আজকের বার্তা | logo

৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৮ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং

বরিশালে পথে পথে ভিক্ষা করছে পটুয়াখালীর পঙ্গু ইউসুফ রাজা

প্রকাশিত : মে ১২, ২০১৮, ২২:২৯

বরিশালে পথে পথে ভিক্ষা করছে পটুয়াখালীর পঙ্গু ইউসুফ রাজা

অনলাইন সংরক্ষণ //  র্দীঘ ৪৭ বছর ধরে বিচার চেয়ে না পেয়ে বর্তমানে বরিশাল নগরের বিভিন্ন অলিতে গলিতে ভিক্ষাবৃত্তি করে দিন কাটাচ্ছে পটুয়াখালীর জেলার শারিকখালী’র ইউসুফ রাজা। রাজাকারদের নির্যাতনের চিহ্ন বয়ে বেড়াচ্ছেন আজও। অপর দিকে পটুয়াখালী’ড়[ জেলার চিহ্নিত রাজাকার ও আন্তর্জাতিক অপরাধ (ট্রাইব্যুনাল) আইন ১৯৭৩এর ৩ ধারাসহ মানবতা বিরোধী অপরাধে অভিযুক্ত জেলার শারিকখালী এলাকার আমিন উদ্দিন রাজার পুত্র মো: আলী আকবর রাজা ও তার সঙ্গীরা কিছু দিন ঘাপটি মেরে থাকার পর বর্তমানে আবারো বেপয়োরা হয়ে উঠেছে। বাংলাদেশ আ’লীগের নেতৃতাধীন বর্তমান সরকার যখন মানবতা বিরোধী মামলায় একের পর এক বিচার কার্য সমাধান করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দিয়ে যাচ্ছেন তখন কি করে এই অভিযুক্তরা বুক ফুলিয়ে প্রকার্শে তাদের কার্যক্রমকে অব্যাহত রাখছেন সেই প্রশ্ন পটুয়াখালী বাসির। স্থানীয় সূত্র জানায়,স্বাধীনতা যুদ্ধকালীন সময়ের পটুয়াখালী ফরেস্ট অফিসের বোটম্যান ও পুয়াখালীর শান্তি কমিটির চেয়ারম্যান মোতাহার খন্দকারের ডান হাত খ্যাত আলী আকবর রাজা তার দুই সহযোগী ছত্তার প্যাদা ও আউয়াল মৌলভী যৌথভাবে হানাদার বাহিনীকে নিয়ে জেলা জুড়ে বাড়ি ঘর লুটতরাজ ও অগ্নি সংযোগ করতো এবং বাংঙ্গালী নারীদের ধর্ষনে সহযোগীতা করতো।

অভিযুক্তরা ইটবাড়ীয়া ইউনিয়নের কুরিরখাল গুদিঘাটে একটি রাজাকারের সসস্ত্র বাংকার তৈরি করে এলাকা পাহারা দিতো। তাদের কার্যকলাপের প্রতিবাদ করায় ১৯৭১ সালের পহেলা সেপ্টেম্বর অনুমানিক বিকাল ৩ টায় স্থানীয় নৈইম উদ্দিন রাজা’র পুত্র ইউসুফ রাজাকে তাহার বসত ভিটা হইতে রাইফেল, বন্ধুক, ধারালো দেশিয় অস্ত্র সহকারে বাড়ি হইতে তুলিয়া নিয়া হত্যা করার উদ্দেশে গুলি করিলে ইউসুফ রাজা প্রান বাঁচানোর উদ্দেশে পাশ^বর্তী কুরির খালে ঝাপ দিলেও ছোড়া গুলি তার হাটু ভেদ করে। পরবর্তীতে চিকিৎসকরা তার পা দুই’টি কাটিয়ে ফেলিলে বর্তমানে ইউসুফ রাজা বরিশাল শহরে ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবন নির্বাহ করছেন। ওই ঘটনার সময় অভিযুক্তরা ইউসুফ রাজার বাড়ী হইতে নগদ ৬ শ’ টাকা ও ৪ শত টাকা মূল্যমানের সাড়ে তিন ভড়ি স্বর্নালংকার লুট করে নেন বলে আদালতে অভিযোগ করেন স্থানীয় আদম আলী রাজা’র পুত্র আঃ মজিদ। সরজমিনে গিয়ে জানা যায়, এক সময়ের চিহ্নিত হানাদারদের সহযোগী উল্লেখিত অভিযুক্তরা বর্তমানে এলাকায় জমি দখলসহ বিভিন্ন অপরাধ মূলক কর্মকান্ডে জড়িত রয়েছেন। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক স্থানীয় এক বিধবা জানায়, যুদ্ধের সময় আলী আকবর আমার স্বামীকে ধরে নিয়ে গিয়েছিলো। আমরা এখন পর্যন্ত তার লাশও খুজে পাইনি।

শুধু আঃ মজিদ ও ইউসুফ রাজা’রই নয়,আলী আকবর রাজার নেতৃত্বে ছত্তার প্যাদা,আউয়াল মৌলভীসহ অজ্ঞাত ব্যাক্তিরা স্থানীয় জগ্নেশ^র ধুপি,রতেœশ^র ধূপি, ক্ষিতিশ ধূপি,অনন্ত ধূপির বাড়িঘর লুট করে গরু ছাগল হাঁস মুরগী নিয়ে হানাদারদের ক্যাম্পে সরবারহ করতো। অভিযুক্তরা মহান মুক্তযোদ্ধের ৯ মাস পাকিস্তান জিন্দাবাদ স্লোগান দিয়ে এলাকার বিভিন্ন বাড়িতে অগ্নি সংযোগ,বাড়িঘর লুট পাট ,নারী ধর্ষনসহ বিভিন্ন অপকর্ম করিত বলে অভিযোগ করেন প্রতিবেশি আঃ মজিদ। তিনি কান্না জড়িত কণ্ঠে বলেন, মৃত্যুর পূর্বে হলেও বর্তমান সরকারের আমলে এই সব ঘৃনিত অপরাধীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি দেখে যেতে চাই। এব্যাপারে স্থানীয় প্রবীন মুক্তিযোদ্ধারা সঠিক তদন্ত পূর্বক উক্ত অপরাধীদের বিরুদ্ধে প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা গ্রহন করার জন্য মুক্তিযোদ্ধা মন্ত্রনালয়সহ সরকারের উর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের জরুরি হস্ত ক্ষেপ কামনা করছেন।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।