিন্ন মাধ্যমে। অভিযুক্তদের একজন শাহআলম জানান, বিষয়টি একটি ষড়যন্ত্র। সম্পূর্ণ মিথ্যা। তিনি এ ঘটনা বিকাল পাঁচটার দিকে তার স্ত্রীর কাছ থেকে শুনে হতবাক বনে গেছেন বলে দাবি করেন।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।