আজকের বার্তা | logo

৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৮ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং

বরিশাল বিভাগের ১৩৩টি পুকুর পুনঃখনন ও সংস্কার শুরু

প্রকাশিত : এপ্রিল ২৯, ২০১৮, ২২:২৪

বরিশাল বিভাগের ১৩৩টি পুকুর পুনঃখনন ও সংস্কার শুরু

অনলাইন সংরক্ষণ//পানি সঙ্কট মোকাবিলা ও সুপেয় পানি সরবরাহ নিশ্চিতকরণে বরিশালসহ বিভিন্ন জেলার উপকূলীয় ১২টি উপজেলায় ৩৬১টি পুকুর পুনঃখনন ও সংস্কার কাজ শুরু হয়েছে। প্রতিটি পুকুর খননে ৩০ লাখ টাকা করে বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে। মোট ব্যয় হবে ১০৮ কোটি ৩০ লাখ টাকা।

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের তত্ত্বাবধানে পুকুর পুনঃখনন কাজের টেন্ডার আহ্বান করবে জেলা পরিষদ।

গত জানয়ারি মাসে শুরু হওয়া পুকুর পুনঃখনন ও সংস্কার কাজ বর্ষা মৌসুমে আগেই শেষ করার জন্য তাগিদ দেওয়া হয়েছে। এরপরই পিএসএফ (পুকুরের পানি পাইপের মাধ্যমে তোলার ব্যবস্থা) স্থাপনের মাধ্যমে এই অঞ্চলে পানি সরবরাহ নিশ্চিত করা হবে।

উপকূলীয় জেলাগুলোর মধ্যে খুলনায় ২২টি, বাগেরহাটে ১১৬টি, সাতক্ষীরায় ৫৭টি, বরগুনায় ৩২টি, পটয়াখালীতে ২৭টি, ভোলায় ২৩টি, বরিশালে ৫টি, পিরোজপুরে ৪৬টি, নোয়াখালীতে ১৭টি, চট্টগ্রামে ১৭টি, কক্সবাজারে ৩টি ও লক্ষ্মীপুরে ৬টি পুকুর রয়েছে।

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর খুলনার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জাহিদ পারভেজ এই তথ্য নিশ্চিত করে সাংবাদিকদের বলেন, ‘সরকারের সব উন্নয়নমূলক কাজের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর লাইট হাউজ প্রজেক্ট, পানি সংরক্ষণ ও নিরাপদ পানি সরবরাহের লক্ষ্যে জেলা পরিষদের পুকুর/দিঘী/জলাশয়সমূহ পুনঃখনন/সংস্কার প্রকল্প এবং পল্লী এলাকায় পানি সরবরাহ প্রকল্পের আওতায় পুকুরগুলো পুনঃখনন ও সংস্কার কাজ হাতে নেওয়া হয়েছে। খুলনার তালিকায় থাকায় ২২টি পুকুরের মধ্যে জানুয়ারিতে দাকোপে ১০টি পুকুরের কাজ শুরু হয়েছে। যা আসন্ন বর্ষা মৌসুমের আগেই সম্পন্ন করার প্রচেষ্টা চলছে।’

তিনি বলেন, ‘পানি সংরক্ষণ ও নিরাপদ পানি সরবরাহের লক্ষ্যে জেলা পরিষদের পুকুর/দিঘী/জলাশয়সমূহ পুনঃখনন ও সংস্কার প্রকল্পের অধীন দাকোপ উপজেলায় ছয়টি ও পল্লী এলাকায় পানি সরবরাহ প্রকল্পে দাকোপ উপজেলায় চারটি পুকুরের পুনঃখনন কাজ শেষ পর্যায়ে রয়েছে। এছাড়া পানি সংরক্ষণ ও নিরাপদ পানি সরবরাহের লক্ষে জেলা পরিষদের পুকুর/দিঘী/জলাশয়সমূহ পুনঃখনন ও সংস্কার প্রকল্পের অধীন পাইকগাছা উপজেলায় ৬টি ও কয়রা উপজেলায় ৯টি পুকুর এবং পল্লী এলাকায় পানি সরবরাহ প্রকল্পে পাইকগাছা উপজেলায় ৪টি ও কয়রা উপজেলায় ২টি পুকুর পুনঃখনন কাজের জন্য টেন্ডার প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।’

জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের প্রধান প্রকৌশলী মো. রশিদুল হক ২৮ এপ্রিল থেকে দুই দিন খুলনা সার্কেলের জেলা ও উপজেলার উন্নয়নমূলক কার্যক্রম পরিদর্শন করেন। তিনি ২৯ এপ্রিল পল্লী অঞ্চলের দুর্গম এলাকা খুলনার দাকোপ উপজেলায় যান। সেখানে চলতি বছরের সব উন্নয়নমূলক কাজের পাশাপাশি প্রধানমন্ত্রীর লাইট হাউজ প্রজেক্ট, পানি সংরক্ষণ ও নিরাপদ পানি সরবরাহের লক্ষ্যে জেলা পরিষদের পুকুর/দিঘী/জলাশয়সমূহ পুনঃখনন/সংস্কার প্রকল্প, এবং পল্লী এলাকায় পানি সরবরাহ প্রকল্পের আওতায় পুনঃখননকৃত পুকুর পরিদর্শন করেন। সফরকালে জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতরের প্রকল্প পরিচালক মো. শামছুল আলম, তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী এস এম ওয়াহিদুল ইসলাম, খুলনার নির্বাহী প্রকৌশলী মো. জাহিদ পারভেজ, বাগেরহাট নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শামিম আহমেদ, নির্বাহী প্রকৌশলী মো. মাজহারুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

২৯ এপ্রিল প্রধান প্রকৌশলী মো. রশিদুল হক পানি সংরক্ষণ ও নিরাপদ পানি সরবরাহের লক্ষে জেলা পরিষদের পুকুর/দিঘী/জলাশয়সমূহ পুনঃখনন/সংস্কার প্রকল্পের অধীন খুলনার দাকোপ উপজেলার চুনকুড়ি এলাকার পুকুর এবং পল্লী এলাকায় পানি সরবরাহ প্রকল্পের অধীন সাহেবারাবাদের পুকুর পরিদর্শন করেন। পরিদর্শনকালে দেখা যায়, পুকুরের কাজ চলমান। প্রধান প্রকৌশলী পুকুরের পুনঃখনন কাজের অগ্রগতির বিষয়ে সন্তোষ প্রকাশ করেন।

তিনি বলেন, ‘এসব পুকুর পুনঃখননের পর সোলার সিস্টেম নির্মাণ করে এলাকাবাসীর নিরাপদ সুপেয় পানির চাহিদা মেটানো সম্ভব হবে। যেহেতু বর্ষা মৌসুম আগত। তাই কাজের গতি বৃদ্ধির জন্য নির্বাহী প্রকৌশলীকে বর্ষা মৌসূমের আগেই কাজ শেষ করার তাগিদ দেওয়া হয়।’

এছাড়াও গুণগত মান বজায় রেখে সব উন্নয়নমূলক কাজ নির্ধারিত সময়ের মধ্যে সম্পন্ন করার জন্য যাবতীয় ব্যবস্থা নিতে সংশ্লিষ্ট সবাইকে তিনি আহ্বান জানান।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।