আজকের বার্তা | logo

১১ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং

আন্ধারমানিক নদী তীরের দীর্ঘ এলাকাজুড়ে চলছে দখল-দূষণ

প্রকাশিত : এপ্রিল ২৫, ২০১৮, ০১:৩০

আন্ধারমানিক নদী তীরের দীর্ঘ এলাকাজুড়ে চলছে দখল-দূষণ

কলাপাড়া প্রতিনিধি ॥ আন্ধারমানিক নদী কলাপাড়াবাসীর প্রাণ। সেই প্রাণের স্পন্দন এই নদীর জোয়ার-ভাটার স্বাভাবিক প্রবাহ। নদীর পুরোটা সাগর মোহনা পর্যন্ত ৪৫ কিলোমিটার এলাকা ইলিশের অভয়ারন্য হিসেবে সংরক্ষিত রয়েছে। এই নদী ইলিশের প্রজননকালীন আশ্রয়সহ পোনা ইলিশের বড় হয়ে ওঠার নিরাপদ আবাসস্থল হিসেবে রাখা হয়েছে। এমনিতেই নদীতে পলি জমে ভরাট হয়ে যাচ্ছে। এর সঙ্গে এবছর ভয়াবহ দখল-দূষণ শুরু হয়েছে। ভূমি দস্যুদের আগ্রাসি থাবায় পায়রা বন্দরের উত্তর পাশে টিয়াখালী নদীর সংযোগ স্থল থেকে বালিয়াতলী খেয়াঘাট পর্যন্ত প্রায় পাঁচ কি.মি. নদী তীর দখল করে রিংবেড়িবাঁধ দিয়ে বালুর ভরাট চলছে। কেউ কেউ স্লুইস সংযুক্ত নদীর সঙ্গে সংযোগ খাল পর্যন্ত ভরাট করে দখল করে নিয়েছে। পায়রা বন্দর ঘেঁষা এই দখলদারিত্ব চলছে। এক-দেড় বছর আগের বনজঙ্গলে ঘেরা সবুজ অরণ্য এখন বিরানভূমি। বালুর আস্তরণে ঢেকে গেছে। পাঁচ-সাত ফুট বালুর নিচে চাপা পড়েছে প্রকৃতির রঙ, বাস্তবতা। এখন খাঁ খাঁ করছে নদীর ওয়াটার লেভেল পর্যন্ত।

জোয়ারে কোমর সমান পানি ওঠে। শত শত একর সরকারি খাসসহ নদী তীর ভরাট চলছে ফ্রি-স্টাইলে। পরিবেশবাদীসহ সকলের মন্তব্য, জোয়ারের সময় নদী তীরে যতদূর পানিতে প্লাবিত হয় ততদূর নদীর সীমানা। কিন্তু এখন আন্ধারমানিক নদীর দীর্ঘ এলাকা দখল-দূষণের গ্রাসে। দখলদারদের আগ্রাসী থাবায় ইলিশের অন্যতম আবাসস্থল আন্ধারমানিক এখন চরম ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। বালিয়াতলী খেয়াঘাট থেকে কলাপাড়া পৌরসভার সীমানা পর্যন্ত আবার ইটভাটির মালিকরা ভরাট ও দখল হয়ে যাচ্ছে। এরা আবার সোনাতলী নদীর দুই পাড় কেটে টপসয়েল এনে ব্যবহার করছে ইট তৈরির কাজে। তাও লোনা পানির ইট। পৌর এলাকায় আবার দখলদাররা নদী তীরে তুলছে পাকা ও সেমিপাকা স্থাপনা। এমনিভাবে বহুমুখী দখল চলছে আন্ধারমানিক নদীর দীর্ঘ এলাকায়। উপজেলা পরিষদের সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান আলহাজ্ব সুলতান মাহমুদ জানান, ভুয়া কাগজপত্র তৈরি করে অনেকে দখল করছে নদীর পাড়। ভূমি অফিসের লোকজন বাধা দিচ্ছে না। ফলে সরকারের কোটি কোটি টাকার খাস সম্পত্তি বেহাত হচ্ছে। অপরদিকে নদীরও চরম ক্ষতি হচ্ছে। দখল ছাড়াও পলিতে নদীর দুই পাড় ভরাট হয়ে গেছে। এখন নিশানবাড়িয়া, টুঙ্গিবাড়িয়া, নিউপাড়া, নিজামপুরের উল্টোদিকে বিশাল এলাকাজুড়ে চর জেগে উঠেছে। চরম নাব্যতা সঙ্কট দেখা দিয়েছে। বর্তমানে ইলিশের অভয়াশ্রম এই নদী রক্ষায় সরকারি কোনো উদ্যোগ নেই। খোদ কলাপাড়া পৌরসভার বর্জ্য ফেলা হয় এই নদীতে। তবে দখলদার ঠেকাতে উপজেলা প্রশাসন উদ্যোগ নিচ্ছে বলে উপজেলা নির্বাহী অফিসার মোঃ তানভীর রহমান জানিয়েছেন। তবে সচেতন মহলের অভিমত, এখনই দখল-দূষণ ঠেকাতে কঠোর প্রশাসনিক পদক্ষেপ নেয়া প্রয়োজন।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।