আজকের বার্তা | logo

৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৫ বঙ্গাব্দ | ২০শে নভেম্বর, ২০১৮ ইং

থানার নামে ১০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি, না দেওয়ায় ‘গরু নিয়ে গেলেন ইউপি সদস্য’

প্রকাশিত : ফেব্রুয়ারি ০২, ২০১৮, ১৫:৪৯

থানার নামে ১০ হাজার টাকা ঘুষ দাবি, না দেওয়ায় ‘গরু নিয়ে গেলেন ইউপি সদস্য’

বরগুনা প্রতিনিধি- আমতলী উপজেলার সদর ইউনিয়নের ইউপি সদস্য মো. মজনু মৃধার বিরুদ্ধে চুরি হওয়া গরু উদ্ধারের পর ১০ হাজার টাকা দাবী কৃত ঘুষের টাকা না পেয়ে গরুর মালিক মাকসুদা বেগমের বাড়ি থেকে জোর পূর্বক গরু ছিনিয়ে নেওয়ার অভিযোগে করে এবং ছিনিয়ে নেওয়া গরুটি ফিরে পেতে বুধবার রাতে আমতলী প্রেসক্লাবের মমতাজ বেগম মিলনায়তনে সংবাদ সম্মেলন করেছে ভূক্তভোগী মাকসুদা বেগম।

মাকসুদা বেগমের লিখিত বক্তব্যে জানা যায়, ২০১৭সালের অক্টোবর মাসে আমতলী উপজেলার নাচনা পাড়া গ্রামের অসহায় দরিদ্র মাকসুদা বেগমের একটি গরু চুরি হয়। পরে চলতি বছরের ২১ জানুয়ারী ওই গরুটির সন্ধান পাওয়া যায় হলদিয়া ইউনিয়নের আলমগীর বেপারীর বাড়ীতে। গরুটি উদ্ধারের জন্য আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: সহিদ উল্যাকে জানান মাকসুদা বেগম।

আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সহিদ উল্যাহ থানার এস আই রসেলকে পাঠিয়ে স্থানীয় চৌকিদার সুকদেবের সহযোগিতায় ২৪ জানুয়ারী গরুটি উদ্ধার করে আমতলী থানায় নিয়ে আসেন। পরে গরুর প্রকৃত মালিক মাকসুদা বেগমের কাগজ পত্র পর্যালোচনা করে ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সহিদ উল্যাহ তাকে দিয়ে দেন। মাকসুদা বেগম গরু নিয়ে বাড়ী যাওয়ার পরে আমতলী সদর ইউপির ৫ নং ওয়ার্ডের সদস্য মো: মজনু মৃধা মাকসুদা বেগমের বাড়ীতে গিয়ে জানান থানায় ১০ হাজার টাকা ঘুষ চেয়েছেন। এ টাকা দিতে হবে না দিলে গরু থানায় নিয়ে যেতে বলেছেন।

মাকসুদা বেগম মজনু মৃধার কথামত টাকা না দেওয়ায় ক্ষিপ্ত হয়ে গত ২৫ জানুয়ারী ৮-১০ জন সহযোগি নিয়ে মাকসুদার বাড়ী থেকে জোর পূর্বক গরু টম টমে তুলে নিয়ে আসেন। এ ঘটনা তাৎক্ষনিকভাবে মাকসুদা বেগম আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো: সহিদ উল্যাকে জানান। ৩০ জানুয়ারী আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ইউপি সদস্য মজনু মৃধাকে ডেকে গরুটি মাকসুদা বেগমকে ফিরিয়ে দেওয়ার জন্য বলেন। কিন্ত এখনো মাকসুদা বেগম তার গরুটি ফেরৎ পায়নি।

মাকসুদা বেগম সংবাদ সম্মেলনে আরো বলেন, সিডরের সময় ঢাকা আহছানিয়া মিশন থেকে একটি গাভী গরু ত্রান হিসাবে পায় সে। গরুটি এ পর্যন্ত ৫টি বাচ্ছা দিয়েছে। ত্রানের গরুর পঞ্চম বাচ্চাটিসহ গত বছর অক্টেবর মাসে চুরি হয়। অনেক খোজা খুজির পর গরুটির খোজ পেয়ে আমতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা সহিদ উল্যাহ স্যারকে জানাই। অফিসার ইনচার্জ (ওসি) স্যার গরুটি উদ্ধার করে দিলেন কিন্তু মজনু মেম্বার থানায় ঘুষ দেয়ার কথা বলে গরুটি নিয়ে যান। মজুন মেম্বারকে ঘুষের টাকা না দেওয়ায় সে গরুটি ফেরৎ দিচ্ছেনা। আমি আমার গরুটি ফেরৎ চাই।

ইউপি সদস্য মজনু মৃধা ঘুষ চাওয়ার কথা অস্বীকার করে বলেন, আমি মাকসুদার বাড়ীতে যাইনি এবং গরুও আনিনি। সংবাদ সম্মেলনে মাকসুদার সাথে উপস্থিত ছিলেন আমতলী পৌরসভার ৬ নং ওর্য়াড কাউন্সিলর মো. জান্নাতুল ফেরদাউস ।

আমতলী থানার অফিসার ইনচার্জ (তদন্ত) মো. নুরুল ইসলাম বাদল বলেন, গরু উদ্ধার করে প্রকৃত মালিক মাকসুদা বেগমের কাছে ফেরৎ দেয়া হয়েছে। থানার নামে যদি কেউ ঘুষ দাবী করে থাকে তার বিরুদ্ধে কঠোর আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Share Button


আজকের বার্তা

আগরপুর রোড, বরিশাল সদর-৮২০০

বার্তা বিভাগ : ০৪৩১-৬৩৯৫৪(১০৫)
ফোনঃ ০১৯১৬৫৮২৩৩৯ , ০১৬১১৫৩২৩৮১
ই-মেলঃ ajkerbarta@gmail.com

সামাজিক যোগাযোগ
Site Map
Show site map

© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত
প্রকাশকঃ কাজী মেহেরুন্নেসা বেগম
সম্পাদক ও প্রতিষ্ঠাতাঃ কাজী নাসির উদ্দিন বাবুল
Website Design and Developed by
logo

আজকের বার্তা কর্তৃক সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। অনুমতি ছাড়া এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি ও বিষয়বস্তু অন্য কোথাও প্রকাশ করা বেআইনি।