আজকের বার্তা | logo

১লা শ্রাবণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৫ই জুলাই, ২০১৮ ইং

তিস্তা নিয়ে ভারতকে মনস্তাত্বিক চাপে ফেললেন শেখ হাসিনা’

প্রকাশিত : জুন ০৩, ২০১৮, ১৭:৪৭

তিস্তা নিয়ে ভারতকে মনস্তাত্বিক চাপে ফেললেন শেখ হাসিনা’

নিউজ ডেস্ক: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দুই দিনের ভারত সফর শেষে ২৬ মে রাতে দেশে ফিরেছেন। ভারত সফরে তিনি সে দেশের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি, পশ্চিমবাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে সাক্ষাৎ করেছেন, একান্ত বৈঠক করেছেন। কিন্তু এসব বৈঠকে তিস্তার পানিবণ্টন নিয়ে কোনো আলোচনা না হওয়ায় বিএনপি বলছে, ‘তিস্তা সমস্যার সমাধান না করতে পারা সরকারের ব্যর্থতা। সরকারের নতজানু পররাষ্ট্রনীতির এক চিত্র।

ভারতের প্রধানমন্ত্রী বা পশ্চিমের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সাথে কী আলোচনা হয়েছে বা হয়নি তার আনুষ্ঠানিক কোনো বক্তব্য কারো তরফ থেকেই প্রকাশ করা না হলেও এ নিয়ে চলছে আলোচনা ও সমালোচনা। বাংলাদেশে বিএনপির তরফ থেকে তিস্তা নিয়ে আলোচনা হয়নি বলে নেতিবাচক সমালোচনা করা হলেও ভারতের গণমাধ্যমে এসেছে তার ভিন্ন ব্যাখ্যা।

এবারের সফর ছিলো ভিন্ন প্রেক্ষাপটে। এই সফরে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রী শান্তিনিকেতনে বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধন করেছেন। আসানসোলে কবি নজরুল বিশ্ববিদ্যালয় বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রীকে সম্মানসূচক ডি-লিট উপাধি দিয়েছে। এরকম একটি সাংস্কৃতিক মধুর পরিবেশে বাংলাদেশ তিস্তার ইস্যু আনতে চায়নি।

এছাড়া ক’দিন আগেই লন্ডনে কমনওয়েলথ সরকার প্রধানদের সম্মেলনে দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে নরেন্দ্র মোদি বলেছিলেন, তিস্তার চুক্তির জন্য কাজ চলমান আছে। এজন্য তার একটু সময় প্রয়োজন। তাই বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী স্বল্প সময়ের ব্যবধানে নতুন করে বিষয়টি উত্থাপন না করে মূলত কূটনৈতিক শিষ্টাচার বজায় রেখেছেন।

অন্যদিকে ভারতে এখন বিজেপি এবং তৃণমূল কংগ্রেসের তীব্র মতবিরোধ চলছে। এই অবস্থায় তিস্তা চুক্তি উত্থাপনে বাংলাদেশের ক্ষতি ছাড়া লাভ হওয়ার সম্ভাবনা নেই।

সর্বোপরি তিস্তা পানি প্রবাহ নিয়ে একটি উচ্চ পর্যায়ের জরিপ কাজও প্রায় শেষ পর্যায়ে। আগামী জুন নাগাদ এই কমিটি ভারতের কেন্দ্রীয় সরকার ও পশ্চিমবঙ্গ সরকারকে রিপোর্ট দেবে। সে পর্যন্ত এ আলোচনাই অর্থহীন।

ভারতের জনপ্রিয় টেলিভিশন চ্যানেল এনডিটিভির খবরে বলা হয়, শেখ হাসিনা বাংলাদেশ ভবন উদ্বোধনের পর বলেছেন, ‘দুই দেশের মধ্যে বহু সমস্যার সমাধান হয়েছে। কিছু সমস্যা এখনও অমীমাংসিত রয়ে গেছে। তবে আমি সেসব বিষয় তুলে এই সুন্দর অনুষ্ঠানকে ম্লান করতে চাই না।’

শেখ হাসিনার এই বক্তব্যের কথা উল্লেখ করে এনডিটিভির খবরে বলা হয়, ‘কোনো শব্দ উচ্চারণ না করেই শক্ত বার্তা দেওয়ার দারুন একটি উদাহরণ হতে পারে এটি। তিস্তা শব্দটি উচ্চারণ না করেও বার্তাটি দিয়ে দিয়েছেন তিনি। ভারতের জন্য এটি অবশ্যই একটি বড় মনস্তাত্বিক চাপ।’

তাই রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা বলছেন, কখন কোথায় কিভাবে কী কথা উত্থাপন করতে হয় এবং তার কদর কেমন হয় বঙ্গবন্ধুকন্যা শেখ হাসিনা তা ভালোভাবে জানেন বলেই হয়তো অসময়ে বিষয়টি সরাসরি উত্থাপন না করেই অর্থবোধক ও ইঙ্গিতপূর্ণ শব্দে ভারতকে মনস্তাত্বিক চাপে ফেলেছেন, যা তাদের গণমাধ্যমও স্বীকার করেছে।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।