আজকের বার্তা | logo

১১ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২৬শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং

শিক্ষা কমিটির দ্বন্দ্বে শতাধিক শিক্ষকের বদলি অনিশ্চিত

প্রকাশিত : মার্চ ২৯, ২০১৮, ০১:৪০

শিক্ষা কমিটির দ্বন্দ্বে শতাধিক  শিক্ষকের বদলি অনিশ্চিত

আরেফিন সহিদ, বাউফল প্রতিনিধি ॥ বাউফল উপজেলা শিক্ষা কমিটির সভাপতি ও সদস্যদের দ্বন্দ্বের কারণে শিক্ষা কমিটির সভা হচ্ছে না। ফলে শতাধিক শিক্ষকের বদলি প্রক্রিয়া অনিশ্চিত হয়ে পড়েছে। বিষয়টি নিয়ে মহা বিপাকে পড়েছেন শিক্ষা অফিসের কর্মকর্তা ও সংশ্লিষ্ট শিক্ষকরা। সংশ্লিষ্ট সূত্র জানায়, গত ১ মার্চ বাউফল উপজেলা শিক্ষা কমিটির সভা আহবান করেন উপজেলা চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মজিবুর রহমান। ওই সভা চলাকালে ২ সদস্য রুনিয়া বেগম ও ইব্রাহিম ফারুক শিক্ষা কমিটির প্রধান উপদেষ্টা চিফ হুইপ আসম ফিরোজের সভায় উপস্থিতি দাবি করে ওয়াক আউট করেন। পরে সভাটি কোনো প্রকার সিদ্ধান্ত ছাড়াই মুলতবি ঘোষণা করা হয়। ৪ মার্চ ফের প্রধান উপদেষ্টার উপস্থিতি নিশ্চিত করে ওই মুলতবি সভা আহবান করেন উপজেলা চেয়ারম্যান। কিন্তু প্রধান উপদেষ্টা চিফ হুইপ আসম ফিরোজ ৪ মার্চ জাতীয় সংসদের কাজে ব্যস্ত থাকায় সভায় উপস্থিত হতে পারেননি।  ৪ মার্চের সভাটি ৭ মার্চ নির্ধারণ করা হয়। ৭ মার্চ প্রধান উপদেষ্টা চিফ হুইপ ফিরোজ সভায় উপস্থিত হলেও সেখানে যাননি উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মজিবুর রহমান। ওই সভায় রাম দা নিয়ে এক যুবক চিফ হুইপ ফিরোজকে হত্যার চেষ্টা চালান। পরে সেই সভাটিও প- হয়ে যায়। সর্বশেষ ২৮ মার্চ শিক্ষা কর্মকর্তা রিয়াজুল হক শিক্ষকদের সুবিধার বিষয়টি মাথায় রেখে শিক্ষা কমিটির সভার আয়োজন করেন। ওই সভায় যাননি শিক্ষা কমিটির সভাপতি ও  সদস্যরা। জানুয়ারি মাসের ১ তারিখ থেকে ৩১ মার্চ পর্যন্ত শিক্ষকদের বদলি হওয়ার সুযোগ রয়েছে। কিন্তু বাউফল উপজেলা শিক্ষা কমিটির সভাপতি ও  সদস্যদের দ্বন্দ্বের কারণে বদলি প্রার্থী শিক্ষকরা বিপাকে পড়েছেন। উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা রিয়াজুল হক বলেন, এখন আর সভা আহবান করার সুযোগ নেই। তাই শতাধিক শিক্ষকের বদলি প্রক্রিয়া অনিশ্চিত হয়ে গেছে। শিক্ষা কমিটির সদস্য ইব্রাহিম ফারুক বলেন, অধিকাংশ সদস্যদের দাবি ছিল সভায় প্রধান উপদেষ্টা চিফ হুইপ আসম ফিরোজ উপস্থিত থাকবেন। কিন্তু উপজেলা চেয়ারম্যান তা চাননি। ৭ মার্চের সভায় প্রধান উপদেষ্টা চিফ হুইপ ফিরোজ উপস্থিত হলেও সেখানে যাননি উপজেলা চেয়ারম্যান। তিনি কোনোভাবেই শিক্ষকদের বদলি চাচ্ছেন না। উপজেলা চেয়ারম্যানের খামখেয়ালীপনার কারণেই শিক্ষকরা ভোগান্তির শিকার হচ্ছেন। বাউফল উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান ইঞ্জিনিয়ার মজিবুর রহমান বলেন, সভার দায়িত্ব উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে দেয়া হয়েছে। উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আবদুল্লাহ আল মাহমুদ জামান বলেন, ‘উপজেলা চেয়ারম্যান ৭ মার্চের সভাটি অবৈধ বলে নোট দিয়েছেন। সেই অবৈধ সভাটি আমি করতে পারি না।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।