আজকের বার্তা | logo

৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৮ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং

ইলিশের ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রম হচ্ছে বরিশাল: কয়েকগুণ ইলিশ উৎপাদনের আশা

প্রকাশিত : এপ্রিল ২২, ২০১৮, ০০:৩৯

ইলিশের ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রম হচ্ছে বরিশাল: কয়েকগুণ ইলিশ  উৎপাদনের আশা

সাঈদ পান্থ ॥ রূপালী ইলিশের ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রম হচ্ছে বরিশাল। জেলার দুই উপজেলাকে ঘিরে এই অভয়াশ্রমের জন্য আগামী দুই মাসের মধ্যে গেজেট প্রকাশ করা হবে। এর ফলে ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রমের পরিধি বৃদ্ধি পেয়ে ৮২ কিলোমিটার বলে দাবি মৎস্য অধিদপ্তরের। আগামী বছর প্রজনন মৌসুমে এ অভয়াশ্রমের কার্যক্রম শুরু হচ্ছে। এর ফলে এ অঞ্চলে ইলিশের উৎপাদন বৃদ্ধি পাবে বলে মনে করছেন ইলিশ বিশেষজ্ঞরা। গত ৪ বছর সার্ভে ও অঞ্চল পরিদর্শন করে সীমানা নির্ধারণ করা হয়েছে। জেলার উপজেলা দুইটি হচ্ছে হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জ। জানা গেছে, বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট বরিশালের মেঘনায় গবেষণা করে অভয়াশ্রম করার স্থান খুঁজে পায়। এর প্রেেিত ২০১৩ সালে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের মাধ্যমে মৎস্য অধিদপ্তরকে অভয়াশ্রম করার প্রস্তাব দেয়া হয়। গবেষণা ইনস্টিটিউট জানিয়েছে, নদীর যে স্পটে ১শ মিটার জালে প্রতি ঘণ্টায় ৫০টি ইলিশ এবং পানির গুণাগুণ মানসম্মত থাকে সেখানটা ইলিশের অভয়াশ্রম হতে পারে। টানা সাড়ে ৩ বছর জরিপ করে মেঘনার ওই স্পটে এসব নমুনা পাওয়া গেছে। বরিশাল জেলা মৎস্য কর্মকর্তা (হিলশা) বিমল চন্দ্র দাস বলেন, মৎস্য অধিদপ্তরের প্রধান কার্যালয়ের অধীনে বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট, মৎস্য অধিদপ্তর ও ইকো ফিস প্রকল্পর কর্মকর্তাদের উচ্চ পর্যায়ের টিম বেশ কয়েকবার জেলার হিজলা ও মেহেন্দিগঞ্জের বিভিন্ন নদী পরিদর্শন করেছেন। ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রমের সীমানা নির্ধারণ করা হয়েছে। সে অনুযায়ী ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রম হবে দক্ষিণ পশ্চিমে-বরিশাল সদর উপজেলার জুনাহারের মোড় আড়িয়াল খাঁ, কীর্তনখোলা, কালাবদর নদীর মিলন স্থল। দক্ষিণ-পূর্বে মেহেন্দিগঞ্জের জাঙ্গালিয়ার কালবদর ও তেঁতুলিয়া নদীর মিলন স্থল। উত্তর-পশ্চিমে হিজলার হরিনাথপুর সংলগ্ন আড়িয়াল খাঁ ও মেঘনা নদীর মিলন স্থল। উত্তর-পূর্বে হিজলা গৌরবদীর মেঘনা নদীতে। তিনি বলেন, ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রম বাস্তবায়নে আগামী ২ মাসের মধ্যে গেজেট প্রকাশ করা হবে। আগামী বছর প্রজনন মৌসুমে ইলিশের ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রম হিসেবে কার্যকর হবে। ওয়ার্ল্ড ফিশের প্রতিনিধি ও ইলিশ গবেষক ড. জলিলুর রহমান বলেন, হিজলা-মেহেন্দিগঞ্জের যেখানে জাটকা বেশি পাওয়া যায় সেখানকার একটি অংশ আগেই অভয়াশ্রম করার জন্য চিহ্নিত করা হয়েছিল। কিন্তু এর সীমানা নিয়ে জটিলতা থাকায় সার্ভেতে একটু বিলম্ব হয়েছে। সরকার ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রমের গুরুত্ব উপলব্ধি করে চলতি বছরের জুন মাসের মধ্যে গেজেট প্রকাশ করবে। আগামী বছর জাটকা সিজনে ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রম কার্যকর হবে। তিনি বলেন, কেবল ইলিশ নয় এ অঞ্চলে নানা ধরনের প্রচুর মাছ রয়েছে। এগুলোর প্রজনন নিরাপদ করতে ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রম। অভয়াশ্রম কার্যকর হলে ইলিশ উৎপাদিত ৫ গুণ বৃদ্ধি পাবে। বাংলাদেশ মৎস্য গবেষণা ইনস্টিটিউট’র ঊর্ধ্বতন বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ইলিশ গবেষক ড. মোঃ আনিছুর রহমান বলেন, বরিশালে ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রম করা হচ্ছে। এখন শুধু বাস্তবায়নের অপেক্ষা। তিনি বলেন, ৬ষ্ঠ অভয়াশ্রম কার্যকর হলে এ অঞ্চলে ইলিশের উৎপাদন বেড়ে যাবে। এ ব্যাপারে মৎস্য অধিদপ্তরের বরিশাল বিভাগীয় উপ-পরিচালক ড. ওয়াহিদুজ্জামান বলেন, খুব শীঘ্রই গেজেট প্রকাশ করা হবে। এই অভয়াশ্রম কার্যকর হলে এর পরিধি বৃদ্ধি পাবে ৮২ কিলোমিটার। আগামী সিজন থেকেই এর রক্ষণাবেক্ষণ কার্যক্রম শুরু হবে।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।