আজকের বার্তা | logo

৬ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং

মাদক বিরোধী অভিযান: কী ভাবছে সাধারণ মানুষ?

প্রকাশিত : জুন ০২, ২০১৮, ১৯:২১

মাদক বিরোধী অভিযান: কী ভাবছে সাধারণ মানুষ?

নিউজ ডেস্ক: ৩১ জানুয়ারি জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মাদকের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা ও মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত  কাউকে ক্ষমা না করার নির্দেশনার পর ১লা মার্চ থেকে তথ্য মন্ত্রণালয় কর্তৃক প্রচারণামূলক কার্যক্রম পরিচালনার সাথে সাথে ১৪ মে আনুষ্ঠানিকভাবে মাদকবিরোধী অভিযান শুরু হয় সারা দেশব্যাপী। ধরা পড়তে শুরু করে মাদক ব্যবসার সাথে জড়িত ব্যক্তিরা।

এমনকি বড় ধরনের অভিযান পরিচালনার ক্ষেত্রে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সাথে সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়লে কিছু মাদক ব্যবসায়ী নিহত হলেও সাধারণ মানুষ নিরবে লক্ষ যুবকদের হত্যাকারী ঘৃণ্য এই মাদক ব্যবসায়ীদের মৃতুতে অখুশি হয়নি বরং স্থায়ীভাবে মাদকের করাল গ্রাস থেকে যুব সমাজকে রক্ষার স্বার্থে তা মেনে নিয়েছে।

কিন্তু বিএনপি ও সমমনা দলগুলো একে সাধুবাদ না জানিয়ে উল্টো মাদক বিরোধী অভিযানের মাঝেও রাজনীতি দেখতে পায়। শুরু করে সমালোচনা। প্রশ্নবিদ্ধ করার অপচেষ্টায় লিপ্ত হয়। তবে সাধারণ মানুষ কী ভাবছে মাদক বিরোধী এই অভিযান নিয়ে?

বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থী শাকিল ও তন্দ্রা বলেন: এই অভিযানকে স্বাগত জানাই। আমাদের মতো হাজার হাজার স্টুডেন্টদের হাতে যারা এই মরণ নেশা তুলে দিয়েছে তাদের শেকড় উপড়ে ফেলা উচিৎ।

চাকুরিজীবী হাসান আহমেদ ও ঝর্ণা আকতার বলেন: আফসোস! এই অভিযান আরো অনেক আগেই যদি শুরু হতো, তবে আমাকে আমার ভাই/সন্তান হারাতে হতো না।

একজন সাধারণ ব্যবসায়ী আলাল মিয়া বলেন: প্রকৃত মাদক ব্যবসায়ীদেরকে গুলি করেই মারা উচিৎ। এদের জন্য আমাদের ছোট ভাই ও সন্তানরা ধুকে ধুকে মরছে। একটা পরিবার ধ্বংস হয়ে যাচ্ছে।

অপর একজন ব্যবসায়ী রাশেদ খান বলেন: অনেকেই অভিযানে মাদক ব্যবসায়ীরা নিহত হলে তার সমালোচনা করছেন। বলছেন, তাদের বিচারের সম্মুখীন করতে। আমি জানি আইনশৃঙ্খলা বাহিনীও সে চেষ্টাই করছে, কিন্তু মাদক ব্যবসায়ীরা তাদের উপর হামলা করলে কি তারা বসে থাকবে? এ ছাড়া আমি মনে করি, স্থানীয় চিহ্নিত মাদক ব্যবসায়ীদের সকলেই চেনেন। তারা অনেক প্রভাবশালী। গ্রেফতার করে নিয়ে গেলেও দুদিন পর জামিন পেয়ে আবার সেই কাজেই লিপ্ত হচ্ছে। তাই যে যাই মনে করুক, অমি মনে করি এদের সত্যিই ক্রসফায়ারেই শেষ করে দেয়া উচিৎ।

একজন সাধারণ গৃহিনী আসমা আহমেদ বলেন: আমার সন্তানকে যারা তিলে তিলে শেষ করে দিচ্ছে মানবাধিকারের নামে তাদের প্রতি কোনো মায়া দেখানো উচিৎ হবে না। একটা জাতিকে যারা নিঃশেষ করে দেয় তাদের আবার কিসের মানবাধিকার?

একজন বাবা কাতর স্বরে বলেন: আমি আমার সন্তান হারিয়েছি এই মাদকের ছোবলে। আমার মতো আরো অনেক বাবা-মা তাদের সন্তানদের অকালেই হারিয়েছেন। কিন্তু আজ যারা এই অভিযানকে রাজনৈতিক বিচারে প্রশ্নবিদ্ধ করছেন তারা আসলে কী চান বুঝি না। তাই যারা সরকারের এই ভালো উদ্যোগকে বাধার সৃষ্টি করছেন তাদেরকেও আইনের আওতায় আনা উচিৎ।

সন্তানহারা এই পিতা আরো বলেন, হ্যাঁ, একটি ন্যায়যুদ্ধে অনিচ্ছাকৃত কিছু ভুল হয়ে যেতে পারে। সেদিকেও সরকারকে সতর্ক হতে হবে যাতে নিরপরাধ কোনো ব্যক্তি অবিচারের শিকার না হন।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।