আজকের বার্তা | logo

৬ই আশ্বিন, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২১শে সেপ্টেম্বর, ২০১৮ ইং

বরগুনার দুর্ভোগের আরেক নাম বামনা-খোলপটুয়া সড়ক

প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০১৮, ১১:০৪

বরগুনার দুর্ভোগের আরেক নাম বামনা-খোলপটুয়া সড়ক

বরগুনার বামনা উপজেলা সদরের স্মৃতিসৌধ চত্বর থেকে খোলপটুয়া বাজার পর্যন্ত পাঁচ কিলোমিটার সড়ক দীর্ঘদিন ধরে সংস্কারের অভাবে চলাচলে অনুপযোগী। সড়কটির পুরো অংশজুড়ে অসংখ্য খানাখন্দে ভরা। বর্তমানে যানবাহন চলা তো দূরের কথা পথচারীদের হেঁটে  অতিক্রম করা কষ্টকর। সংস্কারের অভাবে খানাখন্দে ভরা সড়কটি দিয়ে ঝুঁকি নিয়ে ট্রাক, বাস, মাহেন্দ্র, ভটভটি, অটোবাইক ও ভ্যান চলাচল করছে। ভাঙাচোরা এ সড়কে প্রায়ই ঘটছে দুর্ঘটনা।
বামনা উপজেলার স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে, ২০১৩-১৪ অর্থবছরে ৩৫ লাখ টাকা ব্যয়ে সড়কটির দুই কিলোমিটার সংস্কার করা হয়েছিল। পরবর্তীতে আর কোনো বরাদ্দ না আসায় সড়কের বাকি অংশ সংস্কার হয়নি।
উপজেলার খোলপটুয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মো. কামাল হোসেন বলেন, সড়কটি সংস্কার না হওয়ায় জনসাধারণের চলাচলে চরম দুর্ভোগ পোহাতে হচ্ছে। বিশেষ করে এলাকার বাজারগুলোতে গ্রাম থেকে কৃষিপণ্য আনা-নেওয়া করতে মানুষ দুর্ভোগে পড়ছেন। এ সড়ক দিয়ে হাঁটাও প্রায় অসম্ভব হয়ে পড়েছে। বর্ষায় কাদা মাড়াতে হয়, আর শুকনা মৌসুমে ধুলায় একাকার।
এ সড়ক দিয়ে যানবাহন চালাতে গিয়ে গা-হাত-পা ব্যথা হয়ে যায়। গাড়ির যন্ত্রপাতি খুলে পড়ে। যাত্রীদের খুব কষ্ট হয়। এ সড়ক কবে ঠিক হবে তা আল্লাহই জানেন। ক্ষোভের সুরে এ কথাগুলো বলেন উপজেলার আমতলী গ্রামের অটোরিকশা চালক মো. হারুন।
সরেজমিন দেখা যায়, সড়কটির সোনালী ব্যাংকের সামনের অংশে কার্পেটিং উঠে দিয়ে অসংখ্য স্থানে খানাখন্দের সৃষ্টি হয়েছে। এ ছাড়া সড়কের অনেক অংশের ইট পর্যন্ত উঠে গিয়ে গভীর গর্তের সৃষ্টি হয়েছে। রাস্তার বেহাল দশার কারণে সড়ক দিয়ে চলাচলকারী যানবাহন ঝুঁকি নিয়ে হেলেদুলে চলাচল করছে।
বামনা সদর ইউনিয়ন পরিষদ সচিব মো. রফিক হাসান জানান, বামনা উপজেলার সঙ্গে সংযোগকারী সড়কগুলোর মধ্যে সবচেয়ে বেশি গুরুত্বপূর্ণ সড়ক এটি। সড়কটির সঙ্গে সংযুক্ত হয়েছে উপক‚লীয় বরিশাল, ঝালকাঠি, ভাণ্ডারিয়া, কাঁঠালিয়া, বামনা ও পাথরঘাটা আঞ্চলিক মহাসড়ক। এছাড়া বরগুনা জেলা সদরেও যেতে হয় এ সড়ক দিয়ে। দুই সহস্রাধিক মানুষ নিত্য চলাচল করে। কী কারণে এ সড়কটি সংস্কার হচ্ছে না তা জানা নেই।
বামনা উপজেলার স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদপ্তরের প্রকৌশলী মো. নুরুজ্জামান জানান, ২০১৬-১৭ সালে বন্যা ও দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত পল্লী সড়ক ও সড়ক অবকাঠামো মেরামত/পুনর্বাসন প্রকল্পের ডিপিপিতে সড়কটি অন্তর্ভুক্ত করা হয়েছে। প্রকল্পটি একনেকের বৈঠকে অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। সড়কটি নির্মাণে প্রক্রিয়া চলছে।
Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।