আজকের বার্তা | logo

৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ১৮ই নভেম্বর, ২০১৮ ইং

নিথর দেহ বুঝে নিলেন অশ্রুসিক্ত স্বজনেরা

প্রকাশিত : মার্চ ২০, ২০১৮, ০১:১৭

নিথর দেহ বুঝে নিলেন অশ্রুসিক্ত স্বজনেরা

বার্তা ডেস্ক ॥ কাঠমান্ডুতে উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে নিহত বাংলাদেশিদের জানাজা সম্পন্ন হয়েছে। গতকাল সোমবার বাদ আসর ঢাকার আর্মি স্টেডিয়ামে এ জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। এরপর স্বজনদের কাছে লাশ বুঝিয়ে দেয়া হয়। এ সময় সেখানে প্রিয়জনের লাশ নিতে আসা স্বজনদের আহাজারিতে হৃদয়বিদারক পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়। জানাজায় নিহতদের স্বজন, আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্য, বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের নেতৃবৃন্দ ও সাধারণ মানুষ অংশ নেন। জানাজা শেষে নিহতদের প্রতি শেষ শ্রদ্ধা জানানো হয়। রাষ্ট্রপতির প থেকে তাঁর সামরিক সচিব, প্রধানমন্ত্রীর প থেকে সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের, স্পিকার শিরিন শারমীন চৌধুরী নিহতদের প্রতি শ্রদ্ধা জানান। এ ছাড়া আওয়ামী লীগ ও বিএনপির প থেকে পৃথকভাবে শ্রদ্ধা জানানো হয়। এ সময় সেনাবাহিনীর প্রধান ও বিমানবাহিনীর প্রধান সেখানে উপস্থিত ছিলেন। জানাজা ও শ্রদ্ধা নিবেদন শেষে সন্ধ্যা পৌনে ছয়টার দিকে লাশ স্বজনদের কাছে বুঝিয়ে দেওয়ার প্রক্রিয়া শুরু হয়।  এর আগে বিকেল চারটার দিকে ২৩ বাংলাদেশির লাশ দেশে এসে পৌঁছে। বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর একটি বিশেষ উড়োজাহাজ হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। সোয়া চারটার দিকে আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদেরের কাছে লাশগুলো হস্তান্তর করেন বিমানবাহিনীর প্রধান এয়ার চিফ মার্শাল আবু এসরার। সেখান থেকে ১৯টি গাড়িতে করে লাশগুলো নেওয়া হয় আর্মি স্টেডিয়ামে। গতকাল সোমবার সকালে কাঠমান্ডুতে বাংলাদেশ দূতাবাসে নিহতদের প্রথম জানাজা অনুষ্ঠিত হয়। গত সোমবার ইউএস-বাংলার বিএস-২১১ উড়োজাহাজ বিধ্বস্ত হয়ে নিহত হন ৪৯ জন। বিকেল চারটার দিকে মরদেহগুলো নিয়ে বাংলাদেশ বিমানবাহিনীর একটি বিশেষ উড়োজাহাজ হজরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণ করে। বিমানবন্দরের ভিভিআইপি টার্মিনালে একে একে মরদেহগুলো নামিয়ে শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত গাড়িতে ওঠানো হয়। ১৯টি গাড়িতে ২৩টি মরদেহ তোলা হয়। কফিনের ওপর যুক্ত নম্বর সঙ্গে মিলিয়ে গাড়িতে মরদেহগুলো ওঠানো হয়। এক নম্বর কফিনটি ছিল ইউএস বাংলার পাইলট আবিদ সুলতানের মেরদেহ। দুই নম্বর কফিনে ছিল কোপাইলট পৃথুলা রশিদের মরদেহ। এ ছাড়া রাফিকুজ্জামান, তাঁর স্ত্রী সানজিদা হক ও ছেলে অনিরুদ্ধ জামানের মরদেহ ১৩ নম্বর গাড়িতে, ৬ নম্বর গাড়িতে নেওয়া হয় প্রিয়ক ও তাঁর মেয়ে তামারা প্রিয়ন্ময়ীর মৃতদেহ। ১০ নম্বর গাড়িতে বেগম হুরুন নাহার বিলকিস বানু ও মো. ইমাম হাসানের মরদেহ রাখা হয়। বিকেল পৌনে পাঁচটার দিকে মরদেহগুলো বিমানবন্দর থেকে সরাসরি আর্মি স্টেডিয়ামে আনা হয়। সেখানে ২৩ যাত্রীর মৃতদেহ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে তাঁরা হলেন- আহমেদ ফয়সল, বিলকিস আরা, বেগম হুরুন নাহার বিলকিস বানু, আক্তারা বেগম, নাজিয়া আফরিন চৌধুরী, রাকিবুল হাসান, সানজিদা হক, ইমাম হাসান, আঁখি মণি, মিনহাজ বিন নাসির, এফএইচ প্রিয়ক, তামারা প্রিয়ন্ময়ী, মতিউর রহমান, এসএম মাহমুদুর রহমান, তাহিরা তানভীন শশী, উম্মে সালমা, অনিরুদ্ধ জামান, নুরুজ্জামান ও রফিক উজজামান, চার বিমান ক্রু- পাইলট আবিদ সুলতান, কো পাইলট পৃথুলা রশীদ, কেবিন ক্রু খাজা হোসেন মোহাম্মদ শফি ও শারমিন আক্তার।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।